প্রশ্ন-১। তড়িৎচালক শক্তি কাকে বলে?
উত্তরঃ কোনো তড়িৎ উৎস একক ধনাত্মক আধানকে বর্তনীর এক বিন্দু থেকে উৎসসহ সম্পূর্ণ বর্তনী ঘুরিয়ে আবার ঐ বিন্দুতে আনতে যে পরিমাণ কাজ সম্পন্ন করে, তাকে ঐ উৎসের তড়িৎচালক শক্তি বলে।

প্রশ্ন-২। রোধ কাকে বলে?
উত্তরঃ পরিবাহকের যে ধর্মের জন্য এর মধ্য দিয়ে তড়িৎপ্রবাহ বাধাগ্রস্থ হয় তাকে রোধ বলে।

প্রশ্ন-৩। ডায়োড কিভাবে কাজ করে?

উত্তরঃ ডায়োড রেকটিফায়ার বা একমুখিকারক হিসাবে কাজ করে। এটি তড়িৎপ্রবাহকে একমুখি করে অর্থাৎ ডায়োড দিক পরিবর্তী তড়িৎপ্রবাহকে (এসি) একমুখি তড়িৎপ্রবাহে (ডিসি) রূপান্তরিত করে।

প্রশ্ন-৪। আবেশী আধান কাকে বলে?
উত্তরঃ যে আধান কোনো অনাহিত পরিবাহকে আবেশ সৃষ্টি করে, তাকে আবেশী আধান বলে।

প্রশ্ন-৫। আবিষ্ট আধান কাকে বলে?
উত্তরঃ আবেশী আধানের প্রভাবে কোনো অনাহিত পরিবাহকে যে আধানের সঞ্চার হয়, তাকে আবিষ্ট আধান বলে।

প্রশ্ন-৬। ডোপায়ন কাকে বলে?
উত্তরঃ কোনো অর্ধপরিবাহীর (যেমন সিলিকন) সঙ্গে নিয়ন্ত্রিতভাবে অতি সামান্য খাদ যোগ করে এর পরিবাহকত্ব বৃদ্ধির উপায়কে ডোপায়ন বলে।

প্রশ্ন-৭। দূরত্ব-সময় লেখ কাকে বলে?
উত্তরঃ বস্তুর অতিক্রান্ত দূরত্ব সময়ের উপর নির্ভর করে। ছক কাগজের X-অক্ষ বরাবর সময় (t) এবং Y-অক্ষ বরাবর অতিক্রান্ত দূরত্ব (s) স্থাপন করে যে লেখ আঁকা হয় তাকে দূরত্ব-সময় লেখ বলে।

প্রশ্ন-৮। বেগ কাকে বলে?
উত্তরঃ কোন নির্দিষ্ট দিকে সময়ের সাপেক্ষে গতিশীল বস্তুর সরণের হারকে বেগ বলে।

প্রশ্ন-৯। আইসি (IC) কাকে বলে?
উত্তরঃ ইনটিগ্রেটেড বা সমন্বিত সার্কিটকে সংক্ষেপে IC বলে।

প্রশ্ন-১০। স্লাইডিং রোধ কাকে বলে?
উত্তরঃ বিভব বিভাজকে R1 ও R2 এর পরিবর্তে এমন রোধ যুক্ত করা যায় যার মান পরিবর্তন করে V1 এর মান শূন্য থেকে V2 পর্যন্ত পাওয়া সম্ভব। একে স্লাইডিং রোধ বলে।

প্রশ্ন-১১। গোলীয় দর্পণ কাকে বলে?
উত্তরঃ প্রতিফলক পৃষ্ঠটি যদি মসৃণ এবং গোলীয় হয় অর্থাৎ প্রতিফলক পৃষ্ঠটি যদি কোনো গোলকের অংশ বিশেষ হয় এবং তাতে আলোর নিয়মিত প্রতিফলন ঘটে তবে তাকে গোলীয় দর্পণ বলে।

প্রশ্ন-১২। সরল ছন্দিত গতির বৈশিষ্ট্য কী কী?
উত্তরঃ সরল ছন্দিত গতির বৈশিষ্ট্যগুলো হচ্ছে–
১. এটি একটি পর্যাবৃত্ত গতি;
২. এটি একটি সরল রৈখিক গতি;
৩. বস্তুর ত্বরণ সাম্যাবস্থান থেকে সরণের সমানুপাতিক ও বিপরীতমুখী;
৪. ত্বরণ সর্বদা সাম্যাবস্থান অভিমুখী।

প্রশ্ন-১৩। পর্যাবৃত্ত ত্বরণ কাকে বলে?
উত্তরঃ যে ত্বরণ সব সময় একটি নির্দিষ্ট বিন্দু অভিমুখী হয় এবং নির্দিষ্ট বিন্দু থেকে সরণের সমানুপাতিক হয় তাকে পর্যাবৃত্ত ত্বরণ বলে।

প্রশ্ন-১৪। কার্লের ভৌত তাৎপর্য কি?
উত্তরঃ কার্ল একটি ভেক্টর রাশি। এর মান ঐ ভেক্টর ক্ষেত্রে একক ক্ষেত্রের জন্য সর্বাধিক রেখা ইন্টিগ্রালের সমান। ভেক্টরটির দিক ঐ ক্ষেত্রের উপর অঙ্কিত লম্ব বরাবর ক্রিয়া করে। কোনো ভেক্টর ক্ষেত্রের কার্ল এর নতিমাত্রা শূন্য।

প্রশ্ন-১৫। চলন্ত গাড়ি থেকে নামা বিপদজনক কেন?
উত্তরঃ চলন্ত গাড়ি থেকে নামার সময় আমাদের দেহের উপরের অংশ গতি জড়তার কারণে সামনের দিকে এগিয়ে যেতে চায় অন্যদিকে পা মাটিকে স্পর্শ করে থাকায় স্থিতি জড়তার কারণে দেহের নিচের অংশ স্থির থাকতে চায়। ফলশ্রুতিতে দেহের ভারসাম্য হারিয়ে রাস্তায় পড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। এজন্যই চলন্ত গাড়ি থেকে নামা বিপদজনক।

প্রশ্ন-১৬। স্ফেরোমিটারে যান্ত্রিক ত্রুটি কিভাবে হতে পারে?
উত্তরঃ স্ফেরোমিটারের তিন পা এবং স্ক্রু-শীর্ষ যখন একটি সমতলকে স্পর্শ করে তখন বৃত্তাকার স্কেলের শূন্য দাগ যদি রৈখিক স্কেলের শূন্য দাগের সাথে মিলে না যায় তাহলে যন্ত্রে ত্রুটি রয়েছে। এই ত্রুটিই যান্ত্রিক ত্রুটি।

প্রশ্ন-১৭। বর্ষার দিন অপেক্ষা শীতকালে ভিজা কাপড় তাড়াতাড়ি শুকায় কেন?
উত্তরঃ বর্ষার দিনে বায়ুমণ্ডলে জলীয় বাষ্প দ্বারা সম্পৃক্ত থাকে। ফলে বাতাস অধিক পরিমাণে জলীয় বাষ্প ধারণ করতে পারে না। শীতকালের বাতাস শুকনা থাকে। বাতাস জলীয় বাষ্পহীন। এই বাতাস ভিজা থেকে দ্রুত জলীয় বাষ্পে শোষণ করে নিয়ে সম্পৃক্ত হতে চায়। ফলে শীতের দিনে ভিজা কাপড় তাড়াতাড়ি শুকায়।

প্রশ্ন-১৮। বল-বেয়ারিং (Ball bearing) কি?
উত্তরঃ বল-বেয়ারিং হলো ক্ষুদ্র, মসৃণ ধাতব বল। এগুলো সাধারণত ইস্পাতের তৈরি। বল-বেয়ারিং কোনো যন্ত্রের গতিশীল অংশগুলোর মধ্যবর্তী স্থানে বসানো থাকে। বল-বেয়ারিং ব্যবহারের মাধ্যমে বিভিন্ন তরলের মধ্যবর্তী ঘর্ষণকে কমানো যায়।

প্রশ্ন-১৯। কোষের সমবায় কাকে বলে?
উত্তরঃ শক্তিশালী তড়িৎ প্রবাহ পাওয়ার জন্য অনেক সময় বর্তনীতে একাধিক কোষকে একত্রে ব্যবহার করার প্রয়োজন হয়। একাধিক কোষকে একত্রে ব্যবহার করাকে কোষের সমবায় বলে। রোধ ও ধারকের মতো কোষের সমবায়ও দুই প্রকার হতে পারে, যথা: শ্রেণি সমবায় ও সমান্তরাল সমবায়।

প্রশ্ন-২০। একটি পরিবাহীর রেজিস্ট্যান্স কী কী বিষয়ের উপর নির্ভর করে?
উত্তরঃ একটি পরিবাহীর রেজিস্ট্যান্স দৈর্ঘ্য, প্রস্থচ্ছেদ, তাপমাত্রা এবং উপাদানের উপর নির্ভর করে

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x