চাহিদার সাথে দামের একটি ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে। কোন দ্রব্যের দাম বাড়লে চাহিদা কমে এবং দাম কমলে চাহিদা বাড়ে। দ্রব্যের দাম ও চাহিদার মধ্যে সম্পর্ককে চাহিদা বিধি বলে।

বিধিটিতে বলা হয়, ক্রেতার রুচি ও পছন্দ, অভ্যাস, আর্থিক আয়, ক্রেতার সংখ্যা, অন্যান্য দ্রব্যাদির দাম ইত্যাদি বিষয়গুলো অপরিবর্তিত থাকলে কোন দ্রব্যের চাহিদার পরিমাণ উচ্চ দামে কম হয় এবং স্বল্প দামে বেশি হয়।

চাহিদা বিধির ব্যতিক্রম

চাহিদা বিধিটির কতকগুলো ব্যতিক্রম রয়েছে। নিচে এগুলো সংক্ষেপে আলোচনা করা হলোঃ

১। উচ্চ মর্যাদা সম্পন্ন বা জাঁকজমকপূর্ণ দ্রব্যঃ কতকগুলো দ্রব্য আছে যেগুলো নিছক ভোগের জন্য ক্রয় করা হয় না; যেমন- মনি-মুক্তা, হীরক, দামি পাথর, উচ্চ মূল্যের অলংকার, মূল্যবান পোশাক ইত্যাদির ক্ষেত্রে দাম বৃদ্ধি পেলে মর্যাদা বৃদ্ধি পায়। ফলে তাদের চাহিদাও বৃদ্ধি পায়। এ সকল ক্ষেত্রে চাহিদা বিধিটি সাধারণত কার্যকর হয় না।

২। শেয়ার ও দ্রব্যের ফটকা বাজারে লেনদেনঃ শেয়ার বাজারে দেখা যায় শেয়ারের দাম বৃদ্ধি পেলে তা আরও বৃদ্ধি পাবে এ আশায় ক্রেতারা অধিক সংখ্যক শেয়ার ক্রয় করে। সুতরাং চাহিদা বৃদ্ধি পায়। একইভাবে কোন কোম্পানির শেয়ারের দাম হ্রাস পেতে থাকলে সাধারণত চাহিদা আরও হ্রাস পায়।

৩। রুচি ও অভ্যাসের পরিবর্তনঃ মানুষের রুচি, পছন্দ, অভ্যাস প্রভৃতির পরিবর্তন ঘটলে চাহিদা বিধিটি কার্যকরী হবে না। লোকের রুচির পরিবর্তনের ফলে রেডিও বা টেলিভিশনের চাহিদা বাড়ছে। এসব ক্ষেত্রে দাম বৃদ্ধি পেলেও চাহিদা বৃদ্ধি পায়।

৪। পরিস্থিতি বা পরিবেশের পরিবর্তনঃ পরিস্থিতি বা পরিবেশের পরিবর্তন ঘটলে চাহিদা বিধি কার্যকরী হয় না। যেমন, কলেরার প্রাদুর্ভাব হলে মাছের দাম যদি কমেও যায় তবু চাহিদা বাড়বে না।

৫। ভোগকারীর অজ্ঞতাঃ কোন কোন দ্রব্যের দাম বৃদ্ধি পেলেও অজ্ঞতাবশত ক্রেতাগণ একে মূল্যবান মনে করে অধিক পরিমাণে ক্রয় করে এবং দাম কমলে ঐ দ্রব্য নিকৃষ্ট মনে করে কম ক্রয় করে। এক্ষেত্রে চাহিদা বিধি কার্যকর হবে না।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x