যে অপারেটিং সিস্টেম কেবলমাত্র যে কোন সময়ে একজন ব্যবহারকারী এবং একক প্রসেসর সমর্থন করে তাকে সিঙ্গেল ইউজার অপারেটিং সিস্টেম বলা হয়। এটি হোম কম্পিউটার, অফিস অথবা অন্যান্য কাজের পরিবেশের জন্য একটি কমন টাইপের অপারেটিং সিস্টেম। নেটওয়ার্কের মাধ্যমে সিঙ্গেল ইউজার অপারেটিং সিস্টেম অন্য সিস্টেমের সাথে সংযুক্ত হতে পারে, এক্ষেত্রেও কেবলমাত্র একজন ব্যবহারকারীই ব্যবহার করতে পারেন।

সাধারণভাবে সিঙ্গেল ইউজার অপারেটিং সিস্টেম দুই ধরনের হতে পারে। যথা–

১. সিঙ্গেল ইউজার, সিঙ্গেল টাস্ক (Single User, Single task)
২. সিঙ্গেল ইউজার, মাল্টি টাস্কিং (Single User, multitasking)

সিঙ্গেল ইউজার, সিঙ্গেল টাস্ক অপারেটিং সিস্টেম (Single User, Single task Operating System)
এ ধরনের সিস্টেমে একজন ব্যবহারকারী একই সময়ে কেবলমাত্র একটি প্রোগ্রাম চালাতে পারেন। হাতের তালুতে রেখে ব্যবহারযোগ্য পাম কম্পিউটারের জন্য তৈরি Palm OS হলো সিঙ্গেল ইউজার, সিঙ্গেল টাস্ক অপারেটিং সিস্টেম।

সিঙ্গেল ইউজার, মাল্টি টাস্কিং অপারেটিং সিস্টেম (Single User, multitasking Operating System)

এ ধরনের সিস্টেমে একজন ব্যবহারকারী একই সময়ে একাধিক প্রোগ্রাম চালাতে পারেন। যেমন- ওয়ার্ডপ্রসেসরে টাইপ করার সময় ইন্টারনেট থেকে ডাউনলোড করতে পারেন এবং সাথে সাথে স্প্রেডশিটের কোন ফাইল প্রিন্টও করতে পারেন। মাইক্রো কম্পিউটারের জন্য মাইক্রোসফটের তৈরি Windows এবং অ্যাপলের তৈরি MacOS হলো সিঙ্গেল ইউজার, মাল্টি টাস্কিং অপারেটিং সিস্টেম। এ দুটি অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহারকারী একই সময়ে একাধিক কাজ করতে পারেন।

সিঙ্গেল টাস্ক এবং মাল্টি টাস্কিং অপারেটিং সিস্টেমের পার্থক্য
সিঙ্গেল টাস্ক সিস্টেম
১. একজন ব্যবহারকারী একই সময়ে কেবলমাত্র একটি প্রোগ্রাম ব্যবহার করতে পারেন।
২. ওয়্যারলেস ফোন, পামটপ কম্পিউটার, টু-ওয়ে ম্যাসেজিং ডিভাইসের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য।
৩. কম জনপ্রিয়।
৪. ব্যবহারকারীর সময় বাঁচায় না।
৫. একই সময়ে একাধিক কাজ করার সুযোগ দেয় না।

মাল্টি টাস্কিং সিস্টেম
১. একজন ব্যবহারকারী একই সময়ে একাধিক প্রোগ্রাম ব্যবহার করতে পারেন।
২. অধিক ব্যবহৃত মাইক্রো কম্পিউটারের জন্য এ ধরনের সিস্টেম ব্যবহৃত হয়।
৩. বেশি জনপ্রিয়।
৪. ব্যবহারকারীর অনেক সময় বাঁচায়।
৫. একই সময়ে একাধিক কাজ করার সুযোগ দেয়।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x