Islamic

মেসওয়াক এর গুরুত্ব, ফজিলত ও পদ্ধতি।

1 min read

মেসওয়াক, টুথব্রাশ গাছ নামেও পরিচিত, এটি একটি শক্তিশালী এবং প্রাকৃতিক প্রতিকার যা বহু শতাব্দী ধরে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। এটি সাম্প্রতিক বছরগুলিতে ক্রমবর্ধমান জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে এর অসংখ্য উপকারিতা এবং গুণাবলীর কারণে, বিশেষ করে মৌখিক স্বাস্থ্যবিধিতে। মেসওয়াকের গুরুত্ব রয়েছে কার্যকরভাবে দাঁত পরিষ্কার করার, শ্বাস সতেজ করার এবং মাড়ির রোগ প্রতিরোধ করার ক্ষমতার মধ্যে। এই প্রাকৃতিক টুথব্রাশটিতে অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা স্বাস্থ্যকর দাঁত এবং মাড়ি বজায় রাখতে সহায়তা করে। মেসওয়াকের গুণাবলী মৌখিক স্বাস্থ্যের বাইরেও প্রসারিত, কারণ এটি ডায়াবেটিস এবং হৃদরোগের মতো দীর্ঘস্থায়ী রোগের ঝুঁকি হ্রাস করে সামগ্রিক স্বাস্থ্যের উপর ইতিবাচক প্রভাব ফেলে। মৌখিক স্বাস্থ্যবিধির জন্য মেসওয়াক ব্যবহার করার বিভিন্ন পদ্ধতি রয়েছে, যেমন পুরো কাঠি চিবানো বা পানিতে মেশানো গুঁড়ো মেসওয়াক ব্যবহার করা। নিয়মিত ব্রাশ করা এবং ফ্লস করার মতো অন্যান্য দাঁতের স্বাস্থ্যবিধি অনুশীলনের সাথে নিয়মিত মেসওয়াক ব্যবহার করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। মেসওয়াকের প্রাকৃতিক এবং ভেষজ গুণাবলী এটিকে বাণিজ্যিক টুথপেস্টের চেয়ে অনেক ভালো পছন্দ করে তোলে কারণ এটি বিষাক্ত রাসায়নিকের ব্যবহার এড়ায়। অতএব, এই প্রাকৃতিক টুথব্রাশটিকে একজনের জীবনধারায় অন্তর্ভুক্ত করে, রাসায়নিক-ভিত্তিক পণ্যগুলির ক্ষতিকারক প্রভাবগুলি হ্রাস করার সাথে সাথে কেউ এর অনেক সুবিধা উপভোগ করতে পারে। পরিশেষে, মেসওয়াক ভাল মৌখিক স্বাস্থ্য, সামগ্রিক সুস্থতা এবং আরও টেকসই, নৈতিক জীবনধারা প্রচার করে।

 প্রসংগে হযরত আবু উমামা (রা) কর্তৃক বর্ণিত হাদীসটি  উল্লেখযোগ্য, তিনি বলেনঃ

عن رسول الله صلى الله عليه وسلم قال: «ما جاءني جبريل قط إلا أمرني بالسواك حتى لقد خشيت أن أحفي مقدم فمي»

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন, এমনটি কখনো হয়নি যে, জিবরাইল (আ) আমার নিকট এসেছেন আর আমাকে মেসওয়াকের আদেশ দেননি। এতে আমার আশংকা হচ্ছিল যে, (মেসওয়াকের কারণে) আমার মুখের অগ্রভাগ ছিলে না ফেলি।(আল মুযামুল কাবীর লিত তবারানী, হাদীস নং৭৮৪৭, মুসনাদে আহমদ, হাদীস নং ২২২৬৯)

অন্য হাদিসে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন,

لولا أن أشق على أمتي أو على الناس لأمرتهم بالسواك مع كل صلاة»

আমি যদি উম্মতের উপর (কষ্ট হবার) আশংকা না করতাম তাহলে প্রত্যেক নামাজেই মেসওয়াক করার আদেশ দিতাম। (বুখারী শরীফ, হাদীস নং৮৮৭, মুসলিম শরীফ, হাদীস নং২৫২)

অন্য এক হাদীসে এসেছে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন,

قال رسول الله صلى الله عليه وسلم: «فضل الصلاة التي يستاك لها على الصلاة التي لا يستاك لها سبعين ضعفا» تفرد به يحيى بن معاوية بن يحيى الصدفي ويقال إن ابن إسحاق أخذه منه

মেসওয়াক করে যে নামাজ আদায় করা হয়, সে নামাজে মেসওয়াকবিহীন নামাজের তুলনায় সত্তরগুন বেশী ফযীলত রয়েছে।(শুয়াবুল ঈমান, বাইহাকী, হাদীস নং ২৫১৯)

হাদীস শরীফে এসেছে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন-

السِّوَاكُ مَطْهَرَةٌ لِلْفَمِ، مَرْضَاةٌ لِلرَّبِّ.

মিসওয়াক মুখের পবিত্রতা, রবের সন্তুষ্টির মাধ্যম। -সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদীস ২৮৯; সহীহ ইবনে খুযাইমা, হাদীস ১৩৫; সহীহ ইবনে হিব্বান, হাদীস ১০৬৭

মিসওয়াক ইসলামের উন্নত রুচি ও পরিচ্ছন্নতার পরিচায়ক। মুমিনের ভেতরটা যেমন স্বচ্ছ ও কলুষতামুক্ত থাকবে তেমনি তার বাহিরও হবে সুন্দর ও পরিপাটি, পবিত্র ও পরিচ্ছন্ন। সবধরনের কদর্যতা ও মন্দ স্বভাবমুক্ত।

পাক-পবিত্রতা ও পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা মুমিনের অনন্য ও স্বভাবজাত রুচি-বৈশিষ্ট্যের অপরিহার্য অনুষঙ্গ। হাদীস শরীফে এসেছে-

عَشْرٌ مِنَ الْفِطْرَةِ: قَصُّ الشَّارِبِ، وَإِعْفَاءُ اللِّحْيَةِ، وَالسِّوَاكُ…

দশটি বিষয় স্বভাবজাত বৈশিষ্ট্যের অন্তর্ভুক্ত। মোচ খাটো করা, দাড়ি লম্বা রাখা, মিসওয়াক করা…। -সহীহ মুসলিম, হাদীস ২৬১)

ওয়াসিলা ইবনুল আসকা রা. হতে বর্ণিত তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন-

أُمِرْتُ بِالسِّوَاكِ حَتَّى خَشِيتُ أَنْ يُكْتَبَ عَلَيَّ.

আমাকে মিসওয়াকের আদেশ দেয়া হয়েছে। আমার আশঙ্কা হতে লাগল,  না জানি তা আমার উপর ফরয করে দেয়া হয়। -মুসনাদে আহমাদ, হাদীস ১৬০০৭

অপর বর্ণনায় তিনি বলেন-

لَقَدْ أُمِرْتُ بِالسِّوَاكِ، حَتَّى ظَنَنْتُ أَنَّهُ سَيَنْزِلُ بِهِ عَلَيَّ قُرْآنٌ، أَوْ وَحْيٌ.

আমাকে মিসওয়াকের আদেশ করা হয়েছে। আমার ধারণা হতে লাগল, এ সম্পর্কে আমার উপর কুরআন নাযিল হবে বা (বলেছেন,) ওহী নাযিল হবে। -মুসনাদে আহমাদ, হাদীস ৩১২২)

আয়েশা রা. হতে বর্ণিত তিনি বলেন-

أَنَّ النَّبِيَّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ: كَانَ إِذَا دَخَلَ بَيْتَهُ بَدَأَ بِالسِّوَاكِ.

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম যখন ঘরে প্রবেশ করতেন প্রথমে মিসওয়াক করতেন। -সহীহ মুসলিম, হাদীস ২৫৩

শুরাইহ রাহ. বলেন-

سَأَلْتُ عَائِشَةَ، قُلْتُ: بِأَيِّ شَيْءٍ كَانَ يَبْدَأُ النَّبِيُّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ إِذَا دَخَلَ بَيْتَهُ؟ قَالَتْ: بِالسِّوَاكِ.

আমি আয়েশা রা.-কে জিজ্ঞাসা করলাম, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ঘরে প্রবেশ করে প্রথমে কোন্ কাজটি করতেন? উত্তরে তিনি বলেন, প্রথমে মিসওয়াক করতেন। -সহীহ মুসলিম, হাদীস ২৫৩

শয্যার পাশে মিসওয়াক

عَنْ ابْنِ عُمَرَ، أَنَّ رَسُولَ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ كَانَ لَا يَنَامُ إِلاَّ وَالسِّوَاكُ عِنْدَهُ، فَإِذَا اسْتَيْقَظَ بَدَأَ بِالسِّوَاكِ.

আবদুল্লাহ ইবনে ওমর রা. থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ঘুমানোর সময় মিসওয়াক পাশে রাখতেন। ঘুম থেকে জাগ্রত হয়ে প্রথমেই তিনি মিসওয়াক করতেন। -মুসনাদে আহমাদ, হাদীস ৫৯৬৯

ওযুর পূর্বে মিসওয়াক

আম্মাজান আয়েশা রা. বলেন-

أَنَّ النَّبِيَّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ كَانَ لَا يَرْقُدُ مِنْ لَيْلٍ وَلَا نَهَارٍ، فَيَسْتَيْقِظُ إِلاَّ تَسَوَّكَ قَبْلَ أَنْ يَتَوَضَّأَ.

দিনে বা রাতে যখনই রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ঘুম হতে জাগ্রত হতেন ওযুর পূর্বে মিসওয়াক করে নিতেন। -মুসনাদে আহমাদ, হাদীস ২৪৯০০

মৃত্যুর আগমুহূর্তেও মিসওয়াক!

আয়েশা রা. হতে বর্ণিত, তিনি বলেন-

تُوُفِّيَ النَّبِيُّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ فِي بَيْتِي، وَفِي يَوْمِي، وَبَيْنَ سَحْرِي وَنَحْرِي، وَكَانَتْ إِحْدَانَا تُعَوِّذُهُ بِدُعَاءٍ إِذَا مَرِضَ، فَذَهَبْتُ أُعَوِّذُهُ…، وَمَرَّ عَبْدُ الرَّحْمَنِ بْنُ أَبِي بَكْرٍ وَفِي يَدِهِ جَرِيدَةٌ رَطْبَةٌ، فَنَظَرَ إِلَيْهِ النَّبِيَّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ، فَظَنَنْتُ أَنَّ لَهُ بِهَا حَاجَةً، فَأَخَذْتُهَا، فَمَضَغْتُ رَأْسَهَا، وَنَفَضْتُهَا، فَدَفَعْتُهَا إِلَيْهِ، فَاسْتَنَّ بِهَا كَأَحْسَنِ مَا كَانَ مُسْتَنًّا، ثُمَّ نَاوَلَنِيهَا، فَسَقَطَتْ يَدُهُ، أَوْ: سَقَطَتْ مِنْ يَدِهِ، فَجَمَعَ اللهُ بَيْنَ رِيقِي وَرِيقِهِ فِي آخِرِ يَوْمٍ مِنَ الدُّنْيَا، وَأَوَّلِ يَوْمٍ مِنَ الآخِرَةِ.

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমার ঘরে আমার ‘পালা’র দিনে এবং আমার বুকে মাথা রাখা অবস্থায় ইন্তিকাল করেন। তিনি অসুস্থ হলে আমাদের মধ্যকার কেউ দুআ পড়ে তাঁকে ঝাড়ফুঁক করতেন। আমি তাঁকে ঝাড়ফুঁক করছিলাম এসময় আবদুর রহমান ইবনে আবু বকর আগমন করল। তার হাতে মিসওয়াকের একটি তাজা ডাল ছিল। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তখন সেদিকে তাকালেন। আমি বুঝতে পারলাম যে, তিনি মিসওয়াকের প্রয়োজন বোধ করছেন। তখন আমি সেটি নিয়ে চিবিয়ে প্রস্তুত করে তাঁকে দিলাম। তিনি এর দ্বারা সুন্দরভাবে মিসওয়াক করলেন, যেমনটি তিনি (সুস্থতার সময়) করে থাকেন। অতঃপর তিনি তা আমাকে দিলেন। পরক্ষণই তাঁর হাত ঢলে পড়ল। আল্লাহ তাআলা আমার থুথুকে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের থুথুর সঙ্গে মিলিয়ে দিলেন তাঁর এ দুনিয়ার শেষ দিনে এবং আখিরাতের প্রথম দিনে। -সহীহ বুখারী হাদীস ৪৪৫১

ইহকালীন উপকার!!!


১) মিসওয়াক করার মধ্যমে আল্লাহর রিজামন্দি হাসিল হয়।
২) দারিদ্র্যতা দূর হয়ে।
৩) সচ্ছলতা আসে এবং উপার্জন বাড়ে।
৪) পাকস্থলী ঠিক থাকে।
৫) শরীর শক্তিশালী হয়।
৬) স্মরণশক্তি ও জ্ঞান বাড়ে। ৭) অন্তর পবিত্র হয়।
৮) সৌন্দর্য বাড়ে।
৯) ফিরিশতা তার সঙ্গে মুসাফাহা করেন।
১০) নামাজে বের হলে সম্মান করেন, নামাজ আদায় করে বের হলে আরশ বহনকারী ফিরিশতারা তার জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করেন।
১১) শয়তান অসন্তুষ্ট হয়।
১২) ফুলসিরাত বিজলীর ন্যায় দ্রুত পার হবেন
১৩) ডান হাতে আমলনামা পাবে।
১৪) ইবাদতে শক্তি পাবে।
১৫) মৃত্যুর সময় কালিমা নসিব হবে।
১৬) জান্নাতের দরজা খুলে দেয়া হবে।
১৭) জাহান্নামের দরজা বন্ধ করা দেয়া হবে।
১৮) পূত-পবিত্র হয়ে দুনিয়া থেকে বিদায় নিবে।
১৯) দাঁতের মাড়ি শক্ত হয়।
২০) মুখের দুরগন্ধ দূর হয় ইত্যাদি।

মেসওয়াক করা বলতে কি বুঝায়?

মেসওয়াক এর সহজ বাংলা অর্থ হলো ছের ডালা বা শিকড় দিয়ে প্রত্যেক নামাজ ও ওজুর সময় দাঁত পরিষ্কার করাকে ইসলামে মেসওয়াক বলা হয়।

মেওয়াকের জন্য উত্তম ডালা বা শিকড়

জায়তুন গাছের ডাল বা শিকড় দিয়ে মেসওয়াক করা উত্তম। তবে তা পাওয়া না গেলে, যেসব গাছের স্বাদ তিতা, সেসব গাছের ডালা বা শেকড় দিয়ে মেসওয়াক করা মুস্তাহাব। তবে তা হাতের আঙ্গুলের মতো মোটা ও নরম এবং লম্বায় এক বিঘত হওয়া ভালো।

মিসওয়াক কখন করবেন?

মিসওয়াক করার সময় ৯টি। যথা—

১. নামাজের আগে আযুর পুর্বে

২. কোরআন মাজিদ তিলাওয়াতের আগে।

৩. অজু করার সময়,

৪. ঘুম থেকে জাগ্রত হলে,

৫. মুখ দুর্গন্ধযুক্ত হলে,

৬. ঘুমানোর পূর্বে,

৭. দীর্ঘ সময় কথা বলার পর,

৮. পানাহারের পর,

৯. দুর্গন্ধযুুক্ত খাদ্য খাওয়ার পর।

১০. কুরআন ও হাদিস পড়ার আগে মিসওয়াক করা মুস্তাহাব ।

Rate this post
Mithu Khan

I am a blogger and educator with a passion for sharing knowledge and insights with others. I am currently studying for my honors degree in mathematics at Govt. Edward College, Pabna.

Leave a Comment