b
প্রশ্ন-১. প্রোগ্রামের ভাষা কাকে বলে?

উত্তর : কম্পিউটার সিস্টেমে প্রোগ্রাম রচনার জন্য যে ভাষা ব্যবহার করা হয় তাকে প্রোগ্রামের ভাষা বলে।

প্রশ্ন-২. প্রোগ্রামের ভাষার স্তর কয়টি ও কি কি?

উত্তর : প্রোগ্রামের ভাষার স্তর পাঁচটি। যথা–

  1. প্রথম প্রজন্মের ভাষা : মেশিন ভাষা (Machine language)
  2. দ্বিতীয় প্রজন্মের ভাষা : অ্যাসেম্বলি ভাষা (Assembly language)
  3. তৃতীয় প্রজন্মের ভাষা : উচ্চতর ভাষা (High level language)
  4. চতুর্থ প্রজন্মের ভাষা : অতি উচ্চতর ভাষা (Very high level language)
  5. পঞ্চম প্রজন্মের ভাষা : স্বাভাবিক বা ন্যাচারাল ভাষা (Natural language)

প্রশ্ন-৩. প্রোগ্রাম কি?
উত্তর : প্রোগ্রাম হচ্ছে কম্পিউটারে কোনো সমস্যা সমাধানের জন্য ধারাবাহিকভাবে লিখিত কতগুলো কমান্ড বা নির্দেশের সমষ্টি।

প্রশ্ন-৪. অনুবাদক প্রোগ্রাম কাকে বলে?
উত্তর : যে প্রোগ্রাম কম্পিউটারের উৎস প্রোগ্রামকে যন্ত্রভাষায় অনুবাদ করে বস্তু প্রোগ্রামে পরিণত করে সে প্রোগ্রামকে অনুবাদক প্রোগ্রাম বলে।

প্রশ্ন-৫. উৎস প্রোগ্রাম কাকে বলে?

উত্তর : উচ্চস্তরের এবং অ্যাসেম্বলি ভাষায় রচিত প্রোগ্রামকে উৎস প্রোগ্রাম ভাষা বলে।

প্রশ্ন-৬. মেশিন কোড কি?
উত্তর : মেশিন কোড একটি কম্পিউটার প্রোগ্রাম যা কম্পিউটারের কেন্দ্রীয় প্রক্রিয়াকরণ ইউনিট (CPU) দ্বারা সরাসরি চালানো যায়।

 

 

প্রশ্ন-৭. কম্পাইলার কি?

উত্তর : কম্পাইলার হলো এক ধরনের অনুবাদক প্রোগ্রাম। এর কাজ হলো উচ্চস্তরের ভাষার উৎস প্রোগ্রামকে বস্তু প্রোগ্রামে অনুবাদ করা।

প্রশ্ন-৮. কম্পাইলার কিভাবে কাজ করে?

উত্তর : কম্পাইলার হাইলেভেলের ভাষাকে বস্তু প্রোগ্রামে অনুবাদ করে। এটি সাধারণত কম্পিউটারের সোর্স কোডকে মেশিন কোডে রূপান্তর করে। কম্পাইলার কাজ করার সময় সম্পূর্ণ প্রোগ্রাম একসাথে অনুবাদ করে এবং ডিবাগিং এর সময় এটি সবগুলো ভুল একসাথে তুলে ধরে বা প্রদর্শন করে।

প্রশ্ন-৯. অ্যালগরিদম কাকে বলে?

উত্তর : সমস্যা সমাধানের যুক্তিসম্মত ও পর্যায়ক্রমিক ধারা বর্ণনাকে অ্যালগরিদম বলে।

প্রশ্ন-১০. ফ্লোচার্ট কাকে বলে?

উত্তর : যে চিত্রের মাধ্যমে কোন সিস্টেম বা প্রোগ্রাম কীভাবে কাজ করবে তার গতিধারা নির্ধারণ করা হয় তাকে প্রবাহচিত্র বা ফ্লোচার্ট বলে।

প্রশ্ন-১১. সুডোকোড কি?

উত্তর : সুডো (Pseudo) গ্রিক শব্দ। সুডো শব্দের অর্থ হচ্ছে ছদ্ম বা কৃত্রিম। প্রোগ্রামের ধরন ও কার্যাবলি তুলে ধরার জন্য যে খসড়া তৈরি করা হয় তাকেই সুডোকোড বলা হয়।

সি (C) প্রোগ্রামে অপারেটর কত প্রকার ও কি কি?

উত্তর C প্রোগ্রামে বিভিন্ন ধরনের অপারেটর আছে। এই অপারেটরগুলোকে তাদের প্রকৃতি ও কার্য অনুযায়ী প্রধানত ৭ ভাগে ভাগ করা যায়। যথা–
১. অ্যারিথমেটিক অপারেটর (Arithmetic Operator)
২. রিলেশনাল অপারেটর (Relational Operator)
৩. লজিক্যাল অপারেটর (Logical Operator)
৪. অ্যাসাইনমেন্ট অপারেটর (Assignment Operator)
৫. কন্ডিশনাল অপারেটর (Conditional Operator)
৬. বিটওয়াইজ অপারেটর (Bitwise Operator)
৭. স্পেশাল অপারেটর (Special Operator)

প্রশ্ন-৩. যন্ত্রনির্ভর ভাষা বলতে কী বােঝায়?

উত্তর : যন্ত্রনির্ভর ভাষা বলতে ভিন্ন ভিন্ন কম্পিউটারে ব্যবহৃত ভিন্ন ভিন্ন ভাষাকে বােঝায়। যন্ত্রনির্ভর ভাষায় লিখিত প্রােগ্রাম যে কম্পিউটারের জন্য লেখা হয় তা শুধু এ কম্পিউটারেই কাজ করবে, তা অন্য কম্পিউটারে ব্যবহার করা যায় না। অ্যাসেম্বলি সে রকম একটি যন্ত্রনির্ভর ভাষা। ভিন্ন ভিন্ন কম্পিউটারের জন্য আ্যাসেম্বলি ভাষা ভিন্ন ভিন্ন হয়ে থাকে। যন্ত্রনির্ভরশীলতা অ্যাসেম্বলি ভাষার একটি বড় অন্তরায়।

প্রশ্ন-৪. CSS কি? CSS কেন ব্যবহার করা হয়?

উত্তর : CSS এর পূর্ণরূপ হচ্ছে– Cascading Style Sheet। এলিমেন্টসগুলো কিভাবে প্রদর্শিত হবে তার স্টাইলসমূহ নির্ধারণ করে দেয়। ওয়েবপেইজ লেআউট তৈরি করা ও সুন্দরভাবে ডিসপ্লে ভেরিয়শনের জন্য CSS ব্যবহার করা হয়।

প্রশ্ন-৫. বর্তমান বিশ্বে জাভা সবচেয়ে জনপ্রিয় প্রােগ্রামিংগুলাের মধ্যে অন্যতম কেন?

উত্তর : বর্তমান বিশ্বে জাভা সবচেয়ে জনপ্রিয় প্রােগ্রামিং ভাষাগুলাের অন্যতম হওয়ার কারণ হলাে এর বহনযােগ্যতা, নিরাপত্তা, অবজেক্ট ওরিয়েন্টেড প্রােগ্রামিং ও ওয়েব প্রােগ্রামিং-এর সুবিধা। ১৯৯১ সালে সান মাইক্রোসিস্টেম জাভা ডিজাইন করার পরে এটি অতি দ্রুত বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় প্রােগ্রামিং ভাষার একটিতে পরিণত হয়। এটি ওয়েব এপ্লিকেশন, সাধারণ প্রােগ্রাম ইত্যাদি বিভিন্ন ধরনের এপ্লিকেশন তৈরিতে ব্যবহৃত হয়। জাভার লেখা প্রােগ্রাম যেকোনাে অপারেটিং সিস্টেমে চালানাে যায় যদি সেই অপারেটিং সিস্টেমের জন্য একটি জাভা রানটাইম এনভায়রনমেন্ট থাকে। আর এই সুবিধাই জাভাকে জনপ্রিয় করেছে।

প্রশ্ন-৬. অ্যালগরিদম ল্যাগুয়েজকে সার্বজনীন ভাষা বলা হয় কেন?

উত্তর : সব কম্পিউটারে ব্যবহারযােগ্যতার জন্য অ্যালগরিদম ল্যাংগুয়েজকে সার্বজনীন ভাষা বলা হয়। আরবীয় গণিতবিদ আল খারিজমি তার গণিত বইতে সর্বপ্রথম ‘অ্যালগরিদম’ শব্দটি ব্যবহার করেন। এটি নির্দিষ্ট কোনাে সমস্যা সমাধানের জন্য একটা বিশেষ পন্থা। সব কম্পিউটারে ব্যবহারযােগ্য বৈজ্ঞানিক ও প্রকৌশলগত সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে সার্বজনীন ভাষা হিসেবে ১৯৫৮ সালে এর উদ্ভব ঘটে। তাই অ্যালগরিদম ল্যাংগুয়েজকে সার্বজনীন ভাষা বলা হয়।

প্রশ্ন-৭. C-কে General Purpose প্রােগ্রামিং ভাষা বলা হয় কেন?

উত্তর : C প্রােগ্রামিং ভাষাটি সাধারণত সবধরনের কাজের জন্য ব্যবহৃত হয় বলে একে General Purpose Programming Language বলা হয়। একজন প্রােগ্রামের যেসব সুবিধা দরকার, যেমন- বিভিন্ন ডেটা ব্যবহারের ব্যাপক স্বাধীনতা, স্বল্প সংখ্যক কী-ওয়ার্ড, দ্রুত ও দক্ষতার সাথে প্রােগ্রাম চালানাে এবং একই সাথে উচ্চ ও নিম্নস্তরের ভাষা সমন্বয় করা ইত্যাদি সব সুবিধাই C-তে আছে। তাই যে কোনাে ধরনের প্রােগ্রাম লিখতে C ভাষা ব্যবহার করা হয়। প্রতিটি C প্রােগ্রামের শুরুতে main () ফাংশনটি ব্যবহার করা হয়।

প্রশ্ন-৮. C++ এ উচ্চস্তর এবং নিম্নস্তরের ভাষাগুলাের সুবিধা সংযুক্ত আছে কেন?

উত্তর : C++ একটি মধ্যম স্তরের প্রােগ্রামিং ভাষা তাই এতে উচ্চস্তর এবং নিম্নস্তরের ভাষাগুলাের সুবিধা সংযুক্ত আছে।

C++ এক ধরনের অবজেক্ট ওরিয়েন্টেড প্রােগ্রামিং ভাষা। মূলত সিমূলা ৬৭ এবং C প্রােগ্রামিং ভাষার সুবিধাজনক বৈশিষ্ট্যগুলাের সমন্বয় সাধন করে C++ তৈরি করা হয়েছে। এটি জনপ্রিয় প্রােগ্রামিং ভাষা এবং সফটওয়্যার শিল্পে বহুল ব্যবহৃত হয়। যেমন সিস্টেম সফটওয়্যার, বিনােদন সফটওয়্যার ইত্যাদি ক্ষেত্রে C++ ব্যবহৃত হয়।

প্রশ্ন-৯. অ্যাডা (Ada) কি?

উত্তর : আমেরিকার প্রতিরক্ষা দপ্তরের জন্য রচিত একটি আদর্শ উচ্চস্তরের প্রোগামিং ল্যাঙ্গুয়েজ। বিখ্যাত ইংরেজ কবি লর্ড বায়রনের কন্যা অ্যাডা লাভলেসের নামানুসারে এ প্রোগামিং ভাষাকে নামকরণ করা হয়। অ্যাডা লাভলেসকে বিশ্বের প্রথম কম্পিউটার প্রোগ্রামার হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

প্রশ্ন-১০. while loop ও do while loop বলতে কী বােঝায়?

উত্তর : while loop : while (condition)

{ statement;

}

do while loop : do

{ statement;

} while (condition);

অর্থাৎ, যে লুপে আগে শর্ত চেক করে পরে লুপের statement এর কাজ করে সেটি while লুপ এবং যে লুপের কাজ একবার হওয়ার পর শর্ত চেক করে সেটা do while loop.

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x