এ ধরনের নেটওয়ার্ক একটি কেন্দ্রিয় ডিভাইস হাব/সুইচের মাধ্যমে সকল কম্পিউটার পরস্পরের মধ্যে যুক্ত থাকে। ফলে কেন্দ্রিয় ডিভাইসের মাধ্যমে সুনির্দিষ্ট কম্পিউটারের ঠিকানায় তথ্য আদান-প্রদান করতে পারে। নেটওয়ার্কের কোনো একটি কম্পিউটার নষ্ট হলে তা সহজেই অপসারণ ও সংযোজন করা যায়। হাবের সংখ্যা বাড়িয়ে নেটওয়ার্কে অধিক সংখ্যক কম্পিউটার যোগ করেও নির্দিষ্ট কম্পিউটারে তথ্য পাঠানো যায়।

সুবিধাঃ

  • সংকেত আদান-প্রদান কেন্দ্রীয়ভাবে সংযোগকারী ডিভাইসের মাধ্যমে করা হয়, তাই অপেক্ষাকৃত দ্রুতগতিতে হয়।
  • প্রতিটি নোড কেন্দ্রীয় ডিভাইস হাব বা সুইচের মাধ্যমে সংকেত আদান প্রদান করে, ফলে সংকেত সংঘর্ষ ঘটার আশঙ্কা কম।
  • যেকোনো সময় নেটওয়ার্কে নতুন কোনো নোড যুক্ত করা যায়।
  • নেটওয়ার্ক থেকে যেকোনো নোড বিচ্ছিন্ন করা হলে কিংবা নেটওয়ার্কের কোনো নোড অচল হলেও নেটওয়ার্ক সচল থাকে।
  • এই টপোলজিতে সাধারণত টুইস্টেড পেয়ার ক্যাবল ব্যবহৃত হয়; অবশ্য একই সাথে বিভিন্ন ধরনের ক্যাবল যথা- কো-এক্সিয়াল বা ফাইবার অপটিক ক্যাবল ও এই নেটওয়ার্কে ব্যবহার করা যায়।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x