পত্র লিখন কাকে বলে?

আমরা দূরে অবস্থানকারী আপনজনদের মধ্যে লেখার মাধ্যমে সংবাদ আদান-প্রদান করে থাকি। একজনের খবর অন্যজনের কাছে লিখে পাঠানোর এই পদ্ধতিকে পত্র লিখন বলে।

পত্র লিখন আধুনিক সভ্য সমাজে একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। সভ্যতার অগ্রগতির সঙ্গে সঙ্গে পত্র লিখনের প্রয়োজনীয়তা ও গুরুত্ব ব্যাপকভাবে অনুভূত হচ্ছে।

পত্র লিখনের নিয়মঃ

১। পত্রালাপের ভাষা হবে সহজ, সরল। দুর্বোধ্য ভাষা সযত্নে পরিহার করতে হবে।

২। পত্রের লেখা সুন্দর ও পরিষ্কার হওয়া চাই যেন পড়তে কোনো অসুবিধা না হয়।

৩। কথ্য বা সাধুভাষা— যে কোনো এক রীতি ব্যবহার করা উচিত।

৪। অল্প কথায় মনের ভাব প্রকাশ করবে এবং প্রয়োজনের অতিরিক্ত লেখা পত্রে থাকা উচিত নয়।

৫। একই কথার পুনরাবৃত্তি করা উচিত নয়।

৬। লেখার বিষয় সুদীর্ঘ হলে ভাব ও প্রকার অনুযায়ী অনুচ্ছেদ করে লেখা উচিত।

৭। পত্রের ভাব সহজভাবে বোঝার জন্য বিরাম বা ছেদ চিহ্নগুলো নির্দিষ্ট স্থানে বসাতে হবে।

রচনা লিখন কাকে বলে?

কোন একটি বিষয়কে ধারাবাহিকভাবে সাজিয়ে কয়েকটি অনুচ্ছেদে লিখে প্রকাশ করাকে রচনা লিখন বলে।

রচনা সাধারণত তিন প্রকার। যেমন–

ক. বর্ণনামূলক : গরু, বিড়াল, ধান, পাট, চা ইত্যাদি।

খ. ঘটনামূলক : বৈশাখী মেলা,  একুশে ফেব্রুয়ারি, ঈদ উৎসব ইত্যাদি।

গ. চিন্তামূলক : অধ্যবসায়, চরিত্র, সময়ের মূল্য ইত্যাদি।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x