গ্রিক দার্শনিক এরিস্টটল বলেন – “মানুষ সমাজিক জীব। যে সমাজে বাস করে না, সে হয় পশু না হয় দেবতা।” মানুষ সমাজেই বাস করে, জন্মগ্রহণ করে, বেড়ে উঠে এবং এখানেই তার চিন্তাচেতনা ও ধ্যান-ধারণার বহিঃপ্রকাশ ঘটায়। সমাজ জীবনে মানব আচরণ পরিমাপ ও নিয়ন্ত্রণের যেসকল মানদণ্ড বা আদর্শ রয়েছে তার মাঝে অন্যতম হলো মূল্যবোধ। এর দ্বারা ব্যক্তি ও সমাজের মাঝে সম্পর্ক নির্ণিত হয়। এক কথায় এটি মানব আচরণের অলিখিত দলিল। চলুন তাহলে মূল্যবোধ কাকে বলে? মূল্যবোধের বৈশিষ্ট্য, প্রকারভেদ ও উৎস কি? এগুলো সম্পর্কে জেনে নেই।

মূল্যবোধ কি বা কাকে বলে?

মূল্যবোধের ইংরেজি প্রতিশব্দ হলো Value. এটি তিনটি ল্যাটিন শব্দের ব্যুৎপত্তিগত অর্থের ভিত্তিতে গঠিত হয়েছে। এগুলো হলো –

  1. Vale (অর্থাৎ Strength বা শক্তি)
  2. Val (অর্থাৎ Worth বা মূল্য)
  3. Valu (অর্থাৎ, Valor বা সাহস, পরাক্রমা, বিক্রম, শৌর্য)

সুতরাং শব্দগুলোর সামষ্টিক অর্থ হলো, “সব উত্তম জিনিস।”

মূল্যবোধ কথার অর্থ হলো মূল্যবান, মর্যাদাবান বা শক্তিশালী হওয়া।

সাধারণভাবে বলা যায়, যেসকল চিন্তা ভাবনা, লক্ষ্য, উদ্দেশ্য, সংকল্প ও আদর্শ মানুষের সামগ্রিক আচার-আচরণ ও কর্মকান্ডকে পরিচালিত ও নিয়ন্ত্রিত করে, তাদের সমষ্টিকেই মূল্যবোধ বলে।

আবার বলা যায়, মানুষের আচার-আচরণ, ধ্যান-ধারণা, চাল-চলন ইত্যাদি নিয়ন্ত্রণ করার মাপকাঠি হলো মূল্যবোধ।

সমাজবিজ্ঞানী ডেবিড পোপেনো (David Popenoe) বলেছেন, “ভালো-মন্দ, ঠিক-বেঠিক, কাঙ্ক্ষিত-অনাকাঙ্ক্ষি বিষয় সম্পর্কে সমাজের সদস্যদের যে ধারণা, তার-ই নাম মূল্যবোধ।”

এস. ডব্লিউ পামফ্রে এর মতে, “মূল্যবোধ হচ্ছে ব্যক্তি বা সমাজিক দলের অভিপ্রেত ব্যবহারের সুবিন্যস্ত প্রকাশ।”

সমাজবিজ্ঞানী এফ. ই. স্পেন্সার বলেছেন, “মূল্যবোধ হলো একটি মানদণ্ড, যা আচরণের ভালো-মন্দ বিচারের এবং সম্ভাব্য বিভিন্ন লক্ষ্য হতে কোনো একটি পছন্দ করার ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়।”

M.R. William এর মতে, “মূল্যবোধ মানুষের ইচ্ছার একটি প্রধান মানদণ্ড।”

অ্যান্থনি জি ক্যাটান্স এর মতে, “কোন সত্তা বা বিশ্বাসের অন্তর্নিহিত মূল্য হলো মূল্যবোধ।”

স্টুয়ার্ড সি.ডড এর মতে, “সামাজিক মূল্যবোধ হলো সেসব রীতিনীতির সমষ্টি, যা ব্যক্তি সমাজের নিকট হতে আশা করে এবং যা সমাজ ব্যক্তির নিকট হতে লাভ করে।”

সমাজবিজ্ঞানী এফ. ই. মেরিল (F. E. Merril)-এর মতে, “সামাজিক মূল্যবোধ হলো বিশ্বাসের এক প্রকৃতি বা ধরন যা গোষ্ঠীগত কল্যাণে সংরক্ষণ করাকে মানুষ গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করে।”

সুতরাং বলা যায় যে, মানুষের সামগ্রিক সামাজিক জীবনাচারের অপরিহার্য অংশই হচ্ছে মূল্যবোধ।

মূল্যবোধের বৈশিষ্ট্য

  • মানুষের কর্মকাণ্ডের ভালো মন্দ বিচার করার ভিত্তিই হলো মূল্যবোধ।
  • এটি ব্যক্তি ও সমাজ উভয় ক্ষেত্রে বিকাশ লাভ করে।
  • এটি প্রতিষ্ঠা করা যায় না, এটি ধীরে ধীরে গড়ে উঠে।
  • মূল্যবোধ কোন আইন নয়। এর বিরোধিতা বেআইনি নয়।
  • মূল্যবোধ ভাঙলে বা অমান্য করলে কোন শাস্তি হয় না।
  • এটি সমাজ কাঠামোর অবিচ্ছেদ্য উপাদান।
  • এটি এক প্রকার সামাজিক নৈতিকতা।
  • মূল্যবোধকে সুদৃঢ় করার অন্যতম প্রধান উপায় হলো শিক্ষা।
  • এটি সমাজকে সক্রিয় বৈশিষ্ট্য দান করে।
  • এর ভিত্তি হচ্ছে সামাজিক মানুষের নৈতিকতা।
  • ব্যক্তিজীবনে গাইডলাইন হিসেবে মূল্যবোধ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।
  • এটি সমাজের বৃহৎ অংশ দ্বারা অনুমোদিত।
  • মূল্যবোধের অগ্রগতির সূচকে সমাজিক উন্নয়ন নির্ধারিত হয়।
  • এক প্রজন্ম থেকে অন্য প্রজন্মের মাঝে সেতুবন্ধ হিসেবে মূল্যবোধ কাজ করে।
  • এর দ্বারা সমাজের উৎকর্ষ নিরুপিত হয়।
  • মূল্যবোধ দ্বারা ভালো-মন্দ, ন্যায়-অন্যায়, নৈতিকতা- অনৈতিকতা,সততা, সৌজন্যবোধ, শিষ্টাচার, সহনশীলতা, সহমর্মিতা ইত্যাদি মূল্যায়িত হয়।

মূল্যবোধের প্রকারভেদ

সার্বিকভাবে মূল্যবোধকে ২ ভাগে ভাগ করা যায়। এগুলো হলো –

  • ইতিবাচক মূল্যবোধ
  • নেতিবাচক মূল্যবোধ / মূল্যবোধের অবক্ষয়

ইতিবাচক মূল্যবোধঃ যে সকল মূল্যবোধ ব্যক্তি, সমাজ ও রাষ্ট্রের জন্য কল্যাণকর তাকে, ইতিবাচক মূল্যবোধ বলে।

নেতিবাচক মূল্যবোধঃ এ মূল্যবোধের অন্য নাম হলো মূল্যবোধের অবক্ষয়। যে সকল মূল্যবোধ ব্যক্তি, সমাজ ও রাষ্ট্রের জন্য কল্যাণকর তাকে, নেতিবাচক মূল্যবোধ বলে।

বৃহত্তর সমাজে মানুষের আচরণের ক্ষেত্রের বৈচিত্র্যতার প্রেক্ষাপটে মূল্যবোধকে আবার বিভিন্ন ভাগে ভাগ করা যায়। যথাঃ

  • সামাজিক মূল্যবোধ
  • অর্থনৈতিক মূল্যবোধ
  • নৈতিক মূল্যবোধ
  • ধর্মীয় মূল্যবোধ
  • শারীরিক ও বিনোদনমূলক মূল্যবোধ
  • সাংস্কৃতিক মূল্যবোধ
  • বৌদ্ধিক মূল্যবোধ
  • গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ
  • ব্যক্তিগত মূল্যবোধ
  • বাহ্যিক মূল্যবোধ
  • আধুনিক মূল্যবোধ ইত্যাদি।

সামাজিক মূল্যবোধ

সামাজিক মূল্যবোধঃ সুস্থ সমাজিক জীবনযাপনের জন্য সমাজজীবনে সম্পাদিত আচরণের আদর্শগত দিককেই সামাজিক মূল্যবোধ বলে। যেমন – আতিথেয়তা।

নিকোলাস রেসার এর মতে, “সামাজিক মূল্যবোধ বলতে সেসব গুণাবলিকে বুঝায় যা ব্যক্তি নিজের সহকর্মীদের মাঝে দেখে আনন্দিত হয় এবং নিজের সমাজ, জাতি ও পরিবেশের পক্ষে মূল্যবান মনে করে খুশি হয়।”

ক্লাইভ ক্লুখোন এর মতে, “সমাজিক মূল্যবোধ হলো সেসব প্রকাশ্য ও অনুমেয় আচার-আচরণের ধারা যা ব্যক্তি ও সমাজের মূল বৈশিষ্ট্য হিসেবে স্বীকৃত।”

সামাজিক মূল্যবোধ সমাজজীবনে মানুষের আচরণ বিচারের মানদন্ড। তাছাড়া এটি সভ্যতা, সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য বিকাশে অবদান রাখে। এর ভিত্তি হলো শিষ্টাচার, সততা ও ন্যায়পরায়ণতা।

অর্থনৈতিক মূল্যবোধ

অর্থনৈতিক মূল্যবোধঃ অর্থনৈতিক দিক থেকে মানব আচরণের যে অংশ প্রভাবিত হয় তার আদর্শগত দিককে অর্থনৈতিক মূল্যবোধ বলা হয়।

নৈতিক মূল্যবোধ

নৈতিক মূল্যবোধঃ কোন ব্যক্তির জীবনে উচিত-অনুচিত, ভালো-মন্দ, ন্যায়-অন্যায় বিচারের যে মূল্যবোধ তাকে নৈতিক মূল্যবোধ বলে। এটি মানুষের বিবেককে জাগ্রত করে এবং ব্যক্তি মানুষকে চরম ত্যাগ স্বীকারে উদ্বুদ্ধ করে।

ধর্মীয় মূল্যবোধ

ধর্মীয় মূল্যবোধঃ পৃথিবীর সকল ধর্মের প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন, অপরের ধর্ম মতকে শ্রদ্ধা করা, অন্যের ধর্ম পালনে বাধা প্রদান না করা, রাষ্ট্রীয়ভাবে কোন ধর্মকে শ্রেষ্ঠ না ভাবা এবং বিশেষ সুবিধা প্রদান না করাই হলো ধর্মীয় মূল্যবোধ।

শারীরিক মূল্যবোধ

শারীরিক মূল্যবোধঃ কোন ব্যক্তির পরিষ্কার, পরিচ্ছন্নতা, পোশাক-পরিচ্ছদ, চলাফেরা, হেয়ার স্টাইল, সরলতা, সাহসিকতা ইত্যাদি হলো বাহ্যিক বা শারীরিক মূল্যবোধ।

গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ

গণতান্ত্রিক মূল্যবোধঃ গণতান্ত্রিক আদর্শ ও রীতিনীতি অনুশীলনের আদর্শিক দিকই হলো গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ। সুশাসন প্রতিষ্ঠায় এটি অপরিহার্য। এটি গণতন্ত্রকে সফলতা দান করে, নাগরিকের ব্যক্তিত্বের বিকাশ ঘটায় ও নাগরিকদের সহানুভূতিশীল হতে শেখায়। তাছাড়া এটি আইনের শাসনকে শক্তিশালী করে তোলে।

রাজনৈতিক মূল্যবোধ

রাজনৈতিক মূল্যবোধঃ যেসব লক্ষ্য, উদ্দেশ্য, সংকল্প, ধ্যান-ধারণা দ্বারা মানুষের রাজনৈতিক আচার-আচরণ ও কর্মকান্ড নিয়ন্ত্রিত ও প্রভাবিত হয়, সেগুলোর সমষ্টিই হলো রাজনৈতিক মূল্যবোধ।

প্রাতিষ্ঠানিক মূল্যবোধ

প্রাতিষ্ঠানিক মূল্যবোধঃ প্রতিটি মানুষই কর্মজীবী এবং তাকে শিক্ষা লাভ করতে হয়, এটিই প্রাতিষ্ঠানিক মূল্যবোধ।

বুদ্ধিবৃত্তিক মূল্যবোধ কাকে বলে?

বুদ্ধিবৃত্তিক মূল্যবোধঃ বাস্তবিক পর্যবেক্ষণ, অবলোকন ও প্রত্যক্ষণের মাধ্যমে কোন বিষয় বা বস্তুকে সঠিকভাবে চেনার বা বুঝার সামর্থ্যকে বুদ্ধিবৃত্তিক মূল্যবোধ বলে। অর্থাৎ কোন বিষয়কে বাস্তবিকভাবে বুঝার সামর্থ্য হচ্ছে বুদ্ধিবৃত্তিক মূল্যবোধ।

মূল্যবোধের উৎস ও বিকাশ

মূল্যবোধ গড়ে উঠার পেছনে উৎস ভূমি হিসেবে যেসব বিষয় সহায়ক ভূমিকা পালন করে সেগুলো হল :

  • পরিবার
  • ধর্ম
  • সামাজিক রীতিনীতি
  • প্রথা
  • শিক্ষা প্রতিষ্ঠান
  • আইন
  • নীতিবোধের চর্চা
  • সামাজিক সংগঠন ও প্রতিষ্ঠান
  • সভা-সমিতি
  • সামাজিক ন্যায় বিচার ইত্যাদি।

শিশুর মূল্যবোধ শিক্ষার প্রাথমিক শিক্ষাকেন্দ্র হলো – পরিবার। পরিবার থেকেই একটি শিশু প্রাথমিক মূল্যবোধ শিখে। মানুষের নৈতিক ও আধ্যাত্মিক মূল্যবোধ বিকাশে ধর্ম সবচেয়ে বেশি প্রভাব বিস্তার করে। তাছাড়া মূল্যবোধের প্রধানতম প্রাতিষ্ঠানিক উৎস হলো শিক্ষালয়।

মূল্যবোধের ভিত্তি বা উপাদান

মূল্যবোধ একটি আপেক্ষিক ধারণা। সমাজভেদে তা ভিন্ন হয়। তাই কোন সমাজে কোন কোন নীতিমালা মূল্যবোধের ভিত্তি বা উপাদান হবে তা নির্ধারণ করা বেশ কঠিন। তবে তা স্বত্বেও সাধারণভাবে একটি গণতান্ত্রিক সমাজে মূল্যবোধ গঠনের সহায়ক হিসেবে কিছু ভিত্তি বা উপাদানকে সার্বজনীন হিসেবে গণ্য করা হয়। নিম্নে কয়েকটি দেওয়া হলো –

  1. নীতি ও ঔচিত্যবোধ
  2. ন্যায় বিচার
  3. আইনের শাসন
  4. শৃঙ্খলাবোধ
  5. সৃজনশীলতা
  6. সচেতনতা ও কর্তব্য
  7. জবাবদিহিতা
  8. সহমর্মিতা
  9. শ্রমের মর্যাদা
  10. সরকার ও রাষ্ট্রের জনকল্যাণমুখীতা

মূল্যবোধের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হলো নীতি ও ঔচিত্যবোধ। ন্যায়-অন্যায়, পাপ-পুণ্য, ভালো-মন্দ, বৈধ-অবৈধ, উচিত-অনুচিত ইত্যাদি বিষয়ক মানসিক ধারণকে নীতি ও ঔচিত্যবোধ বলা হয়। এটি বুদ্ধিমান ও নম্র মানুষ তৈরি করতে সাহায্য করে।

তাছাড়া মানবিক গুণাবলির মাঝে সহনশীলতা শ্রেষ্ঠতম গুণ। সমাজ জীবনের অগ্রগতি ও উন্নয়নের প্রধান ভিত্তি বা উপাদান হলো শৃঙ্খলাবোধ। শ্রমের মর্যাদা সমাজের অগ্রযাত্রা ও উন্নয়ন নিশ্চিত করে।

এছাড়া সুখী ও সুন্দর সমাজ গঠনে সহনশীলতা সাহায্য করে। গ্রহণ ও শ্রদ্ধার শিক্ষাকে আত্মসংযম বলা হয়। তাছাড়া মূল্যবোধের অন্যতম আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হলো আইনের শাসন এবং যার যা প্রাপ্য তা প্রদান করাই হলো ন্যায়বিচার।

মূল্যবোধ নিয়ে বিভিন্ন প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষার প্রশ্নোত্তর

১. মূল্যবোধের ধারণাটি –

  • আপেক্ষিক
  • সার্বজনীন
  • শাশ্বত
  • একটিও নয়

উত্তরঃ আপেক্ষিক

২. সমাজ কাঠামোর অবিচ্ছেদ্য উপাদান কোনটি?

  • সুশাসন
  • মূল্যবোধ
  • নৈতিকতা
  • আইনের শাসন

উত্তরঃ মূল্যবোধ

৩. কোন দেশের মূল্যবোধ অনেক পুরাতন?

  • যুক্তরাজ্য
  • আমেরিকা
  • ইসরাইল
  • ভারত

উত্তরঃ যুক্তরাজ্য

৪. সামাজিক মূল্যবোধের ভিত্তি কি?

  • আইনের শাসন
  • সাম্য
  • নৈতিকতা
  • সবগুলো

উত্তরঃ সবগুলো

৫. আমাদের চিরন্তন মূল্যবোধ কোনটি?

  • সত্য ও ন্যায়
  • সার্থকতা
  • শঠতা
  • অসহিষ্ণুতা

উত্তরঃ সত্য ও ন্যায়

৬. কোন ভাষা থেকে Education শব্দটির উৎপত্তি হয়েছে?

  • গ্রিক
  • ফরাসি
  • লাতিন
  • জার্মান

উত্তরঃ লাতিন

৭. নৈতিক মূল্যবোধের উৎস কো টি?

  • সমাজ
  • রাষ্ট্র
  • নৈতিক চেতনা
  • ধর্ম

উত্তরঃ ধর্ম

৮. সরকারি সিদ্ধান্ত প্রণয়নে কোন মূল্যবোধটি গুরুত্বপূর্ণ নয়?

  • বিশ্বস্ততা
  • নিরপেক্ষতা
  • সৃজনশীলতা
  • জবাবদিহিতা

উত্তরঃ সৃজনশীলতা

৯. মূল্যবোধের গুরুত্বপূর্ণ বৈশিষ্ট হলো –

  • বিভিন্নতা
  • আপেক্ষিক
  • পরিবর্তনশীলতা
  • সবগুলো

উত্তরঃ সবগুলো

১০. মূল্যবোধ (Values) কি?

  • মানুষের আচরণ পরিচালনাকারী নীতি ও মানদণ্ড
  • শুধুমাত্র মানুষের প্রাতিষ্ঠানিক কার্যাদি নির্ধারণের দিকনির্দেশনা
  • সমাজজীবনে মানুষের সুখী হওয়ার প্রয়োজনীয় মনোভাব
  • মানুষের সাথে মানুষের পারস্পরিক সম্পর্ক নির্ধারণ

উত্তরঃ মানুষের আচরণ পরিচালনাকারী নীতি ও মানদণ্ড

১১. বড়দের সম্মান করা, দানশীলতা, শ্রমের মর্যাদা ইত্যাদি কোন মূল্যবোধ?

  • সমাজিক
  • ব্যক্তিগত
  • পারিবারিক
  • পেশাগত

উত্তরঃ সমাজিক

১২. কোন মূল্যবোধ রাষ্ট্র, সরকার ও গোষ্ঠী কর্তৃক স্বীকৃত?

  • সামাজিক মূল্যবোধ
  • ইতিবাচক মূল্যবোধ
  • নৈতিক মূল্যবোধ
  • গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ

উত্তরঃ ইতিবাচক মূল্যবোধ

১৩. আইনের ভিত্তিস্বরূপ কোনটি?

  • মূল্যবোধ
  • সুশাসন
  • পরিবার
  • শিক্ষা -প্রতিষ্ঠান

উত্তরঃ মূল্যবোধ

১৪. শিশু প্রথম নৈতিক মূল্যবোধের শিক্ষা পায় –

  • পরিবারে
  • রাষ্ট্রে
  • সমাজে
  • বিদ্যালয়ে

উত্তরঃ পরিবারে

১৫. পেশাগত মূল্যবোধ কোনটি?

  • ব্যক্তির মূল্য ও মর্যাদার স্বীকৃতি
  • বড়দের সম্মান করা
  • একতা, সমবায়
  • গণতান্ত্রিক অধিকার

উত্তরঃ ব্যক্তির মূল্য ও মর্যাদার স্বীকৃতি

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x