হিসাববিজ্ঞান শব্দটি ‘হিসাব’ ও ‘বিজ্ঞান’ শব্দ দুটির সম্মিলিত রূপ। আভিধানিক অর্থে হিসাব বলতে গণনা বুঝায়। পারিভাষিক হিসাব বলতে অর্থের দ্বারা পরিমাপযােগ্য ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের সম্পত্তি, দায় ও আয়-ব্যয় সংক্রান্ত লেনদেনের বিবরণকে বুঝায়। অন্যদিকে বিজ্ঞান বলতে কোন বিষয়ে সুসংবদ্ধ ও সুশৃংখল জ্ঞানকে বুঝায়।

সুতরাং ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের আর্থিক লেনদেন সুশৃংখলভাবে লিপিবদ্ধকরণ, সংরক্ষণ, আর্থিক ফলাফল ও অবস্থা নির্ণয় এবং বিশ্লেষণ করার সুসংবদ্ধ জ্ঞানকে হিসাববিজ্ঞান বলে

এবার আসুন খ্যাতনামা হিসাববিদ ও সংস্থা হিসাববিজ্ঞানের সংজ্ঞা কিভাবে দিয়েছেন তা নিয়ে আলােচনা করি।
A. W. Johnson এর মতে, “অর্থের মাপকাঠিতে পরিমাপযােগ্য ব্যবসায়িক লেনদেনসমূহের সংগ্রহ, সংরক্ষণ, সুসংবদ্ধ লিপিবদ্ধকরণ, আর্থিক প্রতিবেদন প্রস্তুতকরণ ও বিশ্লেষণ ও বিশদ ব্যাখ্যাকরণকে হিসাববিজ্ঞান বলে। এ সকল প্রতিবেদন থেকে প্রাপ্ত তথ্যসমূহ ব্যবসার পরিচালকগণকে ভবিষ্যত ব্যবসা পরিচালনা বিষয়ে নির্দেশ দিয়ে থাকে।”
Prof. H. Chakrabarty বলেন, “হিসাববিজ্ঞান হল স্থির ও গতিময় রীতিতে সম্পদ পরিমাপের একটি বিজ্ঞান যা অবরােহ পদ্ধতির প্রায়ােগিক ও সামাজিক নিয়মে গৃহীত তথ্য, নীতি, মতবাদ ও নিয়মাবলীর আওতায় আর্থিক লেনদেন লিপিবদ্ধকরণ, শ্ৰেণীবদ্ধকরণ, সংক্ষিপ্তকরণ ও আর্থিক অবস্থার সামগ্রিক বিচার বিশ্লেষণ করে থাকে।”
American Accounting Association (AAA)-এর সংজ্ঞাটি সর্বাধুনিক ও উল্লেখযােগ্য: “তথ্য ব্যবহারকারীগণের তথ্য নির্ভর বিচার ও সিদ্ধান্ত গ্রহণে সহায়তার জন্য যে প্রক্রিয়ায় অর্থনৈতিক তথ্য নির্ণয়, পরিমাপ ও সরবরাহ করা হয় তাকে হিসাববিজ্ঞান বলে।”

অতএব হিসাববিজ্ঞান হল এমন একটি কলাকৌশল বিশিষ্ট সামাজিক বিজ্ঞান যার সাহায্যে স্বীকৃত রীতিনীতি অনুসারে ব্যবসায়ী, অব্যবসায়ী ও রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানের সকল প্রকার আর্থিক লেনদেনসমূহকে প্রকৃতি ও তারিখ অনুসারে সুসংবদ্ধভাবে লিপিবদ্ধকরণ, সংরক্ষণ, শ্ৰেণীবদ্ধকরণ ও সংক্ষেপণ এবং বিশ্লেষণের মাধ্যমে নির্দিষ্ট সময়ের জন্য আয়-ব্যয়, লাভ-ক্ষতি, সম্পত্তি-দায় ইত্যাদির বিবরণ প্রস্তুত ও বাখ্যা করা যায় এবং ব্যবস্থাপনা, বিনিয়ােগকারী ও অন্যান্য আগ্রহী পক্ষকে প্রয়ােজনীয় তথ্য সরবরাহ করে পরিকল্পনা ও সিদ্ধান্ত গ্রহণে সাহায্য করা সম্ভব হয়।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x