প্রাণীবিজ্ঞানঃ জীব বিজ্ঞানের যে শাখায় প্রাণীর আকার, আকৃতি, গঠন প্রকৃতি, আবাসস্থল, স্বভাব, পূর্ণ জীবনবৃত্তান্ত শ্রেণীবিন্যাস ও মানব কল্যাণে তাদের প্রয়োগ ইত্যাদি যাবতীয় বিষয় নিয়ে আলোচনা, পর্যালোচনা ও গবেষণা করা হয় তাকে প্রাণীবিজ্ঞান (Zoology) বলে।

উদ্ভিদ বিজ্ঞানঃ জীব বিজ্ঞানের যে শাখায় উদ্ভিদের আকার, আকৃতি, গঠন প্রকৃতি, আবাসস্থল, স্বভাব, পূর্ণ জীবনবৃত্তান্ত শ্রেণীবিন্যাস ও মানব কল্যাণে তাদের প্রয়োগ ইত্যাদি যাবতীয় বিষয় নিয়ে আলোচনা, পর্যালোচনা ও গবেষণা করা হয় তাকে উদ্ভিদবিজ্ঞান (Botany) বলে।

জীববিজ্ঞান পাঠের গুরুত্ব লিখ।
জীববিজ্ঞানের শিক্ষাকে কাজে লাগিয়ে কৃষিক্ষেত্রে নানান উচ্চ ফলনশীল ধান, গম, ভুট্টা উদ্ভব করা সম্ভব হয়েছে। প্রাণী প্রজননকে কাজে লাগিয়ে অধিক দুগ্ধ প্রদানকারী গরু ও মহিষ উদ্ভব করা সম্ভব হয়েছে। অধিক পরিমাণ মাংস ও ডিম প্রদানকারী হাঁস ও মুরগি উৎপন্ন করা সম্ভব হয়েছে।

মাছ চাষেও ব্যাপক সাফল্য এসেছে। জীববিজ্ঞানের অবদানের ফলে একদিকে যেমন বিভিন্ন রোগের জীবাণু আবিষ্কৃত হয়েছে, তেমনি নানান দুরারোগ্য রোগ দমন করার জন্য বিভিন্ন রকমের অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধ সৃষ্টি করা সম্ভব হয়েছে।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x