রাষ্ট্রবিজ্ঞান

স্বৈরতন্ত্র কি? স্বৈরতন্ত্রের সংজ্ঞা ও বৈশিষ্ট্য

1 min read

স্বৈরতন্ত্র কি

Autocratic শব্দটির বাংলা পারিভাষিক অর্থ হল একক শাসন বা স্বৈরশাসন। শব্দটি দুটি গ্রীক শব্দ (autos) অর্থ ‘নিজে’ এবং (kratos) অর্থ ”শাসন” থেকে আগত। আধুনিক রাষ্ট্র ব্যবস্থায় এই স্বৈরশাসনকে নেগেটিভ হিসেবে দেখা হয়। কারণ এই ব্যবস্থায় জনগণের সার্বভৌমত্ব ক্ষুন্ন হয় এবং মৌলিক অধিকার থেকে বঞ্চিত হতে হয়। যদিও খুব কম সংখ্যক দেশ আছে যেখানে স্বৈরতান্ত্রিক রাষ্ট্র ব্যবস্থা রয়েছে। নিম্মে স্বৈরতন্ত্রের সংজ্ঞা এবং এর বৈশিষ্ট্য নিয়ে আলোচনা করব।
স্বৈরতন্ত্রী রাষ্ট্রকে কখনও কখনও কর্তৃত্ববাদী রাষ্ট্রও বলা হয়। এটি শাসক শ্রেণীর দ্বারা তাদের আধিপত্য স্থায়ী করার একটি প্রচেষ্টার প্রতিনিধিত্ব করে। স্বৈরতন্ত্রের একটি প্রকৃষ্ট উদাহরণ হল জেনারেল অগাস্টো পিনোচেটের অধীনে চিলিতে স্বৈরাচারী সরকার ব্যবস্থার যা ১৯৭৩ সালে গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত সমাজতান্ত্রিক সরকার রাষ্ট্রপতি সালভাদর আলেন্দের উৎখাত করেছিল।
স্বৈরতন্ত্রী সরকারে আরেকটি উদাহরণ হল ১৯৩৩-১৯৪৫ সাল পর্যন্ত জার্মানিতে অ্যাডলফ হিটলারের নেতৃত্ব। যার ফলস্বরুপ, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের মত ধ্বংসাত্বক যুদ্ধ সংগঠিত হয়। অ্যাডলফ হিটলারের নেওয়া প্রতিটি সিদ্ধান্তের নিয়ন্ত্রণ তার একার ছিল।

স্বৈরতন্ত্র সংজ্ঞা

স্বৈরাচার বা স্বৈরতন্ত্র হল এমন একটি সরকার ব্যবস্থা যেখানে একজন ব্যক্তি সমস্ত রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক, সামাজিক এবং সামরিক ক্ষমতা ধারণ করে। স্বৈরশাসকের শাসন সীমাহীন, নিরঙ্কুশ এবং কোন আইনি বা আইনী সীমাবদ্ধতার অধীন নয়।
 
স্বৈরাচার হল এমন একটি সরকার ব্যবস্থা যেখানে সর্বোচ্চ ক্ষমতা এক ব্যক্তির হাতে কেন্দ্রীভূত থাকে। সংক্ষেপে, নিরঙ্কুশ ক্ষমতা সহ এক ব্যক্তির দ্বারা সরকার ব্যবস্থা।
স্বৈরতন্ত্র হল এমন একটি সরকার ব্যবস্থা যেখানে একজন একক ব্যক্তির সম্পূর্ণ ক্ষমতা থাকে, যেখানে একজন ব্যক্তি কোন প্রকারের সীমাবদ্ধতা ছাড়াই সমস্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার কর্তৃত্ব এবং আধিপত্য ধারণ করে।
স্বৈরতন্ত্র হল সরকারের একটি রূপ যেখানে সমস্ত নিয়ন্ত্রণ একজন নেতা বা ক্ষমতায় থাকা একটি ছোট গোষ্ঠীর হাতে কেন্দ্রীভূত হয়।
স্বৈরতন্ত্র হল এমন একটি সরকার ব্যবস্থা যেখানে সর্বোচ্চ ক্ষমতা একজন ব্যক্তির হাতে থাকে, যার সিদ্ধান্তগুলো কোনও আইনি বাধার অধীন হয় না।

স্বৈরতন্ত্রের বৈশিষ্ট্য

১. সমস্ত রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক, সামাজিক এবং সামরিক ক্ষমতা ধারণ করে।
২. স্বৈরশাসকের শাসন সীমাহীন, নিরঙ্কুশ এবং কোন আইনি বা আইনী সীমাবদ্ধতার অধীন নয়।
৩. এটি একক ব্যক্তির সরকার যা সামরিক ও পেশাদার হতে পারে।
৪. নেতাকে অবশ্যই শক্তিশালী এবং কঠোর সিদ্ধান্তমূলক চরিত্রের ব্যক্তি হতে হবে এবং দৃঢ়তার সাথে সিদ্ধান্ত আরোপ করতে হবে।
৫. স্বৈরতান্ত্রিক দেশে কোন বিরোধিতা দল থাকতে পারে না। যদি থাকে তবে তা খুবই দুর্বল হতে হবে।
৬. স্বৈরতান্ত্রিক সরকারগুলোর কোনও ধরণের সহনশীলতা থাকতে নেই এবং যারা সরকারের নীতি ও সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে যায় তাদের বিরুদ্ধে দমনের পদ্ধতি রয়েছে।
৭. স্বৈরাচার অন্যান্য ধরনের সরকারের মধ্যে থেকে উৎপন্ন হতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, গণতান্ত্রিক ব্যবস্থার মধ্য থেকে।
৮. যারা স্বৈরতান্ত্রিক আকারে শাসন করতে আসে তারা বিবেচনা করে যে তাদের একটি ঐশ্বরিক অধিকার রয়েছে।
৯. এই ধরনের সরকার ব্যবস্থা গ্রহণকারী দেশগুলো একনায়কতন্ত্র এবং রাজতন্ত্র হিসাবে পরিচিত।
১০. তারা অবাধ ও গণতান্ত্রিক নির্বাচনের মাধ্যমে নির্বাচিত হয় কিন্তু যখন ক্ষমতা অর্জন করে তখন তারা একটি কেন্দ্রবাদী এবং কর্তৃত্ববাদী ব্যক্তি হয়ে ওঠে।
5/5 - (12 votes)
Mithu Khan

I am a blogger and educator with a passion for sharing knowledge and insights with others. I am currently studying for my honors degree in mathematics at Govt. Edward College, Pabna.