বিভিন্ন সার্বভৌম দেশের মধ্যে দ্রব্য ও সেবার বিনিময় আইনগত প্রক্রিয়ার মাধ্যমে সম্পন্ন হলে তাকে আন্তর্জাতিক বাণিজ্য বলে। অর্থাৎ বিভিন্ন জাতিভুক্ত মানুষের মধ্যে দ্রব্য ও সেবার বিনিময় সংক্রান্ত অর্থনৈতিক কার্যাবলিকে আন্তর্জাতিক বাণিজ্য বলে। যেমন— বাংলাদেশের সাথে অন্যান্য দেশের যে ধরনের বাণিজ্য চলে, তা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য। এরূপ বাণিজ্য আলাদা আলাদা মুদ্রা ও রাজস্বনীতি, আন্তর্জাতিক বাণিজ্যিক নিয়ম-কানুনের দ্বারা পরিচালিত হয়।

সংরক্ষিত বাণিজ্য নীতি বলতে কী বোঝায়?

বৈদেশিক প্রতিযােগিতার হাত হতে দেশীয় শিল্পকে রক্ষা করার জন্য আন্তর্জাতিক বাণিজ্যের ওপর বাধা-নিষেধ আরােপ করা হলে তাকে সংরক্ষিত বাণিজ্য নীতি বলা হয়। উচ্চ হারে আমদানি শুল্ক ধার্য, কোটা পদ্ধতি প্রবর্তন, দেশীয় উৎপাদনকারীদের আর্থিক অনুদান বা ভর্তুকি প্রভৃতি ব্যবস্থা গ্রহণের মাধ্যমে দেশীয় শিল্পকে বিদেশি প্রতিযােগিতার হাত হতে রক্ষা করা হয়। এ নীতিকে সংরক্ষণ নীতি বা সংরক্ষিত বাণিজ্য নীতি বলে।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x