তথ্য প্রযুক্তি
1 min read

ফেসবুক আইডি নিরাপদ রাখার উপায়

ফেসবুক আইডি নিরাপদ রাখার উপায় গুলো কি এই বিষয় নিয়ে খুঁটিনাটি ব্লগে আলোচনা করা হবে। আমাদের ফেসবুক অ্যাকাউন্ট হ্যাক হয়ে যায়। ব্যক্তিগত তথ্য চুরি হয়। আমরা পড়ে যাই মহা ঝামেলায়। তাই এই ফেসবুক একাউন্ট কিভাবে সুরক্ষিত এবং মজবুত রাখা যায় এবিষয়টি অনেকের কাছেই অজানা বা এ বিষয়গুলো অনেকে সঠিকভাবে জানে না। তাই আমাদের অনেকেই ফেসবুক অ্যাকাউন্টটি প্রায় প্রায় হ্যাক হয়ে যায় বা অন্য কেউ আমাদের ফেসবুকের গোপনীয়তা কে তাদের হস্তগত করে এবং আমাদেরকে নানাভাবে ব্ল্যাকমেইল করার চেষ্টা করে বা ব্ল্যাকমেল করে থাকে। এই সমস্যা টি যাতে না হয় এই সমস্যার সম্মুখীন যাতে না হওয়া লাগে এই জন্য ফেসবুক একাউন্টের নিরাপত্তা ফেসবুক আইডি নিরাপদ রাখার উপায় গুলো গুরুত্বসহকারে রাখা।

ফেসবুকের নিরাপত্তা

ইদানিং রাজনৈতিক ঝামেলায় জড়িয়ে পড়েছেন, কিন্তু আমাদের একটু সতর্ক হলেই এসব ঝামেলা থেকে বেঁচে যেতে পারি। এজন্য আমাদের কিছু নিয়ম মেনে চলতে হবে। এই নিয়মগুলো মেনে চললে আমরা ফেসবুকে নিরাপদ থাকতে পারবো। চলুন জেনে নেই ফেসবুক আইডি নিরাপদ রাখার উপায় চলুন জেনে নেই ফেসবুক আইডি নিরাপদ রাখার উপায়।

ভেরিফিকেশন চালু করুন

আপনি ফেসবুক অ্যাকাউন্ট খোলার সময় কিছু তথ্য দিয়েছেন। জিমেইল ফোন নাম্বার পাসওয়ার্ড ইত্যাদি। আবার লগইন করার জন্য ইমেইল এবং পাসওয়ার্ড দরকার হয়। এর কোন একটা ভুলে গেলে লগ ইন করা সম্ভব হয় না। কিন্তু বর্তমানের প্রযুক্তি অনেক উন্নত। বেড়েছে হ্যাকারদের দৌরাত্ম্য। অনেকে না জেনে হ্যাকারদের কবলে পড়েছেন। হ্যাকাররা কৌশলে হাতিয়ে নিচ্ছে অনেকের পাসওয়ার্ড। আর তারা অনুমতি ছাড়াই ঢুকে পড়ছে অন্যের অ্যাকাউন্টে এক্ষেত্রে তার দরকার হচ্ছে শুধু দুইটা জিনিস আপনার ইমেইল ঠিকানা আপনার পাসওয়ার্ড। কিন্তু আপনি চাইলে এই হ্যাকারদের হাত থেকে বেঁচে যেতে পারেন। আর নিরাপদ রাখতে পারেন আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট। আপনি যদি একটু পেস্ট ভেরিফিকেশন চালু করেন তাহলে লগইন করার জন্য দরকার হবে তিনটা জিনিস।

১ ইমেইল ঠিকানা।

২ একাউন্টের পাসওয়ার্ড।

৩ মোবাইলে আসা সামরিক পাসওয়ার্ড।

আপনার ইমেইল আর পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করবে তখন আপনার মোবাইলে একটা সাময়ীক পাসওয়ার্ড যাবে। ওই পাসওয়ার্ড না দিতে পারলে একাউন্টে লগইন হবে না। কিন্তু হ্যাকার আপনার মোবাইল পাবে না। আর এই সামরিক পাসওয়ার্ডও পাবে না। কিভাবে পেস্ট ভেরিফিকেশন চালু করতে হয় ৊এ ব্যাপারে আরও বিস্তারিত জেনে নিবেন।

অপরিচিত ব্যক্তির পাঠানো লিংকে ক্লিক করবেন না

যদি আপনি ফেসবুক আইডি নিরাপদ রাখার উপায় গুলো জানতে চান বা আপনার ফেসবুক আইডিটি নিরাপদে রাখতে চান তাহলে কখনো অন্যের বা অপরিচিত ব্যক্তির পাঠানো কোন লিংকে ক্লিক করবেন না। অনেক সময় অনেকেই আমাদেরকে ফেসবুকে বিভিন্ন লিংক পাঠায়।গুলোতে ক্লিক করা যাবে না। এগুলা হ্যাকিং লিং্ক হতে পারে। তাহলে আপনি খুব বড় ধরনের বিপদে পড়বেন তাই সর্বদা এইসব লিংক এড়িয়ে চলুন।

ফেসবুক লগইন নোটিফিকেশন অপশনটি চালু রাখুন

ফেসবুক লগআউট অপশনটি চালু রাখলে  আপনার সুবিধা বা আপনার ভালো। লগইন নোটিফিকেশন অপশনটি চালু করে রাখলে বাড়তি সুবিধা পাবেন। তখনি আপনার ই-মেইল ও মোবাইলের নোটিফিকেশন চলে যাবে। যদি আপনার অজান্তে কেউ আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্টে লগ-ইন করার চেষ্টা করে তাহলে আপনি খুব সহজভাবেই বুঝে নিতে পারবেন যে এটা অন্য কেউ করছে বা আপনার অ্যাকাউন্টটি হ্যাক করার চেষ্টা করা হচ্ছে। যখন আপনি বুঝতে পারবেন যে আপনার অ্যাকাউন্টটি হ্যাক করার চেষ্টা করা হচ্ছে তখন আপনি এর জন্য যতটুকু পদক্ষেপ যা যা করা দরকার ততটুকু সিকিউরিটি   মেইনটেইন করা দরকার ঠিক ততটুকু করার সুযোগ থাকবে। যখনই কেউ আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট লগইন করবে। তখনি আপনার ইমেইল মোবাইলের নোটিফিকেশন চলে যাবে। আপনি আপনার পাসওয়ার্ড পরিবর্তন করে ফেলবেন। সাইন আউট ডিভাইস করে দিবেন। তাহলে হ্যাকার আপনার অ্যাকাউন্টে লগ আউট হয়ে যাবে আর লগইন করতে পারবেনা।

ট্রাস্টেড কন্টাক্ট যোগ করুন

ফেসবুক অ্যাকাউন্ট নিরাপদ রাখা আরো ভালো উপায় ট্রাস্টেড কন্টাক্ট। ফেসবুক একাউন্টে টাকা যোগ করে রাখলে একাউন্ট যেকোনো সময় উদ্ধার করা যায়। এক্ষেত্রে আপনি ফেসবুক একাউন্টে লগইন করতে না পারবেন। তখনই ট্রাস্টেড কন্টাকের সহায়তা নিতে পারেন। আপনার যোগ করা বন্ধুদের কাছে আলাদা আলাদা পিন কোড যাবে। তাদের থেকে পিন কোড নিয়ে সাবমিট দিলে আপনি নতুন পাসওয়ার্ড সেট করতে পারবেন। এই নিয়মগুলো মেনে চললে আপনি ফেসবুকে নিরাপদ থাকতে পারবেন। ফেসবুক আইডি নিরাপদ রাখার উপায় গুলো যদি আপনি আরো সঠিকভাবে মেন্টেন করতে পারেন বা মেনে চলতে পারেন তাহলে আপনার একাউন্টি সুরক্ষিত থাকবে কোন হ্যাকার আপনার অ্যাকাউন্টটি হ্যাক করতে পারবে না।

ফেসবুক আইডি নিরাপদ রাখার  যত উপায়

কখনো কি আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট হ্যাকিং এর চেষ্টা হয়েছে৊ অথবা অপরিচিত কোন এলাকা বা কম্পিউটার থেকে লগইন হয়েছে৊ আপনি মনে করতে পারছেন না৊ আপনার অ্যাকাউন্ট থেকে আপনার অজান্তে কারো কাছে বার্তা চলে যাচ্ছে৊ এরকম হলে আপনার একাউন্টে হয়তো অযাচিত প্রবেশের ঘটনা ঘটেছে। সাইবার হামলা একাউন্ট হ্যাকিং এর নতুন নয়। ইন্টারনেটের সঙ্গে সঙ্গে এই প্রবণতা অনেক বেড়েছে। কিছুদিন আগে এরকম একটি হামলায় পাঁচ কোটি ফেসবুক ব্যবহারকারী তথ্য চুরি হয়েছে।

ফেসবুকের জনপ্রিয়তা যেমন বাড়ছে সেই সঙ্গে বাড়ছে বিভিন্ন একাউন্টে ব্যক্তিগত তথ্য থাকা এবং সামাজিক বা ব্যবসায়িক যোগাযোগ থাকার কারণে অ্যাকাউন্টগুলো অনেক ক্ষেত্রেই হ্যাকারদের লক্ষ্যে পরিণত হচ্ছে। তাই আপনার ফেসবুক আইডি নিরাপদ রাখার উপায় গুলো আপনাকেই বজায় রাখতে হবে।

সরকারি হিসাবে বাংলাদেশে প্রায় তিন কোটি ফেসবুক ব্যবহারকারী রয়েছে

বিটিআরসি জানিয়েছে জুলাই থেকে সেপ্টেম্বর মাস পর্যন্ত তারা সামাজিক মাধ্যম সম্পর্কিত 121 অভিযোগ। ফেসবুক ব্যবহার করে গুরুতর অপরাধ বা সমস্যা তৈরি করার অভিযোগ বিটিআরসি পর্যন্ত গড়ায়। ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের সাইবারক্রাইম বিভাগের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার নাজমুল ইসলাম বলেছেন, ফেসবুক সম্পর্কিত গড়ে প্রায় 500 এর বেশিরভাগই অ্যাকাউন্ট হ্যাক হয়ে গেছে প্রবেশ করা যাচ্ছে না এ ধরনের তবে হ্যাঁ কিংবা সমস্যার শিকার হলেও অনেক অভিযোগ কর্তৃপক্ষ পর্যন্ত যায় না।

দূষিত সফটওয়্যার বা কম্পিউটার

অনেক সময় আপনার ফোন ট্যাপ কম্পিউটার এমনকি ক্রোম বা ফায়ারফক্সের মত ব্রাউজিং সফটওয়্যার বিশেষ কোড দ্বারা আক্রমণের শিকার হতে পারে। যদি আপনার অ্যাকাউন্ট থেকে নিজে নিজেই অন্যদের কাছে পাত্তা দিতে থাকে বা একাউন্ট ব্যবহারের ভুল ইতিহাস দেখায় অথবা একাউন্ট কি ভিটি লগে এসব এমন সব পোস্ট দেখতে পান না আপনি মনে করতে পারছেন না তখন আপনার সতর্ক হওয়া উচিত। কম্পিউটার বা মোবাইল খুব আস্তে কাজ করছে, এমন সফটওয়্যার দেখতে পাচ্ছেন না আপনি ইন্সটল করেননি, আপনার সার্চ ইঞ্জিন পাল্টে গেছে কিন্তু আপনি তা করেননি তখন বুঝতে হবে হয়তো আপনি আক্রান্ত হয়েছেন। এধরনের ক্ষেত্রে ইবা মাইক্রো সফটওয়্যার ব্যবহার করে কম্পিউটার বা মোবাইল পরিষ্কার করার পরামর্শ দিয়েছে ফেসবুক। ক্লিন আপ টুল ব্যবহার করে ব্রাউজার দূষণমুক্ত করা যেতে পারে। এছাড়া ওয়েব ব্রাউজার নিয়মিত আপডেট করা উচিত।

বাংলাদেশ সরকার জানিয়েছেন ফেসবুক ইউটিউব এর মতো সামাজিক মাধ্যমে প্রসারিত যেকোনো কন্টেট যদি বাংলাদেশ সরকারের কাছে দেশের জন্য ক্ষতিকর বলে মনে হয় তাহলে সরকার চাইলেই সেগুলো প্রতিরোধ করতে বিভিন্ন ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারবেন।

তাই আপনি আমি বাজি কেউই ফেসবুক আইডির আপদ রাখার উপায় গুলো সম্পর্কে ভালোভাবে জানা। এবং আপনার সামাজিক সাইট গুলোর পাসওয়ার্ড শক্তিশালী দেয়া। যাতে করে অন্য কাউরে আপনার পাসওয়ার্ডটি আয়ত্ত করতে না পারে সেদিকে খেয়াল রাখা। ফেসবুক আইডি নিরাপদ রাখার উপায় আরো অনেক আছে আশা করি আপনারা বুঝতে পারছেন।

Rate this post