ক্যারিয়ার গাইডেন্স বলতে কী বোঝায়?

উত্তর : ক্যারিয়ার গাইডেন্স বলতে এমন বিশেষ ধরণের সহায়ক কার্যক্রমকে বোঝায়, যার মাধ্যমে একজন শিক্ষার্থী বা ব্যক্তি তাঁর স্বীয় মেধা (Talent), ঝোঁক (Aptitude), সামর্থ (Strength), যোগ্যতা (Qualification) ও পেশাগত দক্ষতার (Professional Expertise) সর্বোচ্চ ব্যবহার করতে শিখবে এবং সামাজিক প্রতিষ্ঠা ও স্বীকৃতি অর্জন করতে সক্ষম হবে। প্রতিটি ব্যক্তিমাত্রই নিজস্ব মেধা, ঝোঁক, বৈশিষ্ট্য ও যোগ্যতার অধিকারী। স্বীয় প্রতিভাকে জানতে পারা এবং নিজস্ব সামর্থের সর্বোত্তম ব্যবহার করতে পারা প্রতিটি ব্যক্তির জীবনে সাফল্য লাভের জন্য একান্ত প্রয়োজন। একাজে ক্যারিয়ার গাইডেন্স একটি কার্যকর ও সহায়ক মাধ্যম হিসেবে বিশ্বব্যাপী গন্য হয়ে আসছে।

পেশা কাকে বলে?

উত্তরঃ জীবিকা অর্জনের অভিপ্রায়ে যে প্রচেষ্টার আশ্রয় নেয়া হয় তাকে পেশা বলে।

বৃত্তি বা পেশার মধ্যে কোনো পার্থক্য আছে কী?

উত্তরঃ যদিও বৃত্তি বা পেশা শব্দ দু’টি কখনো কখনো একই অর্থে ব্যবহার করা হয় তথাপি এদের মধ্যে কিছুটা পার্থক্য পরিলক্ষিত হয়। পেশার ক্ষেত্রে প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ দরকার হয়, কিন্তু বৃত্তির ক্ষেত্রে এটির দরকার হয় না। যেমন : ভবন স্থপতিকে বলা হয় পেশা আর ভবন নির্মাণ শ্রমিককে বলা হয় বৃত্তি।

নিজের সামর্থ্য বলতে কী বোঝায়?

উত্তরঃ যে উদ্যোক্তা সুনির্দিষ্ট নীতিমালা অনুসরণ করে তা ব্যবসায় পরিচালনা করেন, অন্যের সাহায্য সহযোগিতা প্রয়োজন হয় না এবং ব্যবসায়ের ঝুঁকি তিনি নিজেই বহন করেন সেটিই নিজের সামর্থ্য।

SWOT কী?

উত্তরঃ SWOT হলো S = Strength, W = weakness, O = Opportunities, T = Threat.

মানুষ কেন বৃত্তি গ্রহণ করে?

উত্তরঃ জীবিকা অর্জনের জন্য মানুষ বৃত্তি গ্রহণ করে। বৃত্তি হলো এমন একটি স্বীকৃত কর্মকাণ্ড যার বিনিময়ে জীবিকা অর্জন সম্ভব হয়। সে বৃত্তির মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করে তা দৈনন্দিন চাহিদা পূরণ করে। তাই জীবনে বেঁচে থাকার তাগিদে মানুষ মাত্রই কোনো না কোনো বৃত্তির আশ্রয় নেয়।

ক্যারিয়ার শিক্ষার প্রয়োজনীয়তা কী?

উত্তরঃ উন্নত জীবন গঠনে ক্যারিয়ার শিক্ষার প্রয়োজনীয়তা অপরিসীম। ক্যারিয়ারকে সুন্দর ও সার্থকরূপে গড়ে তুলতে হলে ক্যারিয়ার শিক্ষা পাঠে নিম্নলিখিত বিষয়গুলো সম্পর্কে সচেতন হতে হবে।

১। সিদ্ধান্ত গ্রহণ;

২। শেখার জন্য অনুপ্রেরণা;

৩। সমাজ জীবনে কর্ম ও পেশার চাহিদা;

৪। পরিবর্তনশীল কাজের ধরণ সম্পর্কে ধারণা;

৫। উচ্চতর জ্ঞান ও দক্ষতার বিকাশ;

৬। পরিকল্পনা;

৭। সংবেদনশীলতা তৈরি;

পণ্য বাজারজাতকরণ প্রক্রিয়া ব্যাখ্যা কর।

উত্তরঃ বাজারজাতকরণের অর্থ হলো সঠিক সময়ে সঠিক মূল্য যথাসময়ে বাজারে পণ্য সরবরাহ করা।

পণ্য শুধু উৎপাদন করলেই হবে না তা বিক্রির ব্যবস্থাও করতে হবে। এর জন্য ব্যাপকভাবে বিজ্ঞাপন ও প্রচারের ব্যবস্থা করতে হবে। প্রচার ব্যতীত কোনো পণ্যের নতুন বাজার সৃষ্টি করা সম্ভব নয়। সুপরিকল্পিতভাবে বাজারজাতকরণ প্রক্রিয়া ব্যবসায়ে সফলতার চাবিকাঠি

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x