তথ্য প্রযুক্তি
1 min read

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা কি? এর প্রকার ও বৈশিষ্ট্য

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা কি?

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (Artificial intelligence) হল একটি সফ্টওয়্যার প্রযুক্তি বা কম্পিউটার নিয়ন্ত্রিত রোবটের ক্ষমতা যা তৈরি করতে সাধারণত মানুষের বুদ্ধিমত্তা এবং বিচক্ষণতার প্রয়োজন হয়। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা মানুষের বুদ্ধিমত্তার অনুকরণের প্রোগ্রামকে বোঝায় যা মানুষের মতো চিন্তা করে এবং তাদের কার্যাবলী অনুকরণ করে।
যেমন স্ব-চালিত গাড়ি, গুগলের আলফাগো এবং আইবিএম এর ডিপ ব্লু সিস্টেম। এছাড়াও স্পিচ রিকগনিশন এবং ইমেজ রিকগনিশন ইত্যাদি কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার উদাহরণ। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার জনক হচ্ছে অ্যালান টুরিং।

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার প্রকারভেদ

কার্যকারিতার উপর ভিত্তি করে কৃত্রিম বৃদ্ধিমত্তাকে নিম্মোক্ত কয়েকটি ভাগে ভাগ করা হয়েছে। যেমন,
১. প্রতিক্রিয়াশীল মেশিন (Reactive Machines)
প্রতিক্রিয়াশীল মেশিনগুলো কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার সবচেয়ে প্রাথমিক প্রকারগুলোর অন্যতম।
এই ধরনের AI সিস্টেম ভবিষ্যতের কর্মের জন্য স্মৃতি বা অতীত অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করে না।
এই মেশিনগুলো শুধুমাত্র বর্তমান পরিস্থিতিতে ফোকাস করে এবং সম্ভাব্য সর্বোত্তম ক্রিয়া অনুসারে তাদের প্রতিক্রিয়া জানায়। আইবিএম এর ডিপ ব্লু সিস্টেম এবং গুগলের আলফাগো একটি প্রতিক্রিয়াশীল মেশিনের উদাহরণ।
২. সীমিত মেমরি (Limited Memory)
সীমিত মেমরি মেশিনগুলো অতীত অভিজ্ঞতা বা কিছু ডেটা অল্প সময়ের জন্য সংরক্ষণ করতে পারে। এই মেশিনগুলো শুধুমাত্র একটি সীমিত সময়ের জন্য সঞ্চিত ডেটা ব্যবহার করতে পারে।
স্ব-চালিত গাড়িগুলো সীমিত মেমরি সিস্টেমের উদাহরণ। এটি আশেপাশের গাড়িগুলোর গতি, অন্যান্য গাড়ির দূরত্ব, গতির সীমা এবং রাস্তায় নেভিগেট করার জন্য অন্যান্য তথ্য সংরক্ষণ করতে পারে।
৪. মনের তত্ত্ব (Theory of Mind)
থিওরি অফ মাইন্ড কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা মানুষের আবেগ, বিশ্বাস এবং মানুষের মতো সামাজিকভাবে যোগাযোগ করতে সক্ষম। যদিও, এই ধরণের AI মেশিন এখনও তৈরি হয়নি, তবে গবেষকরা এই জাতীয় AI মেশিনগুলো তৈরির জন্য প্রচুর প্রচেষ্টা এবং উন্নতি করছেন।
৪. স্ব-সচেতনতা (Self-Awareness)
স্ব-সচেতনতা AI হল কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার ভবিষ্যৎ। এই মেশিনগুলো সুপার বুদ্ধিমান হবে এবং তাদের নিজস্ব চেতনা, অনুভূতি এবং আত্ম-সচেতনতা থাকবে। এই মেশিনগুলো হবে মানুষের মনের চেয়েও স্মার্ট। স্ব-সচেতনতা এআই বাস্তবে এখনও বিদ্যমান নেই এবং এটি একটি অনুমানমূলক ধারণা।
ক্ষমতার উপর ভিত্তি করে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার প্রকার
১. সংকীর্ণ কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (Narrow Artificial intelligence)
ন্যারো কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা হল এক ধরণের এআই যা বুদ্ধিমত্তার সাথে একটি নিবেদিত কাজ সম্পাদন করতে সক্ষম। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার জগতে সবচেয়ে সাধারণ এবং বর্তমানে উপলব্ধ এআই হল ন্যারো এআই। সংকীর্ণ এআই তার ক্ষেত্র বা সীমাবদ্ধতার বাইরে কাজ করতে পারে না, কারণ এটি শুধুমাত্র একটি নির্দিষ্ট কাজের জন্য প্রশিক্ষিত। তাই একে দুর্বল এআইও বলা হয়।
এপল সিরিজ ‍হল ন্যারো এআই-এর একটি ভালো উদাহরণ। আইবিএম-এর ওয়াটসন সুপার কম্পিউটারটিও ন্যারো কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার, কারণ এটি মেশিন লার্নিং এবং প্রাকৃতিক ভাষা প্রক্রিয়াকরণের সাথে মিলিত একটি বিশেষজ্ঞ সিস্টেম পদ্ধতি ব্যবহার করে। ন্যারো এআই-এর কিছু উদাহরণ হল দাবা খেলা, ই-কমার্স সাইট থেকে সাজেশন কেনা, সেলফ-ড্রাইভিং কার, স্পিচ রিকগনিশন এবং ইমেজ রিকগনিশন।
২. সাধারণ কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (General Artificial intelligence)
জেনারেল এআই হল এমন এক ধরনের বুদ্ধিমত্তা যা মানুষের মতো দক্ষতার সাথে যেকোনো বুদ্ধিবৃত্তিক কাজ সম্পাদন করতে পারে। বর্তমানে, এমন কোনো ব্যবস্থা নেই যা সাধারণ AI-এর অধীনে আসতে পারে এবং মানুষের মতো নিখুঁতভাবে যেকোনো কাজ সম্পাদন করতে পারে। বিশ্বব্যাপী গবেষকরা এখন জেনারেল এআই দিয়ে মেশিন তৈরির দিকে মনোনিবেশ করছেন। তবে, এটি এখনও গবেষণাধীন রয়েছে এবং এই জাতীয় সিস্টেমগুলো বিকাশ করতে অনেক প্রচেষ্টা এবং সময় লাগবে।
৩. সুপার কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (Super Artificial intelligence)
সুপার এআই হল কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার একটি স্তর যেখানে মেশিনগুলো মানুষের বুদ্ধিমত্তাকে ছাড়িয়ে যেতে পারে এবং জ্ঞানীয় বৈশিষ্ট্যগুলোর সাথে মানুষের চেয়ে যে কোনও কাজ ভালভাবে সম্পাদন করতে পারে।
সুপার এআই এর কিছু মূল বৈশিষ্ট্যের মধ্যে রয়েছে ধাঁধা সমাধান, বিচার বিবেচনা, পরিকল্পনা, শেখা এবং নিজে থেকেই যোগাযোগ করতে পারার সক্ষমতা। সুপার এআই এখনও কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার একটি অনুমানমূলক ধারণা।
5/5 - (16 votes)