পড়াশোনা

কারক কাকে বলে? কারক কত প্রকার ও কি কি?

1 min read

আজ আমরা জানব কারক কাকে বলে? কত প্রকার ও কি কি নিয়ে।

কারক কাকে বলে?

কারক অর্থ যা ক্রিয়া সম্পাদন করে। এর সন্ধিবিচ্ছেদ হলো কৃ + ণক = কারক। বাক্যস্থিত ক্রিয়া পদের সাথে নামপদের যে সম্পর্ক তাকে কারক বলে।

কারকের প্রকারভেদ / শ্রেণীবিভাগ

কারক ছয় প্রকার। যথাঃ

  • কর্তৃকারক
  • কর্মকারক
  • করণ কারক
  • সম্প্রদান কারক
  • অপাদান কারক
  • অধিকরণ কারক

একটি বাক্যে ৬ টি কারকের উদাহরণ

** ইফাদ প্রতিদিন ভাঁড়ার থেকে নিজ হাতে গরিবদের চাল দিতেন।

এখানে,

ক্রমউদাহরনকারক
০১ইফাদকর্তৃ
০২চালকর্ম
০৩হাতেকরণ
০৪গরিবদেরসম্প্রদান
০৫ভাঁড়ার থেকেঅপাদান
০৬প্রতিদিনঅধিকরণ

কারক মনে রাখার কৌশল

ক্রিয়াপদকে প্রশ্ন করলে যে উওর পাওয়া যায়কারক
কে / কারা?কর্তৃ
কি / কাকে?কর্ম
কীভাবে / কেন / কিসের দ্বারা?করণ
কি / কাকে? ( স্বত্ব ত্যাগ)সম্প্রদান
কোথা হতে? ( উৎস, বিচ্যুতি,স্থানন্তর,আরম্ভ)অপাদান
কখন / কোথায় / কোন বিষয়ে?অধিকরণ

কর্তৃকারক

বাক্যস্থিত যে বিশেষ্য বা সর্বনাম পদ ক্রিয়া সম্পন্ন করে, তাকে কর্তৃকারক বলে। অর্থাৎ, ক্রিয়াকে কে বা কারা দ্বারা প্রশ্ন করলে যে উওর পাওয়া যায় তাই কর্তৃকারক। যেমন – ছেলেরা ফুটবল খেলে। (কারা খেলে? ছেলেরা – কর্তৃকারক)

কর্তৃকারকের প্রকারভেদ

বাক্যের ক্রিয়া সম্পাদনের বৈচিত্র্য বা বৈশিষ্ট্য অনুযায়ী কর্তৃকারক ৪ প্রকার। যথাঃ-

  • মূখ্য কর্তা
  • প্রযোজক কর্তা
  • প্রযোজ্য কর্তা
  • ব্যতিহার কর্তা

মূখ্য কর্তাঃ যে নিজে নিজেই ক্রিয়া সম্পাদন করে তাকে মূখ্য কর্তা বলে। যেমন – মেয়েরা ফুল তোলে।

প্রযোজক কর্তাঃ মূল কর্তা যখন অন্যকে কোন কাজে নিয়োজিত করে তা সম্পন্ন করায়, তাকে প্রযোজক কর্তা বলে। যেমন – মা শিশুকে চাঁদ দেখাচ্ছেন।

প্রযোজ্য কর্তাঃ মূল কর্তার করণীয় কার্য যাকে দিয়ে করানো হয়, তাকে প্রযোজ্য কর্তা বলে। যেমন – মা শিশুকে চাঁদ দেখাচ্ছেন।

ব্যতিহার কর্তাঃ কোন বাক্যে যে দুটো কর্তা একসাথে একই জাতীয় কাজ করে, তাদের ব্যতিহার কর্তা বলে। যেমন – বাঘে-মহিষে এক ঘাটে জল খায়।

কর্মকারক

যাকে আশ্রয় করে কর্তা ক্রিয়া সম্পন্ন করে, তাকে কর্মকারক বলে। কর্ম ২ প্রকার। যথাঃ

  • মুখ্য কর্ম
  • গৌণ কর্ম

যেমন – ইফাদ আমাকে (গৌণ কর্ম) একটি ফুল (মুখ্য কর্ম) কিনে দিয়েছিলেন।

কর্মকারকের প্রকারভেদ / শ্রেণীবিভাগ

১. সকর্মক ক্রিয়ার কর্মঃ ইসরাত ফুল তুলছে।

২. প্রযোজক ক্রিয়ার কর্মঃ মেয়েটিকে বিছানায় শোয়াও।

৩. সমধাতুজ কর্মঃ খুব এক ঘুম ঘুমিয়েছি।

৪. উদ্দেশ্য ও বিধেয়ঃ দ্বিকর্মক ক্রিয়ার দুটি পরস্পর অপেক্ষিত কর্মপদ থাকলে প্রধান কর্মটিকে উদ্দেশ্য কর্ম এবং অপেক্ষিত কর্মটিকে বিধেয় কর্ম বলা হয়। যেমন – দুধকে (উদ্দেশ্য কর্ম) মোরা দুগ্ধ (বিধেয় কর্ম) বলি

করণ কারক

করণ অর্থ – যন্ত্র, সহায়ক, উপায়। ক্রিয়া সম্পাদনের যন্ত্র, সহায়ক বা উপায়কেই করণ কারক বলে। অর্থাৎ, ক্রিয়াপদকে কিসের দ্বারা বা কী উপায়ে প্রশ্ন করলে যে উওর পাওয়া যায় তাকেই করণ কারক বলে। যেমন –

ইফাদ কলম দিয়ে লিখে। (উপকরণ – কলম)

ছেলেরা বল খেলে।

সম্প্রদান কারক

যাকে স্বত্ব ত্যাগ করে দান,অর্চনা, সাহায্য ইত্যাদি করা হয় তাকে সম্প্রদান কারক বলে। যেমন –

ভিক্ষুককে ভিক্ষা দাও।

সৎপাত্রে কন্যা দান কর।

জ্ঞাতব্যঃ স্বত্ব ত্যাগ করে না দিলে কর্মকারক হবে।

যেমন – ধোপাকে কাপড় দাও।

অপাদান কারক

যা থেকে কিছু বিচ্যুত, গৃহীত,জাত,বিরত,আরম্ব,দূরীভূত ও রক্ষিত হয় এবং যা দেখে কেউ ভীত হয় তাকে অপাদান কারক বলে। যেমন –

মেঘ থেকে বৃষ্টি পড়ে। (বিচ্যুত)

দুধ থেকে দই হয়। (গৃহীত)

খেজুর রসে গুড় হয়। (জাত) ইত্যাদি।

অধিকরণ কারক

ক্রিয়া সম্পাদনের কাল (সময়) এবং আধারকে অধিকরণ কারক বলে। যেমন – আমরা প্রতিদিন বিশ্ববিদ্যালয়ে যাই। (স্থান)

অধিকরণ কারকের প্রকারভেদ / শ্রেণীবিভাগ

অধিকরণ কারক ৩ প্রকার। যথাঃ

  • ঐকদেশিক
  • অভিব্যাপক
  • বৈষয়িক

ঐকদেশিকঃ বিশাল স্থানের যেকোন অংশে ক্রিয়া সংগঠিত হলে তাকে ঐকদেশিক আধারাধিকরণ বলে। যেমন – বনে সিংহ আছে।

অভিব্যাপকঃ উদ্দিষ্ট বস্তু যদি সমগ্র আধার ব্যাপ্ত করে বিরাজমান থাকে তাকে অভিব্যাপক আধারাধিকরণ বলে। যেমন – তিলে তৈল আছে।

বৈষয়িকঃ বিষয় বিশেষে বা কোন বিশেষ গুণে কারও কোন দক্ষতা বা ক্ষমতা থাকলে সেখানে বৈষয়িক অধিকরণ হয়। যেমন – ইফাদ বাংলায় কাঁচা, কিন্তু কম্পিউটারে ভালো।

Rate this post
Mithu Khan

I am a blogger and educator with a passion for sharing knowledge and insights with others. I am currently studying for my honors degree in mathematics at Govt. Edward College, Pabna.

Leave a Comment