Class 7 - ডিজিটাল প্রযুক্তি
1 min read

৭ম শ্রেণির ডিজিটাল প্রযুক্তি শিখন অভিজ্ঞতা ১ সেশন ২ উত্তর (PDF)

৭ম শ্রেণির ডিজিটাল প্রযুক্তি শিখন অভিজ্ঞতা ১ সেশন ২ উত্তর : গল্প লেখার মাধ্যমে আমাদের জানা হয়ে গেল কীভাবে ৬ক এর মাধ্যমে একটি তথ্য, গল্প বা ঘটনাকে পূর্ণাঙ্গভাবে উপস্থাপন করা যায়। আমাদের আগামীর জীবন হবে অনেক তথ্যনির্ভর। তাই তথ্যকে সঠিকভাবে বুঝতে পারা এবং উপস্থাপন করতে পারা খুবই জরুরি। আজকে আমরা ৬ক এর মাধ্যমে কোনো একটি সমস্যাকে পূর্ণাঙ্গরূপে উপস্থিত বৃতার মাধ্যমে তুলে ধরব।

দল গঠন: শ্রেণিকক্ষে আমরা দশটি দলে বিভক্ত হয়ে যাব। দশটি দল দশটি আলাদা বিষয় নিয়ে বক্তৃতা প্রস্তুত করব, দলের যেকোনো একজন বক্তৃতা শ্রেণিকক্ষে উপস্থাপন করব।

বিষয় নির্বাচন: শিক্ষক আমাদের দশটি দলকে সাম্প্রতিক সময়ের দশটি বিষয় দিয়ে দেবেন, শিক্ষকের দেওয়া বিষয়টি আমরা দলে আলোচনা করে একটি বক্তব্য তৈরি করব। শিক্ষকের দেওয়া বিষয়ের আলোচনার মাধ্যমে আমাদের বক্তৃতার বিষয় হিসেবে নিতে পারি।

৭ম শ্রেণির ডিজিটাল প্রযুক্তি শিখন অভিজ্ঞতা ১ সেশন ২ উত্তর

বক্তৃতার পাণ্ডুলিপি তৈরি: আমাদের দল বক্তার বিষয় হিসেবে যে সমস্যাটি নিয়েছি, সেটি উপস্থাপনের জন্য দলের সবার মতামত ও আলোচনার ভিত্তিতে আমরা একটি পাণ্ডুলিপি বা স্ক্রিপ্ট তৈরি করব। আমাদের মনে রাখতে হবে, সমস্যাটি সম্পর্কে পূর্ণাঙ্গ একটি চিত্র যেন আমাদের বক্তৃতায় তুলে ধরতে পারি, এ ক্ষেত্রে আমাদের পাণ্ডুলিপিতে ৬ক এর উত্তর পাওয়া যায় কি না, তা একটু যাচাই করে নেব।

উপস্থিত বক্তা শেষে দল গঠন ও সমস্যা চিহ্নিত: আমরা আমাদের আশপাশের সাম্প্রতিক কোনো সমস্যা নির্বাচন করে সে সমস্যার ‘কারণ’ এবং “কোনো আচরণ পরিবর্তন” করে সেই সমস্যা সমাধান করা যায়, তা তথ্য সংগ্রহের মাধ্যমে খুঁজে বের করব। কাজটি দলীয়ভাবে করতে হবে।

অর্থাৎ আমাদের কাজ তিনটি

  • এ একটি সাম্প্রতিক সমস্যা নির্ধারণ;
  • তথ্য সংগ্রহের মাধ্যমে ‘সেই সমস্যাটি কেন হয়” তার কারণ খুঁজে বের করা;
  • আমাদের আচরণের মধ্যে কি পরিবর্তন আনলে সে সমস্যাটি সমাধান করা সম্ভব, তা খুঁজে বের করা।

আমরা দুটি পদ্ধতিতে তথ্য খুঁজে বের করব

  • প্রথমে জরিপের মাধ্যমে আশপাশের বন্ধু, বড় ভাইবোন, অভিভাবক, শিক্ষক বিভিন্ন মানুষের কাছ থেকে তথ্য সংগ্রহ;
  • পত্র-পত্রিকা, টেলিভিশন, রেডিও, ইন্টারনেট বা অন্যান্য মাধ্যম থেকে তথ্য সংগ্রহ।

এবং বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমেও এই সম্পর্কে তথ্য পাওয়া যাবে। আমরা আমাদের উপস্থিত বক্তার বিষয়গুলো থেকেও আমাদের বিষয় নির্বাচন করতে পারি।

বিষয় নির্বাচন: বাল্যবিয়ে

আমাদের দলের নাম : সবুজ সংঘ
আমরা যে বিষয়টি নিয়ে কাজ করব : বাল্যবিয়ের কুফল প্রচার ও সচেতনতা বৃদ্ধি বিষয়ক বক্তৃতা
আমাদের দলের সদস্যদের নাম :
১. রাজু
২. মীনা
৩. রাকিব
৪. আবির
৫. নুসরাত

উপস্থিত বক্তৃতার মাধ্যমে সমস্যা নির্ধারণ

বক্তৃতার বিষয়: বাল্যবিয়ে, কারণ, কুফল, এবং এর প্রতিকার

বাল্যবিয়ে একটি সামাজিক ব্যাধী। স্কুলপড়–য়া অপ্রাপ্ত বয়সের মেয়েরা এই সামাজিক ব্যাধীর শিকার। বর্তমানে আমাদের সমাজে বাল্যবিয়ে চরম আকার ধারণ করেছে। এর ফলে খুবই অল্প বয়মে মেয়েদের ভবিষ্যৎ ক্ষতিগ্রস্থ্য হচ্ছে। তাদের স্বাস্থ্যহানি হচ্ছে। অল্প বয়সে সন্তান জন্ম দিতে গিয়ে অনেক মেয়েরা মৃত্যুবরণ করছে। আমাদের দেশে বাল্যবিয়ে আইনত নিষিদ্ধ হওয়ায় অসচেতন অভিভাবকেরা লুকিয়ে তাদের মেয়ের বিয়ে দিয়ে থাকেন। তারা বাইরে কোন জাকজমকপূর্ণ অনুষ্ঠান না করে ঘরে মধ্যে লুকিয়ে বিয়ের কাজ সম্পন্ন করে থাকেন। সাধরণত আর্থিকভাবে অসচ্ছল পরিবারের মেয়েরা বাল্যবিয়ের শিকার বেশি হয়ে থাকে। বাবা তাদের পড়ালেখা এবং ভরণ-পোষণ দিতে ব্যর্থ হওয়ায় মেয়েকে খুব দ্রুত বিয়ে দিয়ে দায়মুক্ত হতে চায়। কিন্তু আমাদের বোঝা উচিত, বাল্যবিয়ে কখনো স্থায়ী সমাধান হতে পারে না। এটা জাতির জন্য একটি অভিশাপ। তাই আমাদের সমাজের সকল শ্রেণির মানুষের কাছে বাল্যবিয়ের কুফল সম্পর্কে ধারণা পৌঁছে দিতে হবে। পাশাপাশি ঘরে ঘরে গিয়ে সচেতনতা ছড়িয়ে দিতে হবে। এতে করে কিছুটা হলেও বাল্যবিয়ে রোধ করা সম্ভব হবে।

বাল্যবিয়ে সংক্রান্ত বক্তৃতাটি থেকে ৬ক এর উত্তর

কে? স্কুল পড়ুয়া অপ্রাপ্ত বয়সের মেয়েরা
কী? বাল্যবিয়ের শিকার
কখন? খুবই অল্প বয়সে/অপ্রাপ্ত বয়সে
কোথায়? ঘরে মধ্যে
কেন? পড়ালেখা ও ভরণ-পোষণের ব্যয় বহন করতে সক্ষম না
কীভাবে? লুকিয়ে, লোকচক্ষুর আড়ালে

ANSWER SHEET

Rate this post