Lifestyle

ব্লেন্ডার ব্যবহার করার পদ্ধতি জেনে নিন

0 min read

ব্লেন্ডার ব্যবহার করার পদ্ধতি জেনে নিন

 আসসালামালাইকুম আজকের আলোচনা করব ব্লেন্ডার ব্যবহার করার পদ্ধতি সম্পর্কে ।বর্তমান যুগে সবাই রান্নার কাজে ব্লেন্ডার ব্যবহার করে থাকেন। কিন্তু ব্লেন্ডর ব্যবহার করার পদ্ধতি অনেকেই জানেনা । তাদের জন্য আজকের এই আলোচনার আপনি ব্লেন্ডার কি পদ্ধতি ব্যবহার করবেন এবং কি নিয়মে ব্যবহার করবে ইত্যাদি সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব। 
রান্নার কাজে যদি একটি ব্লেন্ডার হয় তাহলে অনেক ভালো হয় তাই ব্লেন্ডারে বিভিন্ন ধরনের মসলা ব্লেন্ডার করে থাকি। ব্লেন্ডারে আপনি যদি রান্নার যে কাজগুলো ব্লেন্ডারে করা যায় সেই কাজগুলো যদি ব্লেন্ডারে করতে পারেন তাহলে অনেক সুবিধা হয়।
কিন্তু একটু সুবিধার জন্য আপনি অজান্তে অনেক কিছু ভুল করতে পারেন এর জন্য আপনার ব্লেন্ডারের অনেক পরিমাণের ক্ষতি হতে পারে। তাই অবশ্যই ব্লেন্ডার ব্যবহার করার পদ্ধতি জানতে হবে। আগেকার যুগের রান্নার কাজে ব্লেন্ডার ছিলনা পাটায় পিষে মসলা বেটে নিতে হতো।
বর্তমান যুগে গবেষণা পদ্ধতি অবলম্বন করে দিয়েছেন ব্লেন্ডারে বিভিন্ন পদের মসলা পেস্ট করা যায়। এজন্য প্রত্যেক রান্নাঘরে একটি ব্লেন্ডার থাকা খুবই ভালো। ব্লেন্ডার কেনার আগে আপনাকে অবশ্যই ব্লেন্ডারের পদ্ধতি নিয়ম কারণ সকল বিষয় জানতে হবে।
তারপর ব্যবহার করতে হবে যার ফলে আপনার ব্লেন্ডার দীর্ঘদিন ব্যবহার করতে পারবেন। তাই জেনে নিন ব্লেন্ডার ব্যবহার করার পদ্ধতি। আপনি যদি ব্লেন্ডার নিয়ম বা পদ্ধতি না জানেন সে ক্ষেত্রে আপনার নতুন ব্লেন্ডার অল্প কিছুদিনের মধ্যে নষ্ট হবে নিশ্চিত এজন্য অবশ্যই ব্লেন্ডার ব্যবহার করার পদ্ধতি জানতে হবে।
ব্লেন্ডার ব্যবহার করার পদ্ধতি ব্লেন্ডার ব্যবহার করার নিয়ম ব্লেন্ডার দিয়ে কি কি করা হয় ব্লেন্ডার দিয়ে কি কি করা যায় না ইত্যাদি । সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব । সকলে মনোযোগ দিয়ে আমাদের পোস্ট পড়ে নিন। নিচে উল্লেখিত বিষয়গুলো আলোচনা করব ব্লেন্ডার ব্যবহার করার পদ্ধতি সম্পর্কে।

ব্লেন্ডার ব্যবহারের নিয়ম জেনে নিনঃ

নতুন ব্লেন্ডার কেনার আগে আপনাকে অবশ্যই ভাবতে হবে এই ব্লেন্ডার টা অনেক দিন ব্যবহার করা। আপনি যদি দীর্ঘদিন ব্লেন্ডার ব্যবহার করতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে ব্লেন্ডার ব্যবহারের নিয়ম জানতে হবে। ব্লেন্ডার ভালো রাখার জন্য এবং নতুন ধারালো রাখতে চাইলে নিয়মগুলো অনুসরণ করে ব্যবহার করার চেষ্টা করুন।

ব্লেন্ডারের ভেতর পরিষ্কারঃ

আমরা যে কোন জিনিস মার্কেট বা বাজার থেকে কিনে আনার পর ভালোভাবে সেটা পরিষ্কার করে নেব। ব্লেন্ডার ব্লেন্ডারের ক্ষেত্রে ঠিক একই পদ্ধতি। নতুন ব্লেন্ডার কেনার পর ব্লেন্ডারের ভেতরের দিকটা ভালো করে পরিষ্কার করে নিতে হবে। কারণ ব্লেন্ডার পরিষ্কার শেখা রাসায়নিক দ্রব্য ধুলাবালু এবং অনেক ময়লা জমে থাকে সেই ময়লা গুলো অবশ্যই পরিষ্কার করতে হবে। সাধারণত মসলা পেস্ট করার জন্য আমাদের প্রতিনিয়ত বা প্রতিদিন ব্লেন্ডারের প্রয়োজন হয় না সে ক্ষেত্রে অনেকদিন পর আপনি যদি ব্লেন্ডার ব্যবহার করেন। সেই ব্লেন্ডারের প্রতিদিনের থেকে অনেকদিন পর যদি ব্যবহার করেন সেক্ষেত্রে অনেক ময়লা লেগে থাকে ব্লেন্ডারের ভিতরে এবং বাহিরে ময়লা গুলো পরিষ্কার করে তারপর ব্লেন্ডার ব্যবহার করুন। ব্লেন্ডারের ব্লেড যদি ময়লা থাকে সে ক্ষেত্রে ব্লেড খুলে তারপর নরম পাতলা সুতি কাপড় দিয়ে ময়লা পরিষ্কার করে নিতে হবে। ব্লেন্ডার ব্যবহার করার চলাকালীন সময়ে কয়েকদিন পর পর পরিষ্কার করলে ব্লেন্ডার অনেকদিন ভালো থাকবে।

 ব্লেন্ডারের ঢাকনা ব্যবহারঃ

ব্লেন্ডার ব্যবহার করার সময় অবশ্যই অবশ্যই আপনাকে ব্লেন্ডারের ঢাকনা ভালো করে আটকাতে হবে। ব্লেন্ডার যদি ভালো করে আটকে না দিতে পারেন সেক্ষেত্রে মসলাগুলো উপরের দিকে চলে আসবে। তাই অবশ্যই ব্লেন্ডারের ঢাকনা ভালোভাবে আটকাতে হবে। ব্লেন্ডার এর স্পিড অনেক তাই ঢাকনার যদি ভালোভাবে আটকে না দেওয়া হয় সে ক্ষেত্রে ঢাকনা ছিটকে নিচে পড়ে যেতে পারে। তাই সেইদিকে খেয়াল রেখে অবশ্যই ঢাকনা ভালোভাবে আটকাতে হবে।
 আপনাকে এখানে একটি জিনিস খেয়াল রাখতে হবে সেটা হচ্ছে ঢাকনার ওপরে একটি ছিদ্র থাকে সেই ছিদ্রতে হাত দেওয়া যাবেনা ছিদ্রটা ফাঁকা রাখতে হবে। কারণ ঢাকনার উপর এসএসসি পাসেই ছিদ্রটার দিয়ে ভেতরের এবং বাতাস বের হতে সাহায্য করে। ঢাকনার উপর ছিদ্রটা যদি আপনি ধরে থাকেন সেক্ষেত্রে আপনার ব্লেন্ডার ভিতর গরম হয়ে ব্লেন্ডার নষ্ট হয়ে যেতে পারে এবং ফেটে যেতে পারে। মসলা পেস্ট করার সময় আপনাকে অবশ্যই অল্প পানি দিতে হবে তা না হলে ব্লেন্ডারের অনেক ক্ষতি হতে পারে।

সঠিকভাবে প্লাগ লাগিয়ে নিনঃ

ব্লেন্ডারের সাথে থাকা প্লাগটি সঠিকভাবে প্লাগ ইন করবেন। ভুল আউটলেটে প্লাগ ইন করতে গেলে দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। আবার বহুদিন অব্যবহৃত থাকলে চেক করে নেবেন প্লাগের তারে চিড় ধরেছে কিনা বা ফেটে গিয়েছে কিনা।

 ব্লেন্ডারের শব্দ কমাতে ম্যাট ব্যবহার করুন ঃ

ব্লেন্ডারে অতিরিক্ত শব্দ সবার কাছেই বিরক্ত লাগে। ব্লেন্ডারের শব্দ আসলেই বিরক্তকর শব্দ থেকে কিভাবে আপনি মুক্তি পাবেন সে পদ্ধতি জেনে নিন। শব্দ থেকে বেঁচে থাকার জন্য নিচে সিলিকন ম্যাট ব্যবহার করুন। এর কারণে ব্লেন্ডারের শব্দ ও ভাইব্রেশন দুইটাই কমে যাবে।

উপকরণ বাছাই করুনঃ

ব্লেন্ডার দিয়ে আমরা অনেক কিছু করে থাকি কিন্তু আপনাকে জানতে হবে কোন জিনিসটি ব্লেন্ড  করার কি নিয়ম। যে উপকরণগুলো ব্লেন্ডারে দেওয়ার পর ব্লেন্ডার করা যায় না সে উপকরণ গুলো ছোট ছোট করে কেটে তারপর দিতে হবে। বড় সাইজ যে উপকার ব্লেন্ডারে পেস্ট করতে যাবেন আপনার ব্লেন্ডার মেশিন নষ্ট হয়ে যাবে। শক্ত ও নরম জিনিস একসাথে দেওয়ার চেষ্টা করবেন না। শক্ত ও নরম দুইটা উপকরণ আলাদা আলাদাভাবে ব্লেন্ড করতে হবে।
 আগে নরম কিছু ব্লেন্ডার করে নিতে হবে তারপর সবকিছু ব্লেন্ডার করতে হবে যার ফলে আপনার ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড ভালো থাকবে। যেমন স্মুদি বানাতে গেলে আগে পানি , দুধ ও দই দিয়ে ব্লেন্ড করে নিন। তারপর একটু একটু করে সবজি ফল দিয়ে ব্লেন্ড করতে থাকা। এরপর বরফের টুকরা দিয়ে আবার ব্লেন্ড করতে হবে। এই মিশ্রণ গুলো যদি একসঙ্গে ব্লেন্ড করতে চান সেক্ষেত্রে আপনার ব্লেন্ডার নষ্ট হয়ে যাবে। মিশ্রণ মিশ্রন ভালো হবে।

ব্লেন্ডার প্রয়োজন বুঝে ব্যবহার করবেঃ

ব্লেন্ডার ব্যবহার করার পদ্ধতি। প্লাস্টিকের ব্লেন্ডারে আপনি যেই উপকরণগুলো ব্যবহার করতে পারবেন যেমন জুস মসলা নরম নরম জিনিস ইত্যাদি। স্টিলের ব্লেন্ডার আপনি যেই উপকরণ গুলো ব্যবহার করতে পারেন যেমন মাংসের কিমা রাইস ফাইবার আদা রসুন চাউলের গুড়া ইত্যাদি। এই পদ্ধতি অবলম্বন করে যদি ব্লেন্ডার ব্যবহার করতে পারেন তাহলে আপনার ব্লেন্ডার অনেকদিন রাখতে পারবেন ঠিকঠাক ভাবে।

ব্লেন্ডার চালান কম স্পিডেঃ

প্রথমে আপনাকে ধীরে ধীরে ব্লেন্ডার চালু করতে হবে তারপর আরেকটু একটু বেশি করে চালু করতে হবে সর্বশেষে আপনি এর থেকে একটু বেশি করে ব্লেন্ডার চালাতে পারেন। এর পর আপনি ফুল স্পিডে ব্লেন্ডার ব্যবহার করতে পারবেন কোন সমস্যা নেই। এই নিয়মগুলো অবলম্বন করতে পারলে পড়তে আপনার ব্লেন্ডার অনেকদিন আপনি রাখতে পারবেন ব্যবহার করতে পারবেন।

 ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড করে পরিষ্কার করুনঃ

ব্লেন্ডার ব্যবহার করার পরে ব্লেন্ডারে অল্প একটু পানি যেতে পারে এবং ময়লা লাগতে পারে সেক্ষেত্রে আপনার পরিষ্কার করার নিয়ম জানতে হবে। ব্লেন্ডার ব্যবহার করার পর ব্লেন্ডারের ভেতরের দিকটা নরম শুকনা কাপড় দিয়ে ভালো করে পরিষ্কার করে নিন। ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড বাইরের দিকটা ভিজা কাপড় দিয়ে পরিষ্কার করতে পারবেন কোন সমস্যা নেই।
 কিন্তু অতিরিক্ত পানি দিয়ে ব্লেন্ডর পরিষ্কার করা যাবে না। ব্লেন্ডার পরিষ্কার করার আরেকটি পদ্ধতি হচ্ছে অল্প পরিমাণে গোড়া সাবান দিয়ে তারপর একটু পানি দিয়ে 30 সেকেন্ড ব্লেন্ড করে নিন একদম পরিষ্কার হয়ে যাবে।

ব্লেন্ডারের ধার ঠিক রাখতে হবেঃ

 ব্লেন্ডারে অনেকদিন যদি আপনি ব্লেন্ড করে থাকেন সেক্ষেত্রে ব্লেন্ডারের দাতে বিভিন্ন ধরনের সমস্যা দেখা দেয় আমরা সাধারণত যে কথাটা বলে থাকি সেটা হচ্ছে ভোঁতা হয়ে যায় এমন যদি দেখা দেয় সেক্ষেত্রে আপনাকে একটি পদ্ধতি অবলম্বন করতে হবে সেটা হচ্ছে ডিমের খোসা এর সঙ্গে একটু পানি দিয়ে তারপর ব্লেন্ড করুন দেখবেন আপনার ব্লেন্ডারের দাঁত ঠিক হয়ে যাবে এবং ধারালো হয়ে যাবে।
 ডিমের খোসা ও পানি একসঙ্গে ব্লেন্ড করার পর আপনার ব্লেন্ডারের ধার খুবই খুবই বেড়ে যাবে।

 নষ্ট অংশটি পাল্টে ফেলার পদ্ধতিঃ

 ব্লেন্ডারের প্রতিটা অংশ আলাদা এজন্য যদি ব্লেন্ডারের এজন্য যদি যদি ব্লেন্ডারের কোন অংশ নষ্ট হয়ে যায় ।সেক্ষেত্রে আপনি আলাদা আলাদা পাট পাল্টে নিতে পারবেন এগুলো ব্লেন্ডারের আলাদা পাঠ কিনতে পাওয়া যায় আপনি চাইলে যেই জিনিসটা নষ্ট হয়ে যাবে সে জিনিসটা পরিবর্তন করে আবার নতুন করে ফেলতে পারেন ব্লেন্ডার। আপনাকে আবার নতুন করে ব্লেন্ডার কিনতে হবে না এবং নতুন করে পরিবর্তন করতে হবে না আপনি যদি পদ্ধতিতে অবলম্বন করেন। আপনার ব্লেন্ডারের যেকোনো একটি অংশ যদি নষ্ট হয়ে যায় সে ক্ষেত্রে আপনি ওই অংশটা পরিবর্তন করতে পারবেন। শুধু শুধু আপনার পুরা ব্লেন্ডার টা পাল্টাতে হবে না।

 ব্লেন্ডার দিয়ে কি কি করা যাবেঃ

ব্লেন্ডারে আপনি মাংস কিমা ব্লেন্ড করতে পারবেন আস্ত মশলা গুঁড়ো করতে পারবেন সস বানানো যাবে বিভিন্ন ধরনের লিকুইড খাবার প্ল্যান করতে পারবেন যেমন কোন মিল্ক, সুপ, জুস, কোল্ড কফি ইত্যাদি। খাদ্য বর্জ্য ব্লেন্ড করে জৈবসার বা কম্পোস্ট তৈরি করতে পারবেন। ফলের খোসা, ডিমের খোসা, এবং সবজির খোসা একসাথে ব্লেন্ড করলেই তৈরি হয়ে যাবে এই সার। পরিমাণ মতো ময়দা, ডিম, দুধ/জল, এবং ভ্যানিলা এসেন্স দিয়ে প্যান কেকের ব্যাটার তৈরি করতে পারবেন। বাজারে রেডিমেইড চালের গুঁড়ো, ওটস পাউডার, আইসিং সুগার কিনতে পাওয়া যায়। চাইলে ঘরে বসে ব্লেন্ডারে এসব জিনিস বানাতে পারবেন কয়েক মিনিটে। যারা ফ্লাফি এগ খেতে পছন্দ করেন তারা ব্লেন্ডারে ডিম ভালো করে ফেটিয়ে নিতে পারেন। তাহলে হাতে ডিম ফেটানোর ঝামেলা করতে হবে না।

ব্লেন্ডার দিয়ে কি কি করা যাবে না জেনে নিনঃ

রোদে শুকানো শুকনা যে কোন সবজি ও শুকনা জাতীয় ফল ব্লেন্ড করা যাবে না। খাবারগুলোর শক্ত তাই এগুলো আপনি ব্লেন্ড করতে পারবেন না ব্লেন্ডার খুব দ্রুত নষ্ট হয়ে যাবে। আপনি যদি শুকনা কিছু ব্লেন্ড করতে চান তবে আপনাকে কিছুক্ষণ ভিজিয়ে রেখে তারপর ব্লেন্ড করতে হবে। শক্ত জাতীয় আপনি যেই সবগুলো রয়েছে সেসব যোগদান করতে পারবেন যদি ব্লেন্ডার স্টিলের হয়। প্লাস্টিকের ব্লেন্ডার হলে সে ক্ষেত্রে আপনি শক্ত খাবার গুলো ব্লেন্ডার করতে পারবেন না।
আমরা মাঝে মাঝে অতিরিক্ত গরম কিছু ব্লেন্ডার করে থাকে সে ক্ষেত্রে এটা একদমই নিষেধ। আপনি যদি গরম কোন জিনিস ব্লেন্ডার করতে চান সে ক্ষেত্রে ব্লেন্ডারের অনেক বড় বিপদ হতে পারে কারণ যে জিনিসগুলো আপনি ব্লেন্ডার করবেন সেটাও গরম এবং ব্লেন্ডার ও গরম হয়ে যায় এজন্য গরম জিনিস গুলো একটু ঠাণ্ডা করে তারপর ব্লেন্ডার করতে হবে। যদি গরম কিছু প্ল্যান করতে চান সে ক্ষেত্রে মারাত্মক বিপদ হতে পারে তাই কখনো ভুলেও গরম কিছু ব্লেন্ড করতে যাবেন না। একটু ঠান্ডা করে তারপর ব্লেন্ড করুন।
কখনো ভুলেও কফি দিয়ে ব্লেন্ড করবেন না। কফি বীজ জন্য আলাদা মেশিন বা গ্রাইন্ডার রয়েছে। কফি বীজ যদি ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড করে থাকেন সেক্ষেত্রে আপনার ব্লেন্ডার মারাত্মক ক্ষতি হয়ে যাবে। সিদ্ধ করা আলো কখনো ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড করবেন না। সিদ্ধ আলু ব্লেন্ড করলে ব্লেন্ডারে অনেক ক্ষতি হতে পারে। সিদ্ধ আলু ব্লেন্ড করলে ব্লেন্ডারে অনেক ক্ষতি হতে পারে ব্লেন্ডারে প্রচুর পরিমাণে চাপ পড়ে ব্লেন্ডারের প্রচুর পরিমানের চাপ পড়ে জন্য কখনো ব্লেন্ডারে গরম আলু ব্লেন্ড করবেন না।
আপনি যদি কোনো শক্ত মসলা প্লেন করতে চান সে ক্ষেত্রে শক্ত মসলাগুলো ব্লেন্ড করবেন না সরাসরি। শক্ত মসলাগুলো যদি আপনি সরাসরি বলেন করতে চান সে ক্ষেত্রে আপনার ব্লেন্ডারে মারাত্মক ক্ষতি হতে পারে। শক্ত মসলাগুলো ছোট ছোট টুকরা করে তারপর ব্লেন্ড করার চেষ্টা করুন। ব্লেন্ডারে বেশি চাপ পড়বে না ও এর সঙ্গে মসলাগুলো ভালোভাবে ব্লেন্ড হবে। বরফ ও হিমালিয়া তো খাবার অতিরিক্ত ব্লেন্ড করবেন না। এগুলো আপনার ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড ভেঙে ফেলতে সাহায্য করে। তাই অবশ্যই এই কাজটি করতে যাবেন না।
তাই অবশ্যই ফ্রিজ থেকে ঠান্ডা জাতীয় খাবার গুলো কিছুক্ষণ বাইরে রেখে দিয়ে তারপর নরমাল করে ব্লেন্ড করে নিন। অতিরিক্ত বরফ যুক্ত করতে চান সে ক্ষেত্রে স্টিলের ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড করতে পারবেন। ইতিমধ্যে উপরে উল্লেখিত বিষয়গুলো আলোচনা করা হয়েছে ব্লেন্ডার ব্যবহার করার পদ্ধতি এবং নিয়ম বিস্তারিত সকল বিষয়ে আলোচনা করেছি সকলেই মনোযোগ দিয়ে পড়েন।
Rate this post
Mithu Khan

I am a blogger and educator with a passion for sharing knowledge and insights with others. I am currently studying for my honors degree in mathematics at Govt. Edward College, Pabna.

Leave a Comment