তথ্য প্রযুক্তি

ইন্টারনেট কি | What is Internet.

1 min read

ইন্টারনেট

ইন্টারনেট(Internet) হলো পৃথিবীব্যাপী বিস্তৃত কম্পিউটার গুলো সমষ্টিগত  নেটওয়ার্ক যা  জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত।

যেকোনো কম্পিউটার চাইলেই এই নেটওয়ার্কে প্রবেশ করতে পারে এবং নির্দিষ্ট ইন্টারনেট প্রটোকল ব্যবহার করে ডাটা আদান-প্রদান করতে পারে।

অনেকে ইন্টারনেট এবং  world-wide-web কে গুলিয়ে ফেলতে পারে

কিন্তু এই ইন্টারনেট হল একটি নেটওয়ার্ক ব্যবস্থা যাকে আমরা একটা জাল রূপে কল্পনা করতে পারি।

world-wide-web একটি তথ্যভান্ডার প্রবেশক, যেটি ইন্টারনেট ব্যবহার করে সহজেই আমরা  ওয়েব সাইট পরিদর্শন করতে পারি।

ইন্টারনেট শব্দের অর্থ হচ্ছে অন্তর জাল। ইন্টার্নেট এর পূর্ণরূপ ইন্টারকানেক্টেড নেটওয়ার্ক।

এটি একটি গেটওয়ে  বা রাউটার যার মাধ্যমে বিশ্বের সকল কম্পিউটার নেটওয়ার্ককে সংযুক্ত করে। ইন্টারনেটকে আমরা নেটও  বলে থাকি।

ইন্টার কানেক্টটেড নেটওয়ার্ক বলতে- এমন একটি বিশেষ জাল সদৃশ নেটওয়ার্ককে বুঝায় যা সারা বিশ্বে সকল কম্পিউটার নেটওয়ার্ককে একটি অপরটির সাথে যুক্ত করেছে।

ইন্টারনেটের ইতিহাস – History Of Internet

ইন্টারনেট(Internet) কোন ব্যক্তি একা আবিষ্কার করতে পারেনি।

১৯৬০এর  দশকে আমেরিকান সামরিক বাহিনীর গবেষণা সংস্থা “অ্যাডভান্সড রিসার্চ প্রজেক্ট এজেন্সি” প্রথমে কিছু বিশ্ববিদ্যালয় ও গবেষণাগারের যোগাযোগের জন্য একটি নেটওয়ার্ক তৈরি করে যা তখন আর্পানেট নামে পরিচিত ছিল।

১৯৮৯  সালের পরের দিকে একটি আইএসপি দ্বারা উন্মুক্ত করে দেয়া হয় এবং পশ্চিমা বিশ্বে তখন ব্যাপক ব্যবহার শুরু হয় ইন্টারনেটের ।

শুরুর দিকে ইন্টারনেটের ব্যবহার সারাবিশ্বে ছড়িয়ে পড়তে পারেনি।

এর প্রধান কারণ ছিল এর ব্যবহার সুবিধা কম ছিল এবং বোধগম্য হওয়ার মত বিষয় ছিল না।

কিন্তু ১৯৮৯ সালের টিম বার্নার্স লি world-wide-web তৈরির পর সারাবিশ্বে এর জনপ্রিয়তা বহুলাংশে বৃদ্ধি পায়।

ফলে ইন্টারনেট ব্যবহার হয়ে যায় আরও সহজ।

World Wide Web (www) কি

ইন্টারনেটে যে হাইপারটেক্সট ডকুমেন্টের থাকে সেগুলো নিয়ে কাজ করে ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েব।

হাইপারটেক্সট ডকুমেন্টের মাঝে ছবি অডিও ভিডিও বা বিভিন্ন লেখা থাকতে পারে সেগুলো আদান-প্রদানের কাজে world-wide-web কাজ করে ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েবের মাধ্যমে সহজেই ডাটা আদান-প্রদান করতে পারি ।

১৯৯০ সালের টিম berners-lee কর্তৃক প্রকাশিত এক প্রস্তাবনায় তিনি উল্লেখ করেন, হাইপারটেক্সট কে-লিংক হিসেবে ব্যবহার করে  ও ওয়েব হতে বিভিন্ন তথ্য সংগ্রহের মাধ্যমে হিসেবে ব্যবহার করে একজন ব্যবহারকারী তার ইচ্ছামত বিভিন্ন ওয়েবসাইট পরিভ্রমণ করতে পারেন।

ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েবের সহজ ব্যবহার ও সাবলীলতার জন্য বিশ্বে ইন্টারনেট বহুল জনপ্রিয়তা পেয়েছে।

ইন্টারনেটের(Internet) ব্যাপারে জানাটা কেন জরুরি ?

বর্তমান বিশ্বে ইন্টারনেটের ব্যবহার এতটাই প্রভাব বিস্তার করেছে যে কেউ ইন্টারনেটের ব্যবহার না জানলে সে বর্তমান বিশ্বে থেকে কয়েক বছর পিছিয়ে আছে বলে ধরা হয়।

এই জন্য প্রতিটি মানুষের ইন্টারনেট এবং ইন্টারনেট ব্যবহার সম্পর্কে জানা অত্যাবশ্যক।

  • বর্তমানে জ্ঞান অর্জনের জন্য ইন্টারনেট অতি সুলভ একটি মাধ্যম বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের বিভিন্ন জিনিস সম্পর্কে জ্ঞান অর্জন করা যায় ইন্টারনেটে পাওয়া তথ্য অনুসারে।
  • বাস্তবে প্রাতিষ্ঠানিক জ্ঞান ইন্টারনেটের মাধ্যমে সবচেয়ে বেশি প্রসার ঘটেছে।
  • আমাদের প্রাত্যহিক জীবনের ছোটখাট সমস্যা গুলোকে আমরা সহজেই ইন্টারনেট ভিডিও আর্টিকেল পড়ে সমাধান করে নিতে পারছি।
  • ইন্টারনেট ব্যবস্থা যোগাযোগ মাধ্যমের এক যুগান্তকারী বিপ্লব এনেছে। ইন্টারনেট ব্যবহার করে আমরা পৃথিবীর এক প্রান্তে বসে অপরপ্রান্তে মানুষের সাথে সহজেই যোগাযোগ করতে পারছি।
  • তারচেয়েও বড় কথা এটির মাধ্যমে আমরা বিনামূল্যে যোগাযোগ করতে পারছি।
  • বর্তমান সময়ে অফিস-আদালতে ইন্টারনেট ব্যবহার করা হয়। যার ফলে  এটি সম্পর্কে ধারণা রাখা প্রত্যেক মানুষের জন্য অত্যাবশ্যক হয়ে দাঁড়িয়েছে।
5/5 - (33 votes)
Mithu Khan

I am a blogger and educator with a passion for sharing knowledge and insights with others. I am currently studying for my honors degree in mathematics at Govt. Edward College, Pabna.