Blog
1 min read

কনটেন্ট রাইটিং ও ব্লগিং করে অনলাইনে টাকা ইনকাম কিভাবে করবেন

আপনিও যদি বর্তমান এই ডিজিটাল যুগে এসে অনলাইনে টাকা ইনকাম করার কথা ভাবেন, তাহলে আপনার জন্য ও কনটেন্ট রাইটিং একটি চমৎকার মাধ্যম হতে পারে।

আপনি যদি নির্দিষ্ট কোন বিষয়ের উপর পারদর্শী হয়ে থাকেন, অথবা আপনার যদি অন্য কাউকে শেখানোর দক্ষতা থাকে, তাহলে আপনিও ব্লগিং করে অনলাইনে টাকা ইনকাম করার কথা ভাবতে পারেন।

তাই আজকের এই আর্টিকেলে আমি আলোচনা করব, কীভাবে আপনি কন্টেন্ট রাইটিং ও ব্লগিং করে অনলাইনে টাকা ইনকাম করতে পারেন।

যদিও অনলাইনে কনটেন্ট রাইটিং এর মাধ্যমে টাকা ইনকাম করতে আপনাকে বেশ কয়েকটি স্টেপের এর মধ্য দিয়ে যেতে হবে।‌ তাহলে চলুন, এবার সেসব বিষয়গুলো পর্যায়ক্রমে দেখে নেওয়া যাক।

কনটেন্ট রাইটিং ও ব্লগিং করে অনলাইনে টাকা ইনকাম এর নিস বা টপিক বাছাই করুন

আপনি যখন আমার এই আর্টিকেলটি পড়ছেন, তখন আপনার মাথায় এই চিন্তা যে, আপনি কন্টেন্ট রাইটিং করে টাকা ইনকাম করবেন। বাংলা অথবা ইংরেজিতে কনটেন্ট রাইটিং করে অনলাইনে টাকা ইনকাম করার সুযোগ রয়েছে।

আবার, আপনি সরাসরি আপনার নিজের ওয়েবসাইটে অথবা অন্যের ওয়েবসাইটে কনটেন্ট লিখেও টাকা আয় করতে পারবেন।

তাহলে, আপনি যদি আপনার ওয়েবসাইটের মাধ্যমেই ব্লগিং করতে চান এবং সেই ব্লগ থেকেই টাকা ইনকাম করার কথা ভাবেন, তাহলে প্রথমত আপনাকে একটি ব্লগ ওয়েবসাইট তৈরি করে নিতে হবে।

এক্ষেত্রে, আপনার ব্লগ ওয়েবসাইটটি তৈরি করার পূর্বেই ওয়েবসাইটের ডোমেইন এবং হোস্টিং ওয়েবসাইট অনুযায়ী বাছাই করে নিন।

এবার আপনার একটি ওয়েবসাইট তৈরি হয়ে গেলে, সেই ওয়েবসাইটে আপনার নির্ধারণ করা টপিক অনুযায়ী লিখতে থাকুন। যদিও একটি ব্লগ ওয়েবসাইটে বিভিন্ন টপিকেই লেখা যায়।

তবে, আপনার ব্লগ ওয়েবসাইটে আর্টিকেল লেখার সময় নির্দিষ্ট একটি নিস বাছাই করলে, ভিজিটরেরা সেই নির্দিষ্ট টপিকের আর্টিকেল পড়ার জন্য আপনার ওয়েবসাইট নিয়মিত ভিজিট করতে পারে।

যাইহোক, কীভাবে একটি ব্লগ ওয়েবসাইট তৈরি করতে হয়, এই বিষয়ে আপনি ইউটিউবে অনেক টিউটোরিয়াল ভিডিও পাবেন।

কনটেন্ট রাইটিং ও ব্লগিং করে অনলাইনে টাকা ইনকাম এর জন্য হাই কোয়ালিটি কনটেন্ট তৈরি করতে হবে

যেকোনো সফল ব্লগার এবং ব্লগিং এর মূল ভিত্তি হল, হাই কোয়ালিটি কন্টেন্ট। আপনার মাথায় যদি ব্লগিং করে অনলাইনে টাকা ইনকাম করার চিন্তা থাকে, তাহলে আপনার অবশ্যই হাই কোয়ালিটি কন্টেন্ট রাইটিং এর পারদর্শীতা থাকতে হবে।

আর্টিকেল রাইটিং হোক নিজের জন্য কিংবা অন্যের ওয়েবসাইটের জন্য, এক্ষেত্রে আপনাকে অবশ্যই আকর্ষণীয় ও তথ্যপূর্ণ ব্লগ তৈরি করার উপর ফোকাস করতে হবে, যাতে করে ভিজিটরেরা আপনার আর্টিকেল থেকে কোন কিছু জানতে পারে। আপনার আর্টিকেল এমন হওয়া উচিত যে, যেখানে সকল বিষয়বস্তু সাজানো, ত্রুটিমুক্ত এবং খুব সহজে পড়া যাবে।

আপনি যদি অন্যের ওয়েবসাইটে আর্টিকেল রাইটিং এর মাধ্যমে অনলাইন থেকে টাকা ইনকাম করতে চান, তাহলে ও আপনাকে অবশ্যই এসব বিষয়গুলোর উপর খেয়াল রাখতে হবে।

আর তা না হলে, আপনি সেসব ওয়েবসাইটে দীর্ঘমেয়াদি কাজ করতে পারবেন না কিংবা তারাও আপনাকে আপনার কাজের জন্য বেশি পারিশ্রমিক দিবেনা।

নিজের ব্লগে কনটেন্ট রাইটিং তৈরি করে অনলাইনে টাকা ইনকাম

আপনি কিন্তু সামান্য কিছু টাকা ইনভেস্ট করেই কন্টেন্ট রাইটিং ও ব্লগিং করে অনলাইনে টাকা ইনকাম করতে পারেন।

এজন্য শুধুমাত্র আপনি একটি ডোমেইন কিনে Blogger এর মাধ্যমে ফ্রি ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারেন এবং সেখানে পরবর্তীতে আপনার আর্টিকেল পাবলিশ করতে পারেন। আপনি যখন নিজের একটি ওয়েবসাইট তৈরি করবেন, তখন পরবর্তীতে সেই ওয়েবসাইটটি মনিটাইজ করার মাধ্যমে বিজ্ঞাপন দেখিয়ে আয় করতে পারবেন।

আর, আপনি ওয়ার্ডপ্রেস অথবা ব্লগার সিএমএস এর মাধ্যমে খুব সহজে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে নিতে পারেন।

নিজের ব্লগ ওয়েবসাইট থেকে কীভাবে টাকা ইনকাম করা যায়?

যদিও আপনি বেশ কিছু উপায়ে আপনার নিজের ব্লগ ওয়েবসাইট থেকে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। তবে, কনটেন্ট রাইটিং এবং ব্লগিং করে টাকা ইনকামের জন্য বেশিরভাগ মানুষই বিজ্ঞাপনের উপর নির্ভর করে থাকে।

একটি ওয়েবসাইট তৈরি করার পর যখন আপনার ওয়েবসাইটে ভিজিটর আসা শুরু করবে, তখন আপনি গুগল এডসেন্স এর জন্য এপ্লাই করবেন। এরপর, গুগল এডসেন্স Approved হয়ে গেলে, আপনার ওয়েবসাইটে গুগল থেকে বিজ্ঞাপন দেখিয়ে অনলাইনে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

যদিও এই মুহূর্তে বেশিরভাগ মানুষই ব্লগিং করে টাকা ইনকাম করার জন্য এই পদ্ধতিটি বেশি ব্যবহার করছেন। তবে, ব্লগিং করে টাকা ইনকাম করার জন্য আরও কিছু পদ্ধতি রয়েছে, যেগুলো আপনি ব্যবহার করতে পারেন।

নিজের কনটেন্টে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং, স্পন্সর অথবা নিজের পণ্য বিক্রির মাধ্যমে ইনকাম করার উপায়

আপনি কন্টেন্ট রাইটিং এর সময় নিজের ব্লগে বিজ্ঞাপন দেখানোর পাশাপাশি অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং, স্পন্সর অথবা নিজের পণ্য বিক্রির মাধ্যমে ও টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

আপনি যদি ভবিষ্যতে একজন কন্টেন্ট রাইটার হিসেবে নিজের ওয়েবসাইটটিকে অনেক বড় জায়গায় নিয়ে যেতে পারেন, তাহলে আপনার ব্লগে বিজ্ঞাপন দেখানোর পাশাপাশি অ্যাফিলিয়েট প্রোডাক্ট লিংক অথবা নিজের পণ্য বিক্রির মাধ্যমে আয় করা যাবে।

যদি আপনার ওয়েবসাইটে অনেক বেশি ভিজিটর আসে, তাহলে আপনি সেসব ভিজিটরদেরকে কাস্টমারে পরিণত করার জন্য এই পদ্ধতি গুলো ব্যবহার করতে পারেন। ‌আর এই পদ্ধতিটি, ব্লগিং করে অনলাইনে টাকা ইনকাম করার আরো একটি বড় লাভজনক মাধ্যম।

ব্লগিং করে কত টাকা আয় করা যায়?

আপনি ব্লগিং করে কত টাকা আয় করতে পারবেন, এটি নিশ্চিত করে বলা সম্ভব নয়। কেননা, ব্লগিং করে অনলাইনে টাকা ইনকামের অংকটি বিভিন্ন বিষয়ের উপর নির্ভর করে। ‌

এসবের মধ্যে যেমন, আপনার কনটেন্ট এর ভিজিটর কেমন, সেগুলো কোন দেশ থেকে দেখা হচ্ছে, ‌ইনকামের জন্য আপনি কোন মেথড ব্যবহার করছেন, সেখানে গুগল অথবা অন্য কোন অ্যাড নেটওয়ার্কের অ্যাড ব্যবহার করছেন কিনা, ইত্যাদি বিষয়ের উপর।

আপনি যদি বাংলায় ব্লগিং করেন এবং কনটেন্ট রাইটিং এর পেছনে ১ বছরের প্রতিদিন ৩-৪ ঘন্টা করে সময় দেন, তাহলে বলা যায় যে, আপনি পরবর্তী বছরগুলো থেকে মাসে ১০০-১২০ ডলার ইনকাম করতে পারবেন ইনশাআল্লাহ।

যদিও ব্লগিং এর সফলতা একেক ব্যক্তির জন্য একেক রকমভাবে আসে। এক্ষেত্রে আপনি যদি অন্যান্যদের চাইতে দক্ষ হন, তাহলে আপনি খুব দ্রুতই ব্লগিং করে সফলতা অর্জন করতে পারবেন বলে আশা করা যায়। ‌

যদিও, আপনি ইংরেজি ব্লগিং করলে কিংবা আপনার ওয়েবসাইটের ভিজিটর গুলো ইউরোপ-আমেরিকার দেশগুলো থেকে বেশি আসলে, সেসব ক্ষেত্রে ব্লগিং করে অনেক বেশি টাকা আয় করতে পারবেন। কেননা, এসব দেশগুলো থেকে আসা ভিজিটর আপনার ওয়েবসাইটের কোন বিজ্ঞাপনে ক্লিক করলে কয়েক ডলার পর্যন্ত ইনকাম হতে পারে।

যাইহোক, আপনি যদি কন্টেন্ট রাইটিং এর সাথে দীর্ঘ মেয়াদে জড়িয়ে থাকেন, তাহলে আপনি একটা সময় অনলাইনে ভালো পরিমাণের টাকা ইনকাম করতে পারবেন ইনশাআল্লাহ।

কনটেন্ট রাইটিং ও ব্লগিং করে অনলাইনে টাকা ইনকাম

কনটেন্ট লিখে অনলাইনে তাৎক্ষণিক টাকা ইনকামের জন্য আপনি চাইলে বাংলা কনটেন্ট রাইটিং জব করতে পারেন। ‌এজন্য আপনি বিভিন্ন ব্যক্তিদের সাথে পরিচিত হয়ে, তাদের ওয়েবসাইটের জন্য চুক্তিভিত্তিক বাংলা কনটেন্ট লিখে দিতে পারেন। বাংলা কনটেন্ট রাইটিং জব করে অনলাইনে টাকা ইনকামের জন্য আপনার প্রয়োজনীয় দক্ষতা থাকতে হবে।

বাংলা কনটেন্ট রাইটিং জব অথবা নিজের ওয়েবসাইটের জন্য কন্টেন্ট লেখার ক্ষেত্রে আপনাকে যেসব বিষয়গুলো জানা উচিত, সেগুলো হল:

কনটেন্ট রাইটিং দক্ষতা: আপনাকে অবশ্যই ভালো লেখায় পারদর্শী হতে হবে। ‌যেসব লেখাগুলো তথ্যপূর্ণ,‌ নির্ভুল এবং সহজ ভাষার হতে হবে।

এসইও ফ্রেন্ডলি আর্টিকেল: আপনি যদি কন্টেন্ট রাইটিং ও ব্লগিং করে অনলাইনে টাকা ইনকাম করতে চান, তাহলে আপনাকে অবশ্যই এসইও ফ্রেন্ডলি আর্টিকেল লেখায় পারদর্শী হতে হবে। কীভাবে এসইও ফ্রেন্ডলি আর্টিকেল লিখতে হয়, সেটি আপনি আরো অন্যান্য ব্লগ অথবা ভিডিও থেকে দেখে নিতে পারেন।

রিসার্চ স্কিল: ব্লগিং করে অনলাইনে টাকা ইনকামের ব্যাপারটি কিন্তু মোটেও সহজ না। আপনি যদি নিজের ওয়েবসাইটের জন্য অথবা অন্যের জন্য কনটেন্ট লেখেন, উভয় ক্ষেত্রেই আপনাকে প্রতিটি বিষয়ের উপর ব্যাপক রিসার্চ করে কন্টেন্ট লিখতে হবে।

আপনি যে বিষয় নিয়ে কন্টেন্ট রাইটিং করবেন, প্রথমে সেটি নিয়ে অনলাইনে ব্যাপক অনুসন্ধান করতে হবে।

ক্রিয়েটিভি স্কিল: কন্টেন্ট রাইটিং এ আপনাকে অবশ্যই ক্রিয়েটিভ হতে হবে। আপনার লেখা কন্টেন্ট যাতে করে ভিজিটরদের আকৃষ্ট করে, সেভাবেই আপনাকে কন্টেন্ট টি উপস্থাপন করতে হবে।

ভিজিটরদের প্রয়োজনীয়তা বোঝা: আপনি যে বিষয় নিয়ে কন্টেন্ট লিখবেন, সেটি ভিজিটরদের কেন প্রয়োজন, আপনাকে অবশ্যই সেই চাহিদা অনুযায়ী কন্টেন্ট দেখতে হবে। যাতে করে, ভিজিটরেরা আপনার আর্টিকেল পড়ে পূর্ণাঙ্গ সমাধান পায়।

কনটেন্ট রাইটিং এবং ব্লগিং করে অনলাইনে টাকা ইনকামের জন্য আপনাকে মূলত এসব বিষয়গুলোর প্রতিই খেয়াল রাখতে হবে।

কনটেন্ট রাইটিং ও ব্লগিং করে অনলাইনে টাকা ইনকাম করার বিষয়ে শেষ কথা

এই মুহূর্তে অনেকেই কনটেন্ট রাইটিং ও ব্লগিং করে অনলাইন থেকে টাকা ইনকাম করছেন। আপনিও কিন্তু চাইলে নিজেকে দক্ষ করে কনটেন্ট রাইটিং এর মাধ্যমে অনলাইন থেকে টাকা ইনকাম করতে পারেন। ‌

এক্ষেত্রে আপনি নিজের ওয়েবসাইটে আর্টিকেল না লিখে ও পার্ট টাইম অন্যদের ওয়েবসাইটের জন্য কনটেন্ট রাইটিং ও ব্লগিং করে অনলাইনে টাকা ইনকাম করতে পারেন। আর, এ ধরনের রাইটিং জব পাওয়ার জন্য আপনি বিভিন্ন ফেসবুক গ্রুপের সাহায্য নিতে পারেন অথবা সরাসরি যে কোন ওয়েবসাইটের মালিকের সাথে কন্টাক করতে পারেন। ধন্যবাদ।

5/5 - (40 votes)