কলেজ লাইফের বেশ কিছু দিন পেরিয়ে গেল। নিয়মিত ক্লাসে যোগ দিচ্ছি।
ইংরেজি বিভাগের রফিক স্যার একদিন হঠাৎ করেই বিভিন্ন শব্দার্থ নিয়ে আলোচনা করতে গিয়ে সেতু’রে জিজ্ঞেস করলো, আচ্ছা সেতু, তোমার নামের অর্থ কী?
সেতু কেমন ইতস্তত বোধ করল এবং উত্তর দিতে অক্ষম হয়।
আমিও অর্থটা মনে মনে খুঁজছিলাম। কিন্তু সেতু অর্থ তো ব্রিজ,কালভার্ট; এসব বললে যে ক্লাসে হাসাহাসির রেশ পরে যাবে।
তাই কিছু বলিনি। তখন স্যার বললেন,“সেতু! তোমার নাম যদি তুবা হতো তবে চমৎকার অর্থবোধক একটি নাম হতো। যার অর্থ ‘সুসংবাদ”।
এরপর স্যার আমার বান্ধবী হাবিবাকে জিজ্ঞেস করল, ও’র নামের অর্থ কী? ও’ তৎক্ষণাৎ উত্তর দিলো ‘আল্লাহর প্রিয় বান্দি’।
স্যার সহ আমরা সবাই ওর উত্তর শুনে খুশী হলাম। মাশাআল্লাহ কত সুন্দর নাম!

সেদিন এভাবে স্যার অনেকের নামের অর্থই জানতে চেয়েছেন।
বেশ ইন্টারেস্টিং ছিল! ক্লাস শেষে বাসায় এসে অনেকক্ষন ভাবলাম।
একজন মানুষকে নাম দিয়ে চিনতে না পারলে কিভাবে বুঝবো সে কোন ধর্মের?
কিছু বই নিয়ে ঘাঁটাঘাঁটি করে দেখলাম মুসলমানের নাম রাখার ব্যাপারে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সল্লাম‘ নিজেই বড্ড তাগিদ দিয়েছেন। কিন্তু আমরা কেউই পরখ করি না।

হায়রে মুসলমান! আর কত গোমরাহীর আশ্রয় নিবে? সেন্টু,মন্টু,সবুজ,নিলয়,নিপা,মিনা,মনি আমাদের সমাজে এরকম অসংখ্য নাম রয়েছে যার আদৌ কোন ভালো অর্থ নেই।
মুসলিম শিশুদের ইসলামী সুন্দর সুন্দর নাম অবশ্যই রাখতে হবে। কারণ আপনি যে একজন মুসলমান তা আপনার পোষাকে প্রমাণ না হলেও স্বয়ং একটি সুন্দর ইসলামী নাম আপনাকে মুসলিম হিসেবে শনাক্ত করবে। এর চেয়ে আর কি কোন গৌরবের বিষয় আছে!!! একই সঙ্গে সুন্দর নাম দ্বারা আমরা পরকালেও শান্তি পেতে পারি ইনশাআল্লাহ।
অতঃপর প্রত্যেকেই তার কর্মের ফল পুরোপুরি পাবে এবং তাদের প্রতি কোন রূপ অবিচার করা হবে না। [ সুরা বাকারা ২:২৮১ ]
মরিয়ম বা অন্যকিছু হোক কেয়ামতের দিন আল্লাহ’কে নিজের হিসাব বুঝিয়ে দিতে হবে। কর্মফল ভোগ করার পর সে ঈমানদার হলে আল্লাহর কৃপায় নামের গুনে সে জান্নাতে যেতে পারেন।

একটা ঘটনা বলি

একব্যক্তি শুনেছিল কোরআন শরীফ থেকে নাম রাখলেই তা ইসলামীক হয়ে যায়। তাই তিনি সূরা আর রহমানে একাধিক বার “তুকাজ্জিবান” শব্দটা দেখে ভাবলো এটা হয়তো অনেক সুন্দর এবং আল্লাহর খুব পছন্দের একটা নাম। তাই তার ছেলের নাম রেখে দিলো।
একদিন মসজিদের ইমাম সাহেব এ কথা জানতে পেরে ঐ লোকটারে বুঝালো, ‘আপনার ভাবনা ভুল। কারণ তুকাজ্জিবান অর্থ অস্বীকার করা/ মিথ্যুক। তাই এটা কোন মুসলমানের নাম হতে পারে না। কোরআনের ভিতর অথবা বাহির থেকে আপনি যে নামই রাখুন না কেন আগে অর্থ জানতে হবে’।

পিতা-মাতার উচিত তাদের সন্তানের জন্য একটি ইসলামী অর্থযুক্ত নাম রাখা। আল্লাহ আমাদের সবাইকে সঠিক বুঝ দান করুন আমীন।

সুমাইয়া সুলতানা
১১ জুলাই, ২০২১

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x