খেলাধুলা

ব্যাডমিন্টন খেলার নিয়ম

1 min read

ব্যাডমিন্টন খেলার নিয়ম

ব্যাডমিন্টন খেলার নিয়ম জানার আগে কিছু কথা। ব্যাডমিন্টন খেলার উৎপত্তি নিয়ে বহুমত থাকলেও অধিকাংশের ধারণা এ খেলার জন্ম হয়েছে ভারতের পুনাতে। সপ্তদশ শতাব্দীর প্রথম ভাগে পুনায় অবস্থিত ইংরেজ সৈন্যরা স্থানীয় লোকজনদেরকে শাটলকর্ক ও ছোট ব্যাট দিয়ে খেলতে দেখে কৌতুহলবোধ করেন। তারা স্থানীয় লোকজনের কাছ থেকে ঐ খেলা শিখে ছুটিতে ইংল্যান্ডে যেয়ে খেলাটি প্রচলন করে। ভারত কর্মরত ইংরেজ সৈন্যরা ছুটিতে বাড়ি গিয়ে ব্যাডমিন্টন নামক জায়গায় একত্র হয়ে খেলাটি শুরু করেন। সে থেকে সে জায়গার নাম অনুসারে ব্যাডমিন্টন খেলার নাম করণ হয়। পরবর্তীকালে দেশে দেশে এ খেলার প্রচলনের ফলে সকল বয়সের ও শ্রেণির নারী-পুরুষ ব্যাডমিন্টন খেলায় জড়িয়ে পড়ে।

গেম অবজেক্ট ব্যাডমিন্টন খেলার নিয়ম

ব্যাডমিন্টনের উদ্দেশ্য হল শাটলকককে জালের উপর দিয়ে আঘাত করা এবং এটিকে নির্ধারিত কোর্ট এলাকায় অবতরণ করা।যদি আপনার প্রতিপক্ষ শাটলকক ফিরিয়ে দিতে পারে তাহলে একটি সমাবেশ ঘটে। আপনি যদি এই সমাবেশে জয়লাভ করেন অর্থাৎ আপনার প্রতিপক্ষকে শাটলকক আউট বা নেটে আঘাত করতে বাধ্য করেন তাহলে আপনি একটি পয়েন্ট জিতবেন।একটি সেট জিততে আপনাকে 21 পয়েন্ট জিততে হবে যেখানে বেশিরভাগ ম্যাচ 3 সেটে সেরা হবে। যেকোনো একটি সার্ভের উপর পয়েন্ট জেতা যায়।

খেলোয়াড় ও সরঞ্জাম ব্যাডমিন্টন খেলার নিয়ম

ব্যাডমিন্টন খেলার নিয়ম এ দুটি রূপ রয়েছে, একক এবং দ্বৈত (এটি মিশ্র দ্বৈত খেলাও সম্ভব)। প্রতিটি খেলোয়াড়কে একটি স্ট্রিংড র্যাকেট (টেনিস র‍্যাকেটের মতো কিন্তু মাথাটি ছোট) এবং একটি শাটলকক ব্যবহার করার অনুমতি দেওয়া হয়। শাটলকক নীচের অংশে অর্ধ গোলাকার বল এবং উপরের দিকে ঘিরে থাকা উপাদানের মতো একটি পালক দিয়ে তৈরি। আপনি কেবলমাত্র শাটলককের নীচে আঘাত করতে পারেন এবং মাধ্যাকর্ষণ কার্যকর হওয়ার সাথে সাথে বল সাইডটি সর্বদা নীচের দিকে ফিরে আসবে। আপনি শাটলকককে মাটিতে আঘাত করার আগে বা জালের উপর দিয়ে যাওয়ার আগে একবার আঘাত করতে পারেন।পরিমাপ 6.1 মিটার চওড়া এবং 13.4 মিটার দীর্ঘ। আয়তক্ষেত্রাকার কোর্টের মাঝখানে একটি জাল রয়েছে যা 1.55 মিটারে চলে। কোর্টের প্রতিটি পাশ দিয়ে চলছে দুটি ট্রাম লাইন। ভিতরের লাইনগুলি একক ম্যাচের জন্য প্যারামিটার হিসাবে ব্যবহৃত হয় যখন বাইরের লাইনটি একটি দ্বৈত ম্যাচের জন্য ব্যবহৃত হয়।

স্কোরিং ব্যাডমিন্টন খেলার নিয়ম

একটি পয়েন্ট স্কোর করা হয় যখন আপনি সফলভাবে শাটলকককে নেটের উপর দিয়ে আঘাত করেন এবং এটি আঘাত করার আগে আপনার প্রতিপক্ষের কোর্টে অবতরণ করেন। আপনার প্রতিপক্ষ শাটলকককে জালে বা প্যারামিটারের বাইরে আঘাত করলেও একটি পয়েন্ট অর্জন করা যেতে পারে।

খেলা জয় ব্যাডমিন্টন খেলার নিয়ম

একটি খেলা জিততে হলে আপনাকে অবশ্যই প্রতিপক্ষের আগে 21 পয়েন্টে পৌঁছাতে হবে। আপনি যদি তা করেন তবে আপনি সেই সেটটি জিততে পারবেন। যদি স্কোর 20-20 এ টাই হয় তবে যে খেলোয়াড় এগিয়ে দুটি পরিষ্কার পয়েন্ট পেতে পরিচালনা করে তা নেমে আসে। যদি পয়েন্ট এখনও 29-29 এ টাই থাকে তাহলে পরবর্তী পয়েন্ট সেটের বিজয়ী নির্ধারণ করবে। সামগ্রিক গেমটি জিততে হলে আপনাকে খেলা 3 সেটের মধ্যে 2টি জিততে হবে।

ব্যাডমিন্টন খেলার নিয়ম

  1. একটি খেলা দুই (একক) বা চার (ডাবল) খেলোয়াড়ের সাথে অনুষ্ঠিত হতে পারে।
  2. একটি অফিসিয়াল ম্যাচ সঠিক কোর্টের মাত্রায় ঘরের ভিতরে খেলতে হবে। মাত্রা হল 6.1m বাই 13.4m, নেটটি কোর্টের মাঝখানে অবস্থিত এবং 1.55m এ সেট করা হয়েছে।
  3. একটি পয়েন্ট স্কোর করতে শাটলকককে অবশ্যই প্রতিপক্ষের কোর্টের প্যারামিটারের মধ্যে আঘাত করতে হবে।
  4. যদি শাটলকক জালে আঘাত করে বা ল্যান্ড আউট হয় তবে আপনার প্রতিপক্ষকে একটি পয়েন্ট দেওয়া হবে।
  5. খেলোয়াড়দের অবশ্যই তাদের প্রতিপক্ষকে নেট জুড়ে তির্যকভাবে পরিবেশন করতে হবে। পয়েন্ট জিতে গেলে সার্ভিসিং স্টেশনগুলো একপাশ থেকে অন্য দিকে চলে যায়। কোন দ্বিতীয় সার্ভ নেই তাই যদি আপনার প্রথম সার্ভ চলে যায় তাহলে আপনার প্রতিপক্ষ পয়েন্ট জিতবে।
  6. একটি সার্ভ অবশ্যই আন্ডারআর্মে এবং সার্ভারের কোমরের নীচে আঘাত করতে হবে। কোন overarm পরিবেশন অনুমোদিত.
  7. কোন খেলোয়াড় প্রথমে পরিবেশন করবে এবং প্রতিপক্ষ কোর্টের কোন দিক থেকে শুরু করতে চাইবে তা নির্ধারণ করতে প্রতিটি খেলা টস দিয়ে শুরু হবে।
  8. শাটলকক একবার ‘লাইভ’ হয়ে গেলে একজন খেলোয়াড় তাদের ইচ্ছামতো কোর্টের চারপাশে ঘুরতে পারে। খেলার জায়গার বাইরে থেকে তাদের শাটলককে আঘাত করার অনুমতি দেওয়া হয়েছে।
  9. যদি কোনো খেলোয়াড় তাদের শরীরের কোনো অংশ বা র‌্যাকেট দিয়ে নেট স্পর্শ করে তাহলে সেটাকে দোষ হিসেবে গণ্য করা হয় এবং তাদের প্রতিপক্ষ পয়েন্ট পায়।
  10. একটি দোষও বলা হয় যদি একজন খেলোয়াড় ইচ্ছাকৃতভাবে তাদের প্রতিপক্ষকে বিভ্রান্ত করে, শাটলকক র‌্যাকেটে ধরা পড়ে তারপর ছুড়ে ফেলে, শাটলকককে দুবার আঘাত করা হয় বা খেলোয়াড় ব্যাডমিন্টনের আইন লঙ্ঘন করতে থাকে।
  11. প্রতিটি খেলা একটি উচ্চ চেয়ারে একজন রেফারি দ্বারা আম্পায়ার করা হয় যিনি খেলাটিকে উপেক্ষা করেন। এছাড়াও লাইন বিচারক রয়েছেন যারা শাটলককটি ল্যান্ড করে কিনা তা পর্যবেক্ষণ করেন। রেফারির লঙ্ঘন এবং ত্রুটিগুলির উপর ওভাররাইডিং কল রয়েছে।
  12. একটি অপ্রত্যাশিত বা দুর্ঘটনাজনিত পরিস্থিতির উদ্ভব হলে রেফারি দ্বারা ডাকা হতে পারে। এর মধ্যে অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে শাটলকক বাজিতে আটকে যাওয়া, সার্ভারের বিপরীতে পরিবেশন করা, একজন খেলোয়াড় প্রস্তুত ছিল না বা এমন সিদ্ধান্ত যা কল করার খুব কাছাকাছি।
  13. গেমটিতে মাত্র দুটি বিশ্রামের সময় রয়েছে যা প্রথম খেলার পরে 90 সেকেন্ডের বিশ্রাম এবং দ্বিতীয় খেলার পরে 5 মিনিটের বিশ্রামের সময়কালের আকারে আসে।
  14. যদি কোনো খেলোয়াড়ের দ্বারা ক্রমাগত আইন ভঙ্গ করা হয় তাহলে রেফারির ক্ষমতা থাকে সেই খেলোয়াড়ের পয়েন্টে ডক করার ক্ষমতা থাকে ক্রমাগত ফাউলের ​​ফলে সেট বা এমনকি ম্যাচ বাজেয়াপ্ত হয়।

ব্যাডমিন্টন খেলার কোর্টের মাপ । ব্যাডমিন্টন খেলার নিয়ম

ব্যাডমিন্টন কোর্টের মাপ হবে আয়তাকার। একক এবং দ্বৈত ২ পাশের ক্ষেত্রেই কোর্টের মাপ দৈর্ঘ্যে হবে ৪৪ ফুট। এবং প্রস্থ (পাশ্বে) হবে ২০ ফুট। দৈর্ঘ্য ৪৪ ফুটের মাঝে এখানে তিনটি মাপ (দাগ) হবে। এর মধ্যে দুই পাশে (ডানে-বামে) হবে ১৫ ফুট করে আর মাঝখানে হবে (নেটের দাগ) ১৪ ফুট। এখন ৪ ফুটকে আবার দুইটি ভাগে ভাগ করা লাগে, নেটের দুই পাশে ৭ ফুট করে যে জায়গা থাকে তাকে বলা হয়  শর্ট সার্ভিস লাইন। এক পাশ্বে ৭ এবং বিপরীত পাশ্বে ৭ ফুট এর মাঝখানে হবে নেটের খুঁটি। কোর্টের দুই মাথা হতে ২ ফুট ৬ ইঞ্চি দূরত্বে প্রস্থ বরাবর আরও একটি করে দাগ নিতে হবে। যাকে বলা হয় লং সার্ভিস লাইন। সেন্টার লাইন হয় প্রস্থ বরাবর কোর্টর মাঝখানে। শর্ট সার্ভিস লাইন পর্যন্ত।

এবার আমি আপনাদেরকে আন্তর্জাতিক ব্যাডমিন্টন কোর্টের মাপ  সম্পর্ক আলোচনা।  জানাবো কিভাবে আনতে আন্তর্জাতিক ব্যাডমিন্টন কোর্টের মাপ  করা হয়ে থাকে এবং আন্তর্জাতিক ব্যাডমিন্টন কোর্ট তৈরি করার জন্য আমাদের কোন কোন দিকে খেয়াল রাখা জরুরি। যদি আমাদের দেশে প্রচলিত ব্যাডমিন্টন কোর্টেই খেলা হয়ে থাকে। আন্তর্জাতিক ব্যাডমিন্টন কোর্টে খেলা হয় না। তারপরও জেনে নিতে সমস্যা কোথায়।

আন্তর্জাতিক ব্যাডমিন্টন কোর্টের মাপ

আন্তর্জাতিক ব্যাডমিন্টন খেলার মাঠের পরিমাপ করার আগে আমরা এই  কোর্ট তৈরির কিছু বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে জানবো। কোর্টের মেঝে হতে হবে কাঠের। মেঝে কাঠের হওয়া সত্তেও কোন ভাবেই পিচ্ছিল হওয়া যাবে না। শাটল সাদা রঙের হয়ে থাকে এজন্য কোর্টের মেঝে গাঢ় রঙের হতে হবে। কিন্তু মেঝে গাড় রঙ্গের করতে গিয়ে চকচকে যেন না হয় সেদিকে অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে। মেঝের রং সাদা ব্যতীত হালকা রঙের দিলেও কোর্টের দাগ হতে হবে কালো রঙের, নাহলে এর রং দিতে হবে সাদা।

এবার আসি আন্তর্জাতিক ব্যাডমিন্টন কোর্টের মাপ নিয়ে

ব্যাডমিন্টন খেলা সিঙ্গেল এবং ডাবলসের মধ্যে অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। সিঙ্গেল কোর্ট-দৈর্ঘ্য হবে ১৩.৪১ মিটার (৪৪ফুট, প্রস্থ ৫.১৮ মিটার(১৭ ফুট)। ডাবলস কোর্ট-দৈর্ঘ্য হবে ১৩.৪১ মিটার (৪৪ফুট, প্রস্থ ৬.১০ মিটার(২০ ফুট)। কোর্টের দুই পাশের রেখায় দুই মধ্য বিন্দু বরাবর ব্যাডমিন্টন নেট টাঙ্গানোর জন্য দু’টি খুঁটি বসাতে হবে। এই বিন্দু থেকে উভয় দিকে প্রাপ্তরেখা বরাবর সমান্তরাল ভাবে ১.৯৮ মিটার (৬’৬”) দূর পর্যন্ত টানতে হবে। একে শর্ট সার্ভিস লাইতান বলা হয়ে থাকে। আবার উভয় প্রাপ্তরেখা হতে কোর্টের অভ্যন্তর পর্যন্ত ০.৭৬ মিটার(২’৬”) দূরে প্রান্তরেখার সমান্তরালে দুটি লাইন টানা লাগে । একে দ্বৈত খেলার জন্য লং সার্ভিস লাইন বলা হয়ে থাকে। শর্ট সার্ভিস লাইন দ্বারা বিভক্ত হওয়া দুইপাশের দু’টি কোর্টের মাঝ বরাবর পাশ্ব রেখার সমান্তরালে দু’টি লাইন টেনে ডান সার্ভিস কোর্ট এবং বাম সার্ভিস কোর্ট নামে ২টি কোর্ট তৈরি করা হয়ে থাকে। কোর্টের সকল দাগ ৪ সেন্টিমিটার চওড়া করে দিতে হবে।

আশা করছি ব্যাডমিন্টন খেলার নিয়ম সম্পর্কে আপনি অনেককিছু জানতে পেরেছেন।

Rate this post
Mithu Khan

I am a blogger and educator with a passion for sharing knowledge and insights with others. I am currently studying for my honors degree in mathematics at Govt. Edward College, Pabna.

Leave a Comment