ফ্যাসিবাদ পতনের লক্ষ্যে ডান-বাম নিয়ে বৃহত্তর ঐক্যের প্রয়োজন- মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর

21

ফ্যাসিবাদী শেখ হাসিনার সরকারের পতনের লক্ষ্যে ‘বাম-ডান রাজনৈতিক দলগুলো’র ঐক্য চান বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

শুক্রবার (৩ জুন) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে তোফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া হলে জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টি (জাগপা) আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি বলেন, তারা (আওয়ামী লীগ) নির্বাচন ব্যবস্থাকে ধ্বংস করে দিয়েছে। আমরা খুব পরিষ্কার করে বলছি, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগের অধীনে আর কোনো নির্বাচন হবে না। অবশ্যই আওয়ামী লীগকে সরে যেতে হবে। নিরপেক্ষ একটা সরকারের হাতে দায়িত্ব দিতে হবে। নিরপেক্ষ সরকারের নতুন নির্বাচন কমিশন গঠন করে নির্বাচনের ব্যবস্থা করবে।

শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের ৪১তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাগপার প্রতিষ্ঠাতা শফিউল আলম প্রধানের ৫তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টি (জাগপা) এ আলোচনা সভার আয়োজন করে।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, যারা জোর করে ক্ষমতা দখলে তারা কী ক্ষমতা ছেড়ে দেয়? নিরপেক্ষ সরকারর প্রতিষ্ঠার জন্য তাদেরকে বাধ্য করতে হবে। জনগণের শক্তিতেই এই দাবী আদায় করতে হবে। আমাদের তো কোনো শক্তি নেই, শক্তি একটাই সেটা হচ্ছে জনগণ । আসুন, রাজনৈতিক দলগুলোকে নিয়ে যে ঐক্য প্রক্রিয়া শুরু করেছি, সেই ঐক্য প্রক্রিয়াকে আমরা সবাই সফল করি। আমরা খুব পরিষ্কার করে বলেছি, এটা দেশের সমস্ত রাজনৈতিক দলের, বাম-ডান হোক, যেটাই হোক, আমরা তাদেরকে একখানে নিয়ে এসে এই ভয়াবহ সরকার থেকে মুক্তি নেই।

খাদ্যপণ্যের উর্ধ্বগতি প্রসঙ্গ:

দেশের নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম ঊর্ধ্বগতি প্রসঙ্গে বাণিজ্যমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, দাম যদি সিণ্ডিকেট বাড়ায় আপনি কেন দায়িত্বে আছেন? আপনার কাজ কি? তিনি বলেন, মন্ত্রী নিজে স্বীকার করেছেন সিন্ডিকেটরা দাম বাড়াচ্ছে। তাহলে কেন ওনি দায়িত্বে আছেন?

বিএনপি মহাসচিব বলেন, সিন্ডিকেটকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারো না সরকার। দুর্নীতিবাজদেরকে ধরতে পারে না। ছোট ছোট আড়তদারদেরকে গিয়ে ধরছে। আসল ব্যাপার তো পত্রিকায় এসে গেছে। বড় বড় কর্পোরেটগুলো এতো বেশি করে চাল কিনছে, চালের দাম বেড়ে যাচ্ছে। বরাবরই তাই হয়। সরকারের প্রশ্রয় ছাড়া, সরকারের মদদ ছাড়া কখনোই এটা করা সম্ভব হয়না। তাই আমরা বার বার করে বলছি, সরকারের কারসাজি শুধু নয়, সরকারের সরাসরি সম্পৃক্ততা আজকে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি করেছে, চালের দাম বৃদ্ধি করেছে।

১৯৭৪ সালের দুর্ভিক্ষের কথা স্মরণ করিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, আমি ওবায়দুল কাদের সাহেবকে সর্তক করতে চাই। আপনারা ইতিহাস থেকে এবার একটু শিক্ষা নেন। মনে করুন ১৯৭৪ সালের কথা। তখন দুর্ভিক্ষ হয়েছিলো, খাদ্য শস্যের দাম বেড়ে গিয়েছিলো। আজকে আবার খাদ্যশস্যের দাম বাড়ছে। খাদ্যের দাম বাড়ার সাথে মানুষের হাহাকার শুরু হয়েছে। সেই সময়ে যদি দেয়ালের লিখন না পড়েন, উদ্যোগ যদি না নেন- এখন ওই সমস্ত উল্টো-পাল্টা কথা বলে লাভ নাই।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, আপনারা গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় ফিরে আসুন, গণতন্ত্রের পরিবেশ তৈরি করুন, মানুষের মানুষের কথা বলতে দিন, মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠা করুন। তা নাহলে আপনাদের যে পরিণতি হবে — সেই ভয়ানক পরিণতি যেন না হয় এখন থেকে জনগণের অধিকারগুলো ফিরে দেন। আপনারা মানুষ হত্যা বন্ধ করেন, গুম করা বন্ধ করেন, মিথ্যা মামলা দেয়া বন্ধ করেন এবং বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্তি দেন। তা না হলে আপনাদের কোনো দিন কোন মুক্তি হবে না। এটা হচ্ছে মূল কথা।

জাগপার সভাপতি খন্দকার লুৎফর রহমানের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক এসএম শাহাদাতের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় জাতীয় পার্টির (কাজী জাফর) মোস্তফা জামাল হায়দার, বিএনপির আমান উল্লাহ আমান, খায়রুল কবির খোকনসহ জাগপা নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।

সূত্রঃ আমার দেশ uk

Previous articleভাত ও ভোটের অধিকার রক্ষায় প্রতিরোধ কমিটি গঠনের ডাক দিল সিপিবি
Next articleজোবায়দা রহমানের আবেদন গ্রহণ করে হাইকোর্ট সংবিধান লঙ্ঘন করেছে- আপিল বিভাগ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here