পড়াশোনা
1 min read

ফটোইলেকট্রিক ক্রিয়া কি? বা আলোক তড়িৎ ক্রিয়া কি?

Updated On :

আলোক রশ্মি যখন কোনো ধাতবপৃষ্ঠে আপতিত হয় তখন ধাতবপৃষ্ঠের ইলেকট্রন আলোক রশ্মি থেকে শক্তি গ্রহণ করে। যখনই ইলেকট্রন দ্বারা গৃহীত শক্তি ধাতবপৃষ্ঠে তার বন্ধন শক্তির চেয়ে বেশি হয়, তখনই ইলেকট্রন ধাতবপৃষ্ঠ থেকে মুক্ত হয় বা বেরিয়ে আসে। এ ঘটনাকে ফটোইলেকট্রিক ক্রিয়া বা আলোক তড়িৎ ক্রিয়া বলা হয়।
ইলেকট্রন নিঃসরনের জন্য ধাতবপৃষ্ঠে যথোপযুক্ত কম্পাঙ্কের আলো ফেলতে হয় তা না হলে ইলেকট্রন নিঃসরণ হয় না। নিঃসৃত ইলেকট্রনকে বলা হয় ফটো ইলেকট্রন। নির্গত ইলেকট্রন প্রবাহিত হওয়ার ফলে যে তড়িৎ প্রবাহ চলে তাকে বলা হয় ফটো তড়িৎ প্রবাহ। সোডিয়াম, পটাশিয়াম, সিজিয়াম ইত্যাদি ক্ষারধর্মী পদার্থের উপর দৃশ্যমান আলো আপতিত হলে ফটো ইলেকট্রন নির্গত হয়। এক্স-রে বা গামা-রশ্মির প্রভাবে সব ধাতব পদার্থে আলোক তড়িৎক্রিয়া সংঘটিত হয়।

যথোপযুক্ত উচ্চ কম্পাঙ্কবিশিষ্ট আলোক রশ্মি কোনো ধাতবপৃষ্ঠে আপতিত হলে তা থেকে ইলেকট্রন নিঃসৃত হয়, এ ঘটনাকে ফটোইলেকট্রিক ক্রিয়া বা আলোক তড়িৎ ক্রিয়া বলে।

ফটোইলেকট্রিক ক্রিয়ায় বৈশিষ্ট্যঃ
১. ফটোইলেকট্রিক ক্রিয়া একটি তাৎক্ষণিক ঘটনা। ধাতবপৃষ্ঠে আলো আপতিত হওয়া এবং তা থেকে ইলেকট্রন নিঃসরণের মধ্যে কোনো কাল বিলম্বন নেই। আলোর তীব্রতা যত কমই হোক না কেন যথোপযুক্ত কম্পাঙ্ক বিশিষ্ট আলোক রশ্মি ধাতবপৃষ্ঠে আপতিত হওয়ার সাথে সাথে পৃষ্ঠ থেকে ইলেকট্রন নিঃসৃত হয় এবং আলো বন্ধ হওয়া মাত্র ইলেকট্রন নিঃসরণ বন্ধ হয়ে যায়।
২. ফটোইলেকট্রনের গতিশক্তি আপতিত আলোর কম্পাঙ্কের ওপর নির্ভরশীল কিন্তু আলোর তীব্রতার ওপর নির্ভরশীল নয়।
৩. যে কোন নির্দিষ্ট কম্পাঙ্কের জন্য ফটোপ্রবাহ I (Photo current) আপতিত আলোর তীব্রতার সমানুপাতিক অর্থাৎ আলোর তীব্রতা বৃদ্ধি পেলে ফটোপ্রবাহ বৃদ্ধি পায় এবং আলোর তীব্রতা কমে গেলে ফটোপ্রবাহ কমে যায়।
৪. প্রতি ধাতুর বেলায় একটি নিম্নতম কম্পাঙ্ক আছে, আপতিত আলোর তীব্রতা যাই হোক না কেন তার কম্পাঙ্ক এই নিম্নতম কম্পাঙ্ক থেকে বেশি না হলে ঐ ধাতু থেকে ইলেকট্রন নিঃসৃত হয় না। এটাকে ধাতুর সূচন কম্পাঙ্ক বলে।
শেষ কথা:
আশা করি আপনাদের এই আর্টিকেলটি পছন্দ হয়েছে। আমি সর্বদা চেষ্টা করি যেন আপনারা সঠিক তথ্যটি খুজে পান। যদি আপনাদের এই “ফটোইলেকট্রিক ক্রিয়া কি? বা আলোক তড়িৎ ক্রিয়া কি?” আর্টিকেলটি পছন্দ হয়ে থাকলে, অবশ্যই ৫ স্টার রেটিং দিবেন।
5/5 - (33 votes)