বাংলাদেশি আলেম মুফতী মুহাম্মদ নোমান কাসেমীর নিউজার্সি প্যাটারসন সম্মাননা লাভ

108

আমেরিকার নিউজার্সি প্যাটারসন সন্মাননায় ভূষিত হয়েছেন নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জের উত্তর মাদানীনগরে অবস্থিত আল-মারকাযুল হানাফী বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা-পরিচালক ও রাজধানী ঢাকা উত্তরার ৪ নং সেক্টরস্থ রিয়াজুল জান্নাহ জামে মসজিদের খতীব মুফতি মোহাম্মদ নোমান কাসেমী। গতকাল আমেরিকা নিউজার্সি প্যাটারসন সিটি মেয়র ‘অ্যান্ড্রু ছায়া’ তার কার্য্যালয়ে মেয়রের অধিনস্থ এলাকায় মুসলিম কমিউনিটিতে মুফতী মুহাম্মদ নোমান কাসেমী ভিন্নমুখি কার্যক্রমের অসামান্য অবদান রাখায় সিটির বিশেষ সম্মাননা এ্যাওয়ার্ড তার হাতে তুলে দেন।

এসময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সিটি কাউন্সিল প্রেসিডেন্ট শাহিন খালিক ও অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিবর্গ। মুফতী মুহাম্মদ নোমান কাসেমী বাংলাদেশের খ্যাতিমান আলেম, বিশিষ্ট লেখক, গবেষক ও আলোচক, আল-মারকাযুল হানাফী বাংলাদেশ ও ইমাম আবু হানীফা রহ. ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক। মুফতী মুহাম্মদ নোমান কাসেমী ২০১৮ সাল থেকে বিভিন্ন ইসলামিক প্রোগ্রামে আলোচনার জন্য আমেরিকা সফরে যান। গত দুই বছর থেকে তিনি পবিত্র রমযানে সেখানে তারাবীহ নামায পড়ান।

ইসলামিক ফাউন্ডেশন অব নিউজার্সি (জালালাবাদ জামে মসজিদ) প্যাটারসনে গত রমযানে তারাবীহ পড়ানোর পাশাপাশি বিগত তিনটি ঈদের নামাযে ইমামতি করেন। ফাউন্ডেশনের বর্তমান কমিটির শপথবাক্যও তিনি পাঠ করান। ইতিপূর্বে ২০১৫ সালে তিনি জাপানের টোকিওতেও তারাবীহ পড়ান। তাঁর লিখিত প্রায় ২৪ টি বই প্রকাশিত হয়। তন্মধ্যে একটি বই ইংরেজিতে অনুবাদ হয়ে ‘কারেশমাটিক কারেক্টর’ নামে প্রকাশিত হয়েছে। যা আমেরিকায় বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে।

দেশ বরেণ্য প্রতিভাবান এ আলেম বিশ্বজুড়ে দেশের সম্মানকে সমুন্নত রাখতে বিভিন্ন ক্ষেত্রে অসামান্য অবদান রেখে চলছেন। তিনি ফেনী জেলার অন্তর্গত ফুলগাজী থানার দুই নং মুনসিরহাট ইউনিয়নের পৈথারা নামক গ্রামে ১০ মার্চ ১৯৮৩ সালে জন্ম গ্রহণ করেন। তিনি ১৯৯৭ সালে টঙ্গীতে অবস্থিত জামেয়া উসমানিয়া দারুল উলুম সাতাইশ থেকে হিফজ সম্পন্ন করে সেখানে শরহে জামী জামাত শেষ করে ২০০২ সালে নোয়াখালীর জামেয়া ইসলামিয়া মাইজদী ভর্তি হয়ে শরহে বেকায়া থেকে মেশকাত জামাত সম্পন্ন করেন।

সেখান থেকে তিনি ২০০৫ সালে ভারতের দারুল উলুম দেওবন্দে গমন করেন। ২০০৬/৭ শিক্ষাবর্ষে কৃতিত্বের সাথে সেখান থেকে তিনি দাওরায়ে হাদিস ও ইফতা সম্পন্ন করেন। দেশে ফিরে তিনি গরীব দুঃখীদের সহযোগিতার পাশাপাশি বিভিন্ন সমাজসেবা পরিচালনার লক্ষ্যে ইমাম আবু হানীফা রহ. ফাউন্ডেশন গঠন করেন। সেই সাথে লেখালেখি ও বয়ান-বক্তৃতায়ও দেশ বিদেশে তাঁর বিশেষ সুনাম-সুখ্যাতি রয়েছে।

Previous articleভারতীয় সংবিধানের পটভূমি, উল্লেখযোগ্য ব্যাক্তিত্ব, গুরুত্বপূর্ণ বৈশিষ্ট্য ও অস্পষ্টতার কারন
Next articleযৌথ পরিবার কাকে বলে?

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here