রাষ্ট্র পরিচালনার মূল দলিলকে সংবিধান বলে।

সংশোধনের ভিত্তিতে সংবিধানকে সুপরিবর্তনীয় ও দুষ্পরিবর্তনীয় এ দুই শ্রেণিতে ভাগ করা যায়। সুপরিবর্তনীয় সংবিধানের নিয়ম সহজে পরিবর্তন বা সংশোধন করা যায়। ব্রিটিশ সংবিধান সুপরিবর্তনীয়। অন্যদিকে দুষ্পরিবর্তনীয় সংবিধান সংশোধনের ক্ষেত্রে বেশকিছু নিয়ম অনুসরণ করতে হয়। এক্ষেত্রে বিশেষ সংখ্যাগরিষ্ঠতা, সম্মেলন ও ভোটাভুটির প্রয়োজন হয়। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সংবিধান দুষ্পরিবর্তনীয়।

যে কোনো দেশের জন্য সংবিধান জরুরি কেন?
সংবিধান রাষ্ট্র পরিচালনার মূল দলিল হওয়ায় যে কোনো দেশ পরিচালনার জন্য সংবিধান জরুরি।
সংবিধান যেকোনো রাষ্ট্রের জন্য আবশ্যক। একটি ভবন বা ইমারত যেমন- এর নকশা দেখে তৈরি করা হয়, তেমনি সংবিধান অনুযায়ী রাষ্ট্রের শাসনব্যবস্থা পরিচালিত হয়। সরকারের ধরন, নাগরিক অধিকার, সরকারের বিভিন্ন বিভাগ ও ক্ষমতা সবকিছুই সংবিধানে লিপিবদ্ধ থাকে। তাই রাষ্ট্রকে সঠিকভাবে পরিচালনার জন্য অবশ্যই সংবিধান প্রয়োজন।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x