সমাজকর্ম

সমাজকর্মের বৈশিষ্ট্য ১৮টি আলোচনাসহ ব্যাখ্যা

0 min read

সমাজকর্ম বলতে এমন একটি প্রাতিষ্ঠানিক ও পেশাদার সমাজসেবামূলক কর্মতৎপরতাকে বুঝায়, যা ব্যক্তি, দল, সমষ্টিকে এমনভাবে সাহায্য করে, যাতে তারা নিজেরাই নিজেদের সম্পদ, সামর্থ্য ও বুদ্ধিমত্তার দ্বারা নিজেদের সমস্যার সমাধান করতে সক্ষম হয় । সমাজের সকল মানুষের সার্বিক কল্যাণ নিশ্চিত করাই সমাজকর্মের মূল বৈশিষ্ট্য।

সমাজকর্মের ১৮টি বৈশিষ্ট্যসমূহ

নিম্নে বাংলাদেশে সমাজকর্মের বৈশিষ্ট্যসমূহ আলোচনা করা হলো।

  • ১। জনগণের মৌল মানবিক চাহিদা পূরণ করা।
  • ২। দারিদ্র্য বিমোচন ও মানবসম্পদ উন্নয়ন।
  • ৩। এতিম, অসহায় ও দরিদ্র শিশুদের কল্যাণ সাধন করা।
  • ৪। অপরাধ সংশোধন।
  • ৫। গ্রামীণ দরিদ্র জনগোষ্ঠীর উন্নয়ন সাধন।
  • ৬। মানুষের আর্থসামাজিক উন্নয়ন সাধন করা।
  • ৭। অসহায় জনগোষ্ঠীর উন্নয়ন সাধনে সম্পদশালী জনগোষ্ঠীকে উদ্বুদ্ধ করা।
  • ৮। প্রতিবন্ধীদের কল্যাণ সাধন করা।
  • ৯। রোগীদের কল্যাণ করা।
  • ১০। পতিতাবৃত্তি প্রতিরোধ করা।
  • ১১। দক্ষ সমাজকর্মী তৈরি করা।
  • ১২। সচেতন করে তোলা
  • ১৩। সামাজিক সমস্যাগুলোর প্রতিকার ও প্রতিরোধ করা।
  • ১৪। সুপ্ত প্রতিভার বিকাশ সাধন করা।
  • ১৫। পরিবর্তিত আর্থসামাজিক অবস্থার সাথে মানুষকে যথাযথভাবে খাপখাওয়াতে সাহায্য করা।
  • ১৬। পরিকল্পিত সামাজিক পরিবর্তন আনয়ন।
  • ১৭। জনগণের জীবনযাত্রার মান উন্নয়ন করা।
  • ১৮। জনগণকে সংগঠিত করা।

বাংলাদেশের প্রত্যেকটি মানুষের সার্বিক কল্যাণ নিশ্চিত করাই সমাজকর্মের মূল লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য। এ লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য অর্জনের জন্য সমাজকর্ম বিভিন্ন সামাজিক সমস্যার সমাধান এবং উন্নয়নমূলক কর্মসূচি পরিচালনা করে যাচ্ছে।

Rate this post
Mithu Khan

I am a blogger and educator with a passion for sharing knowledge and insights with others. I am currently studying for my honors degree in mathematics at Govt. Edward College, Pabna.

x