Health
1 min read

পিরিয়ডের সময় স্বামীর করনীয়

পিরিয়ডের সময় স্বামীর করনীয়

পিরিয়ডের সময় স্বামীর করনীয়

আসসালামু আলাইকুম আজকে আলোচনা পিরিয়ডের সময় স্বামীর করনীয় কি সে সম্পর্কে মহান আল্লাহতালার বিধানে প্রত্যেকটি মহিলার প্রতি মাসে নির্দিষ্ট সময়ে হয়ে থাকে। পিরিয়ড হওয়ার ব্যাপারে কিছু সর্তকতা অবলম্বন সম্পর্কে জানিয়ে দেবো সেসব বিষয়ে জেনে নিন। মহিলাদের পিরিয়ড মহিলাদেরকে প্রতিমাসে গর্ভধারণের জন্য প্রস্তুত করে।

মহিলাদের পিরিয়ড হওয়ার আগে থেকে চলাকালীন অবস্থায় বিভিন্ন ধরনের শারীরিক সমস্যা বা পরিবর্তন দেখা দেয় । পিরিয়ড হওয়ার নিয়ম কিছু কিছু মহিলাদের তিনদিন থাকে আবার কিছু কিছু মহিলাদের এক সপ্তাহ থাকে। পিরিয়ড চলাকালীন অবস্থায় স্বামী স্ত্রীর শারীরিক মেলামেশা করার কিছু নিয়ম অবলম্বন করে শারীরিক মিলন করতে হয় এসব নিয়ে অনেকের মনে অনেক ধরনের প্রশ্ন থাকে ।

সে সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব। কিছু কিছু মহিলারা জানতে চান পিরিয়ড চলাকালীন অবস্থায় স্বামী স্ত্রীর মেলামেশা করা সমস্যা কিনা সে সম্পর্কে। পিরিয়ড চলাকালীন অবস্থায় শারীরিক মেলামেশা করা মহান আল্লাহতালার দান হিসেবে একদম নিষেধ।

পিরিয়ডের সময় স্বামীর করনীয় জানতে চাইলে সবাই আপনাকে বলবে যে,  পিরিয়ড চলাকালীন  অবস্থায় স্বামী-স্ত্রী  মেলামেশা করলে হারাম হবে। পিরিয়ড চলাকালীন অবস্থায় স্বামী স্ত্রীর মেলামেশা করা একদমই উচিত না। তাই পিরিয়ড চলাকালীন অবস্থায় এসব থেকে দূরে থাকুন।

পিরিয়ড চলাকালীন অবস্থায় যদি শারীরিক মেলামেশা করেন সেক্ষেত্রে আপনার মারাত্মক ক্ষতি হতে পারে। অবশ্যই এই সময় অবশ্যই করণীয় সম্পর্কে জানতে হবে। অনেক বড় বিপদ হয়ে দাঁড়াবে তাই এসব থেকে দূরে থাকুন।

আপনি যদি পিরিয়ড চলাকালীন অবস্থায় শারীরিক সম্পর্কে আবদ্ধ হন সেক্ষেত্রে আপনার ইনফেকশনের সমস্যা দেখা দিতে পারে। ইনফেকশন থেকে দূরে থাকার জন্য অবশ্যই এই কাজ থেকে বিরত থাকুন।  এমন কোন হাদিস নেই যে পিরিয়ড চলাকালীন অবস্থায় মেলামেশা করা যাবে। পিরিয়ড চলাকালীন অবস্থায় শারীরিক মেলামেশা করা একদমই নিষেধ।

আপনি যদি এই পিরিয়ড চলাকালীন অবস্থায় শারীরিক মেলামেশা করে থাকেন সেক্ষেত্রে আপনার শরীর থেকে প্রবাহিত রক্ত পেটের অন্য কোন অংশে ঢুকে যেতে পারে। ওই সময় যদি আপনার শরীরের রক্ত পেটের অন্য অংশ ঢুকে যায় এবং জমাট বেঁধে থাকে সে ক্ষেত্রে মারাত্মক সমস্যা দেখা দেবে।

পিরিয়ড চলাকালীন অবস্থায় খুবই সর্তকতা অবলম্বন করে চলাফেরা করতে হয় তা না হলে যৌনিতে ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। একটু ভুলের জন্য আপনার মারাত্মক ক্ষতি হতে পারে। আর একটু ভুলের জন্য আপনার প্রচন্ড পেটে ব্যথা করতে পারে।

এরকম সমস্যার কারণে আপনার জরায়ুর মুখ ঘুরে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। পরবর্তীতে আপনার মারাত্মক সমস্যা হবে। আজকের এই আলোচনায় আমরা আলোচনা করতে চলাকালীন অবস্থায় স্বামীর করণীয় সম্পর্কে। আপনি যদি পিরিয়ড চলাকালীন অবস্থায় স্বামীর করণীয় গুলো জেনে রাখতে পারেন তাহলে অনেক ভালো। এই সমস্যাগুলো যদি ঘটিয়ে থাকেন সেক্ষেত্রে আপনার সন্তান না হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

অবশ্যই পিরিয়ড চলাকালীন অবস্থায় খুবই সর্তকতা অবলম্বন করে আপনি চলাফেরা করুন।

পিরিয়ড বা মাসিক কিঃ

প্রতি চন্দ্র মাস পরপর হরমোনের প্রভাবে পরিণত মেয়েদের জরায়ু চক্রাকারে যে পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে যায় এবং রক্ত ও জরায়ু নিঃসৃত অংশ যোনিপথে বের হয়ে আসে, তাকেই পিরিয়ড বা ঋতুচক্র বলে। মা‌সি‌ক চলাকালীন পেটব্যথা, পিঠব্যথা ও বমি বমি ভাব হতে পারে। পিরিয়ডে ভালো মানের ন্যাপকিন ব্যবহার করা জরুরি। এ ছাড়া কোনোভাবেই একই কাপড় পরিষ্কার করে একাধিকবার ব্যবহার করা যাবে না। পিরিয়ডের সময় শরীর থেকে যে রক্ত প্রবাহিত হয়, তার মধ্যে ব্যাকটেরিয়া থাকে। পিরিয়ডের সময় স্বামীর করনীয় হচ্ছে মেলামেশা থেকে বিরত থাকা।

নিচে উল্লেখিত বিষয়গুলো জেনে নিন পিরিয়ড চলাকালীন অবস্থায় শারীরিক সম্পর্ক করলে কি ধরনের বিপদ হতে পারেঃ

পিরিয়ড চলাকালীন অবস্থায় শারীরিক মেলামেশা করলে ইনফেকশন হতে পারেঃ

 ইনফেকশনঃ

পিরিয়ডের সময় জরায়ু ও  যৌনির অম্লভাব থাকেনা। এটি খুব সহজে রোগ জীবাণু দ্বারা আক্রান্ত হতে পারে। পিরিয়ড চলাকালীন অবস্থায় আপনি যদি শারীরিক সম্পর্ক আবদ্ধ হয়ে থাকেন সেক্ষেত্রে আপনার ইনফেকশনের সমস্যা হবে নিশ্চিত। পিরিয়ড চলাকালীন অবস্থায় মেলামেশা করা বন্ধ করে ফেলুন এবং ইনফেকশন থেকে দূরে থাকুন। ইনফেকশন থেকে বাঁচার জন্য পিরিয়ডের সময় স্বামীর করনীয় হচ্ছে মেলামেশা থেকে বিরত থাকা।

জরায়ুতে ব্যথাঃ

পিরিয়ড বা মাসিক চলাকালীন অবস্থায় আপনি যদি শারীরিক সম্পর্ক আবদ্ধ হন সেক্ষেত্রে আপনার মারাত্মক সমস্যা হতে পারে। যেমন জরায়ুতে প্রচন্ড ব্যাথা হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তাই অবশ্যই পিরিয়ড চলাকালীন অবস্থায় মেলামেশা থেকে দূরে থাকুন আপনার  জরায়ু কে নিয়ন্ত্রনে রাখুন।

পেটের ভেতর রক্ত ঢুকে যেতে পারেঃ

মাসিক চলাকালীন অবস্থায় যদি আপনি শারীরিক সম্পর্ক করে থাকেন সেক্ষেত্রে আপনার মারাত্মক সমস্যা হতে পারে। পিরিয়ডের  যে রক্ত শরীরের ভেতর থেকে প্রবাহিত হয়। পিরিয়ডের রক্ত অন্য কোন অংশে ঢুকে জমাট বেঁধে যেতে পারে। যার ফলে আপনার অনেক বড় রোগ হওয়ার সম্ভাবনা হয়েছে। আপনি মারাত্মক বিপদে পড়তে যাচ্ছেন। তাই অবশ্যই পিরিয়ড চলাকালীন অবস্থায় শারীরিক সম্পর্ক আবদ্ধ হবেন না।

রক্তপাত বেশি হতে পারেঃ

প্রতিমাসে মহিলাদের মাসিক বা পিরিয়ড এ যে পরিমাণ রক্ত যায় সে পরিমান রক্ত আমাদের জন্য অতিরিক্ত। তবে যদি শারীরিক মেলামেশা করে ফেলেন সেক্ষেত্রে আপনার মারাত্মক সমস্যা হতে পারে। পিরিয়ডের রক্ত যে পরিমাণ চায় তার থেকে ডাবল রক্ত যাওয়ার সম্ভাবনা  রয়েছে। তাই আমি বলবো পিরিয়ড চলাকালীন অবস্থায় যদি আপনি শারীরিক মেলামেশা করতে চান সে ক্ষেত্রে রক্তপাত হবে নিশ্চিত। তাই মাসিক হওয়া কালীন অবস্থায় কখনো ভুলেও মেলামেশা করতে যাবেন না।

 চিকিৎসকের পরামর্শ নিনঃ

পিরিয়ডের সময় স্বামীর করনীয় কাজগুলোর মধ্যে মাসিক চলাকালীন অবস্থায় যদি কোন মহিলার সমস্যা দেখা দেয় সেক্ষেত্রে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে। কিছু কিছু মহিলার রয়েছেন যারা  জরায়ু  নিয়ে  অনেক  সমস্যাস রয়েছেন তাদেরকে আমি বলব পিরিয়ড হওয়ার সময় অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী চলুন। আপনি যদি জরায়ু নিয়ে ভুগে থাকেন সেক্ষেত্রে পিরিয়ড হওয়ার সময় অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে আপনি চিকিৎসা করান। তাই প্রত্যেক মহিলার উচিত নিজের প্রতি নিজের যত্ন নেওয়া।

প্রত্যেকটি মহিলাদের পিরিয়ড চলাকালীন অবস্থায় নানান ধরনের অজুহাত আবেগীয় অনেক কথাবার্তা থাকে সেই কথাগুলো আশেপাশে যারা রয়েছেন তারা একটু মনোযোগ দিয়ে বোঝার চেষ্টা করুন। পিরিয়ড চলাকালীন অবস্থায় প্রত্যেকটি মহিলার অনেক কষ্ট হয়ে যায়। তাই এই সময় একজন না একজন তার পাশে থাকতে হয়।

পিরিয়ড হচ্ছে মহিলাদের গর্ব। মাসিক প্রতিমাসে হওয়ার কারণ হল আপনার গর্ভে বাচ্চা হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। প্রত্যেকটি মহিলাদের এই নিয়ম মেনে চলতে হয়। পিরিয়ড চলাকালীন অবস্থায় প্রত্যেকটি মহিলাদের খুবই পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকতে হবে। পিরিয়ড চলাকালীন অবস্থায় মহিলাদের একটু বিশ্রামের প্রয়োজন।

পিরিয়ডের সময় স্বামীর করনীয় কিছু কাজ রয়েছে যেমন,  ভালো খাবার খাওয়ার দরকার প্রচুর পরিমাণে পানি খাওয়া দরকার ভিটামিন জাতীয় খাবার খাওয়া দরকার ইত্যাদি। মহিলাদের পিরিয়ড চলাকালীন অবস্থায় প্রচুর পরিমাণে রক্ত ক্ষয় হয় এজন্য তাদেরকে পুষ্টিকর খাবার খাওয়া। আজকে রাতে আমরা উপরে উল্লেখিত বিষয়গুলো আলোচনা করেছি । প্রত্যেক স্বামীদেরকে বলবো  স্ত্রীদের পিরিয়ড চলাকালীন অবস্থায় একটু মনোযোগ দিয়ে তাদের কথা গুলো শুনুন তারা কি বলছে।

একটু সর্তকতা অবলম্বন যদি করতে পারেন তাহলে আপনি অনেক গুলো থেকে বেছে নিতে পারেন। আজকে আমরা আলোচনা করেছি পিরিয়ডের সময় স্বামীর করণীয় সম্পর্কে। পিরিয়ডের সময় স্বামীর করনীয় কি সে সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে সকলের মনোযোগ দিয়ে আমাদের এই পোস্ট পড়ে তারপর। পিরিয়ডের সময় স্বামীর করণীয় গুলো কি কি সেগুলো মেনে চলার চেষ্টা করুন।

Rate this post