৪০তম বিসিএসে পররাষ্ট্র ক্যাডারে সুপারিশপ্রাপ্ত মোঃ তানজিম হোসেনের ভাইভা অভিজ্ঞতা

50

অনেকেই ভাইভা অভিজ্ঞতার কথা শুনতে চেয়েছেন। আমার এই অভিজ্ঞতা শুনে কারো একটু উপকার হলেই আমার এই লেখা সার্থক হবে।

মোহাম্মদ তানজিম হোসেন।
পররাষ্ট্র ক্যাডারে সুপারিশপ্রাপ্ত।
মেধাক্রমঃ ২২
৪০ তম বিসিএস।

আমার প্রথম বিসিএস (৪০ তম বিসিএস) ভাইভা অভিজ্ঞতাঃ

পছন্দক্রমঃ পররাষ্ট্র, প্রশাসন, ইকোনমিক, অডিট, ট্যাক্স, কাস্টমস….

বোর্ডঃ শ্রদ্ধেয় শাহ জাহান আলী মোল্লাহ স্যার।
সিরিয়ালঃ ১ম (১৫-১৬ জনের মধ্যে)।
সময়ঃ ২৮-৩০ মিনিট।

প্রথমেই বলে নেই আমার ভাইভা প্রায় পুরোটাই ইংরেজিতে হয়েছে। বলা যায় ৯০% ইংরেজিতে, ১০% বাংলায় হয়েছে। ভাইভা দিয়েছি ১ বছর ৩ মাস হয়েছে!!

প্রথমেই চেয়ারম্যান স্যার আমার নাম, বিশ্ববিদ্যালয়, আন্ডারগ্রেড ডিগ্রি এসব বলে আমাকে জিজ্ঞেস করলেন কেন পররাষ্ট্র আমার প্রথম চয়েস। আমি সুন্দর ভাবে উত্তর দিলাম। মনে হল স্যারের পছন্দ হয়েছে। স্যার এইবার এক্সটার্নাল-১ ম্যাডাম কে প্রশ্ন করতে বললেন। উল্লেখ্য, ম্যাডাম অনেকটা ব্রিটিশ ন্যাটিভ স্পিকারদের মত এক্সেন্টে কথা বলেন।

এক্সটার্নাল ১ ম্যাডামঃ তোমার পরিবার সম্পর্কে বল?
বললাম।
তুমি কি রান্না করতে পারো? কি কি রান্না করতে পারো? বললাম। তুমি কি মনে কর রান্না করা মেয়েদের কাজ?? আমি জোর দিয়ে ইন্সট্যান্টলি বললাম “স্যার, ইট ইজ দ্যি থিং রিগার্ডলেস অফ জেন্ডার”।
–আচ্ছা, কভিড-১৯ এ বাংলাদেশের সামনে কি কি চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হবে? বললাম।

ম্যাডামঃ মনে কর, তুমি বাংলাদেশের একজন প্রতিনিধি, একটা ইন্টারন্যাশনাল কনফারেন্সে তুমি বাংলাদেশের রিসেন্ট ডেভেলাপমেন্ট ও মেজর চ্যালেঞ্জ কে কিভাবে প্রেজেন্ট করবা? ১-২ মিনিট বললাম।
-জিআই পন্য কাকে বলে?কয়টি? সবগুলোর নাম বল..বলেছিলাম সিরিয়ালি।
জামদানী শাড়ি নিয়েও সাব্জেক্ট রিলেট করে প্রশ্ন করেছিল।
ম্যাডাম সাব্জেক্ট রিলেটেড ২-৩ টা প্রশ্ন করেছিল, এর মধ্যে একটা স্লিপ অফ টাং হয়ে ভুল বলে ফেলেছিলাম! পরে শুধরে নিয়েছিলাম।

ম্যাডামের সাথে প্রায় ১০-১২ মিনিট পুরোটাই ইংরেজিতে প্রশ্নোত্তর হয়েছে।

আবার চেয়ারম্যান স্যারঃ (অনেকটা অভিযোগের সুরে বলছিলেন স্যার) আপনাকে যে সরকার ৮-১০ লক্ষ টাকা খরচ করে ইঞ্জিনিয়ার বানিয়েছে, এখন আপনি যে জেনারেল ক্যাডারে আসতে চান, আপনি কি মনে করেননা এটা সরকারের টাকার অপচয়??? আমি অনুমতি নিয়ে আমার পয়েন্ট অফ ভিউ শেয়ার করেছিলাম।

চে স্যারঃ-কিউবা কোথায় অবস্থিত? মধ্য-আমেরিকার দেশসমূহের নাম বলেন? কিউবার বিখ্যাত একজনের নাম বলেন? উনি বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে কি বলেছিলেন?সবগুলোর সঠিক উত্তর দিলাম। ইংরেজিতে ফিডেল কাস্ত্রোর উক্তিটি পুরোটা জোরে বলার পরই এক্সটার্নাল স্যাররা “গুড, ফাইন” এসব বলে উঠলেন।আমি আরেকটু সাহস পেলাম!

চেয়ারম্যান স্যারঃ টেক্সটাইল এর উন্নত মেশিনারিজ কোন কোন দেশে পাওয়া যায়? চায়না ও তুরস্ক তে টেক্সটাইলের কি কি কাজ ভাল হচ্ছে?
–আইপি, প্যাটেন্ট, ও এরকম আরও ২ -৩ টা টার্ম জিজ্ঞেস করেছিলেন এই মুহূর্তে সবগুলো মনে পড়ছেনা যার মধ্যে ১/২ টা টার্ম ঠিকমত বলতে পারিনি।

চেয়ারম্যান স্যারঃ আচ্ছা, মনে করেন আপনি চায়নায় বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত, সেখানকার প্রধানমন্ত্রীর কোন একটি উচ্চ পর্যায়ের কনফারেন্সে আপনি বাংলাদেশের এফডিআই বাড়ানোর জন্য একটি স্পিচ দেন…আমি প্রায় ৩ মিনিট বললাম।
এই টাইপের আরেকটি প্রশ্ন করেছিলেন চেয়ারম্যান স্যার যেটি আমার এখন মনে পড়ছেনা। সেটা ও প্রায় ২ মিনিট ভালোভাবেই বলেছিলাম। চেয়ারম্যান স্যার কে উত্তর শুনে স্যাটিসফাইড মনে হয়েছিল সেসময়।

এক্সটার্নাল ২ স্যারঃ তানজিম, ইয়ু আর লুকিং রিয়েলি নাইস, হ্যান্ডসাম, ইয়ু আর ডুইং ভেরি ফাইন, ফিল ফ্রি এন্ড রিলাক্স!!!এক্সাক্টলি এইভাবেই স্যার বলছিলেন!!
এক্সটার্নাল ২ স্যারঃ আজকের এই দিনে( ৮ ই মার্চ) কি কি ঘটনা ঘটেছিল? আমি মুক্তিযুদ্ধের ৩ টি ঘটনা ও ওয়ার্ল্ডওয়াইড ২ টি ঘটনা বললাম, তারপর স্যার বলল, গত বছর এই দিনে কি হয়েছিল? আমি এটি পারিনি। স্যার ই বলে দিলেন- যে গত বছর এই দিনে বাংলাদেশে প্রথম করোনা রোগী ধরা পড়ে। এটা জানা থাকা সত্ত্বেও মাথায় আসেনি ওই মোমেন্টে।

এক্সটার্নাল ২ স্যারঃ বাংলাদেশের মেগাপ্রজেক্ট গুলো বলেন? প্রজেক্ট গুলোর ডিটেইলস জানতে চেয়েছেন, সেগুলো ও বলেছিলাম।
আর ও কিছু প্রশ্ন করেছিলেন স্যার রা যা আমার এই মুহুর্তে (১ বছর পর) মনে পড়ছেনা।

চেয়ারম্যান স্যার আরো কিছুক্ষণ রাখতে চেয়েছিলেন আমাকে, কিন্তু এক্সটার্নাল স্যাররা “অনেক সময় হয়েছে” বলে ইঙ্গিত দেয়ায় স্যার ভাইভা শেষ করেন।

বলা যায় আমি ১০০% প্রশ্নের ভিতর ৭০% প্রশ্নের উত্তর ভালো ভাবে দিয়েছি, ২০% প্রশ্নের উত্তর দিয়েছি বাট স্যাররা এন্স্যার এক্সেপ্ট করেছে কিনা বুঝিনি। ১০% একেবারেই না পারায় সারেন্ডার করেছি।

আমার কাছে মনে হয়েছে ভাইভা একটা মানুষের ওভারঅল প্রেজেন্টেশন, এপ্রোচ, এটিচিউড, এটিকেট, ম্যানার, বিহেভিয়ার এর সমন্বয়। এমনকি আমার মনে হয় “অলসো এপিয়ারেন্স ডাজ মেটার”!! পোলাইট ও হাম্বল থাকাটা ও খুব ইম্পর্ট্যান্ট।

সবশেষে বলতে চাই, আল্লাহর অশেষ রহমতে আমার ভাইভা মোটামুটি ভাল হয়েছিল। আমার উপর আল্লাহর অশেষ রহমত না থাকলে এটা সম্ভবপর হত না।

আমি বলব–আপনি আপনার সাধ্যমত সর্বোচ্চ চেষ্টা করুন ও সৃষ্টিকর্তার উপর ভরসা রাখুন। ইন শা আল্লাহ ভালো কিছুই হবে। ধন্যবাদ।

Previous articleবাংলাদেশ প্রাচীন জনপদ
Next articleপুলিশ ক্যাডার আগে দিলে ভালো হবে নাকি প্রশাসন ক্যাডার?

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here