পড়াশোনা
1 min read

জারণ সংখ্যা কাকে বলে? জারণ সংখ্যা নির্ণয়ের পদ্ধতি কি?

Updated On :

যৌগ গঠনের সময় কোনো মৌল যত সংখ্যক ইলেকট্রন বর্জন করে ধনাত্মক আয়ন উৎপন্ন করে অথবা যত সংখ্যক ইলেকট্রন গ্রহণ করে ঋণাত্মক আয়ন উৎপন্ন করে তাকে ঐ মৌলের জারণ সংখ্যা (Oxidation Number) বলে। অর্থাৎ আয়নে সৃষ্ট চার্জের সংখ্যাই ঐ মৌলের জারণ সংখ্যা। যেমন : Na+, Al³⁺, Cl, O2– এর জারণ সংখ্যা যথাক্রমে +1, +3, -1, -2.

জারণ সংখ্যা ধনাত্মক, ঋণাত্মক এমনকি ভগ্নাংশ হতে পারে।

জারণ সংখ্যা নির্ণয়ের পদ্ধতি

জারণ সংখ্যা নির্ণয়ের পদ্ধতি নিচে দেওয়া হলো :
১. ধাতুসমূহের জারণ সংখ্যা ধনাত্মক এবং অধাতুসমূহের জারণ সংখ্যা ঋণাত্মক হয়। যেমন : NaCl এ Na এর জারণ সংখ্যা + 1 এবং Cl এর জারণ সংখ্যা – 1।

২. নিরপেক্ষ পরমাণু বা মুক্ত মৌলের জারণ সংখ্যা শূন্য হয়। যেমন : Fe, H2 যৌগে Fe এর জারণ সংখ্যা 0। আবার H এর জারণ সংখ্যাও 0।

জারণ সংখ্যার ব্যবহার
জারণ সংখ্যার প্রধান ব্যবহারসমূহ নিচে দেওয়া হলো:

  • আয়নিক যৌগের সংযুক্তি ও সংকেত নির্ণয়ে জারণ সংখ্যা ব্যবহৃত হয়।
  • অজৈব যৌগের নামকরণে জারণ সংখ্যার ব্যবহার ব্যাপক। এক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট মৌলের জারণ সংখ্যা রোমান সংখ্যা দ্বারা মৌলের বা আয়নের নামের পর ব্র্যাকেটসহ লেখা হয়।
  • জারণ সংখ্যার সাহায্যে জারণ-বিজারণ বিক্রিয়ায় জারক ও বিজারকের মোলার অনুপাত নির্ণয় করা যায়।
  • জারণ-বিজারণ বিক্রিয়ার সমীকরণের সমতাকরণের ক্ষেত্রেও জারণ সংখ্যার ব্যাপক ব্যবহার দেখা যায়।

শেষ কথা:
আশা করি আপনাদের এই আর্টিকেলটি পছন্দ হয়েছে। আমি সর্বদা চেষ্টা করি যেন আপনারা সঠিক তথ্যটি খুজে পান। যদি আপনাদের এই “জারণ সংখ্যা কাকে বলে?” আর্টিকেলটি পছন্দ হয়ে থাকলে, অবশ্যই ৫ স্টার রেটিং দিবেন।

4/5 - (74 votes)