সি এবং সি++ এর মধ্যে পার্থক্য নিচে দেওয়া হলোঃ

সি (C)
১. সি হলো একটি প্রসিডিউরাল প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজ।
২. রিজার্ভড কী ওয়ার্ডের সংখ্যা কম।
৩. ইনপুট এবং আউটপুট লাইব্রেরিভিত্তিক এবং ফাংশনসমূহের অন্তর্ভুক্ত মাধ্যমে এর সামগ্রিক প্রক্রিয়া পরিচালিত হয়।
৪. পলিমরফিজম এবং ইনহেরিটেন্স ওভারলোডিং সুবিধা নেই।
৫. সি কম্পাইলার দিয়ে সি++ কম্পাইল করা যায় না।
৬. scanf() – ইনপুট নেয়ার জন্য এ ফাংশন ব্যবহৃত হয়। এবং printf() – আউটপুট নেয়ার জন্য এ ফাংশন ব্যবহৃত হয়।
৭. প্রোগ্রাম ডিজাইনে টপ-ডাউন অ্যাপ্রোচ ব্যবহৃত হয়।
৮. গ্লোবাল ভেরিয়েবল-এর মাল্টিপল ডিক্লেয়ারেশন করা যায়।
৯. main() এর সাথে অন্যান্য ফাংশন কল করে।
১০. প্রিমিটিভ এবং বিল্ট-ইন ডেটা টাইপকে সাপোর্ট করে।

সি++ (C++)
১. সি++ হলো একটি অবজেক্ট অরিয়েন্টেড প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজ।
২. রিজার্ভড কী ওয়ার্ডের সংখ্যা বেশি।
৩. ইনপুট এবং আউটপুট এবং কমান্ডের মাধ্যমে গঠিত।
৪. পলিমরফিজম এবং ইনহেরিটেন্স ওভারলোডিং সুবিধা আছে।
৫. বেশিরভাগ সি++ কম্পাইলার দিয়ে সি কম্পাইল করা যায়।
৬. Cin>> – ইনপুট নেয়ার জন্য এ ফাংশন ব্যবহৃত হয়। এবং Cout<< – আউটপুট নেয়ার জন্য এ ফাংশন ব্যবহৃত হয়।
৭. প্রোগ্রাম ডিজাইনে বটম-আপ অ্যাপ্রোচ ব্যবহৃত হয়।
৮. গ্লোবাল ভেরিয়েবল-এর মাল্টিপল ডিক্লেয়ারেশন করার অনুমতি দেয় না।
৯. main() এর সাথে অন্যান্য ফাংশন কল করে না।
১০. বিল্ট-ইন এবং ইউজার ডিফাইন ডেটা টাইপকে সাপোর্ট করে।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x