যেসব খাদ্যে দেহের চাহিদা মেটানোর জন্য প্রয়োজনীয় ছয়টি উপাদানই পরিমাণমতো থাকে তাদেরকে সুষম খাদ্য বলে।

সুষম খাদ্য গ্রহণ করা প্রয়োজন কেন?
সুষম খাদ্যে খাদ্যের প্রয়োজনীয় সকল প্রকার পুষ্টি উপাদান পরিমাণ মতো থাকে। কর্মক্ষম থাকার জন্য আমাদের সঠিক পরিমাণ পুষ্টি উপাদান প্রয়োজন। প্রয়োজনীয় পুষ্টি গ্রহণ না করলে শরীর দুর্বল হয়ে পড়ে ও সহজে রোগে আক্রান্ত হয়। তাই আমাদের বয়স ও কাজের ধরণ অনুযায়ী সঠিক পরিমাণে সুষম খাদ্য গ্রহণ করা প্রয়োজন।

সুষম খাদ্যের বৈশিষ্ট্য

  1. একজন মানুষের বিপাকের জন্য প্রয়োজনীয় শক্তি উৎপাদনের সামর্থ্য থাকতে হবে।
  2. শর্করা, আমিষ ও চর্বি নির্দিষ্ট অনুপাতে পরিমাণ মতো গ্রহণ করা।
  3. খাদ্য প্রয়োজনীয় ভিটামিন ও রাফেজ বা সেলুলোজ সরবরাহের জন্য সুষম খাদ্য তালিকায় ফল ও টাটকা শাকসবজি থাকতে হবে।
  4. খাদ্য অবশ্যই প্রয়োজনীয় পরিমাণ পানি ও লবণ থাকতে হবে।
  5. সুষম খাদ্য অবশ্যই সহজপাচ্য হতে হবে।
    সুস্থ, সবল ও উন্নত জীবনযাপনের জন্য সুষম খাদ্যের কোনাে বিকল্প নেই। দেহের পরিপুষ্টির জন্য ছয় উপাদানবিশিষ্ট খাদ্য অন্তর্ভুক্ত করে সুষম খাদ্যের তালিকা বা মেনু পরিকল্পনা করা একটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। দেহের চাহিদা, খাদ্যের সহজলভ্যতা এবং পারিবারিক আয়, এ তিনটি বিষয় বিবেচনা করে খাদ্য উপাদান বাছাই বা মেনু পরিকল্পনা করলে তা বাস্তবমুখী হয়। কম দামি খাবার দিয়ে সমান পুষ্টিমানের মেনু পরিকল্পনা করা যায়; তাই সমমানের উপাদান-সংবলিত বেশি দামের খাদ্যের পরিবর্তে কম দামি খাদ্য নির্বাচন করে সুষম খাদ্য গ্রহণের মানসিকতা থাকা ভালাে।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x