প্রশ্ন-১। অর্থনীতির জনক কে?

উত্তরঃ অর্থনীতির জনক অ্যাডাম স্মিথ।

প্রশ্ন-২। ‘অর্থশাস্ত্র’ গ্রন্থটি কার লেখা।

উত্তরঃ ‘অর্থশাস্ত্র’ গ্রন্থটি কৌটিল্যের লেখা।

 

প্রশ্ন-৩। ‘ভূমিবাদ’ মতবাদ প্রচার করে কারা?

উত্তরঃ ভূমিবাদ মতবাদ প্রচার করে ফরাসিরা।

প্রশ্ন-৪। এল. রবিন্স প্রদত্ত অর্থনীতির সংজ্ঞাটি লেখো।

উত্তরঃ আধুনিক অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক লায়নেল রবিন্স (Prof. Lionel Robbins) বলেন, “অর্থনীতি এমন একটি বিজ্ঞান যা অসীম অভাব ও বিকল্প ব্যবহারযোগ্য অপ্রচুর সম্পদের মধ্যে সমন্বয় সাধনকারী মানুষে আচরণ বিশ্লেষণ করে।”

প্রশ্ন-৫। আয়ের বৃত্তাকার প্রবাহটি লেখ।

উত্তরঃ সাধারণত অর্থনীতিতে দুই ধরনের প্রতিনিধি থাকে। পরিবার এবং ফার্ম। এই দুই প্রতিনিধির মধ্যে আয়-ব্যয় বিনিময় প্রবাহকে আয়ের বৃত্তাকার প্রবাহ বলা হয়। দেশের জনগণ তথা পরিবারের উৎপাদনের উপকরণগুলো হলো— ভূমি, শ্রম, মূলধন ও সংগঠন ফার্মের কাছে সরবরাহ করে। বিনিময়ে সেখান থেকে সেগুলোর দামস্বরুপ খাজনা, মজুরি, সুদ ও মুনাফা বাবদ আয় করে। এ আয় পরিবারের ব্যয়ের সমান। আর এই আয়-ব্যয়ের চক্রাকার প্রবাহকে আয়ের বৃত্তাকার প্রবাহ বলে।

প্রশ্ন-৬। রবিন্সের সংজ্ঞাটি কেন উত্তম মনে করা হয়?

উত্তরঃ অর্থনীতিবিদ এল. রবিন্স প্রদত্ত সংজ্ঞায় অর্থনীতির প্রকৃত স্বরূপ ফুটে উঠেছে বলে তার সংজ্ঞাটিকে উত্তম মনে করা হয়।

মানুষের অভাব অসীম এবং এর প্রকৃতি ও পরিমাণ ভিন্ন; কিন্তু এই অসীম অভাব পূরণের জন্য সম্পদ সীমিত। তাই অভাবের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে অভাব পূরণের জন্য সীমিত সম্পদের বিকল্প ব্যবহার প্রয়োজন। উক্ত বিষয়গুলো এল. রবিন্সের সংজ্ঞায় উল্লেখ আছে। তাই তার সংজ্ঞাটিকে অধিকতর গ্রহণযোগ্য বা উত্তম মনে করা হয়।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x