অচেনা জায়গায় যেয়ে বা কোন নতুন জায়গার লোকেশন বের করতে হাতে থাকা স্মার্টফোনটির সাহায্যে গুগল ম্যাপ থেকে নির্দিষ্ট জায়গাটির অবস্থান দেখে নেন না এমন মানুষ খুব কমই আছে। আমরা যত সহজেই গুগল ম্যাপ ব্যবহার করে লোকেশন বের করে ফেলি কিন্তু অনেকেই জানিনা গুগল ম্যাপ আমাদের কাঙ্খিত লোকেশন টি কিভাবে আমাদের সামনে উপস্থাপন করছে। মূলত গুগল ম্যাপে জাদুকরী কাজের পেছনে রয়েছে জিপিএস (গ্লোবাল পজিশনিং সিস্টেম) বা GPS . মোবাইল ফোন ছাড়াও বর্তমানে সকল প্রকার গাড়ি তে জিপিএস সিস্টেম ব্যবহার করা হচ্ছে এবং সেই প্রযুক্তি ব্যবহার করে নির্দিষ্ট গন্তব্যের যাত্রাপথ নির্দেশনা করছে।

এসব মূল কাজ সম্পাদনা হচ্ছে জিপিএস সিস্টেমের মাধ্যমে তাই আজকে আমরা জানবো জিপিএস সিস্টেম কি এবং সিস্টেম কিভাবে কাজ করে। তাহলে চলুন শুরু করা যাক

জিপিএস কি?

জিপিএস হচ্ছে এক ধরনের গ্লোবাল পজিশনিং সিস্টেম যা পৃথিবীর চারপাশে কক্ষপথে আবর্তনরত বেশকিছু স্যাটেলাইট দারা নিয়ন্ত্রিত।

জিপিএস কিভাবে কাজ করে

জিপিএস সিস্টেমের স্যাটেলাইট গুলি মহাকাশে এক জায়গায় অবস্থিত না বরং স্যাটেলাইট গুলি নির্দিষ্ট দূরত্ব পরপর পৃথিবী থেকে একটি নির্দিষ্ট উচ্চতা প্রায় 12 হাজার মাইল উচ্চতায় অবস্থানরত এবং এমনভাবে অবস্থানরত যে পৃথিবীর সুক্ষ থেকে সূক্ষ্মতর অবস্থানের তথ্য গ্রাহকদের সরবরাহ করে ।

অর্থাৎ আপনি গ্রামাঞ্চলে থাকেন বা পাহাড় পর্বত অথবা সমুদ্রের উপর অবস্থান করেন না কেন জিপিএস সিস্টেমের মাধ্যমে আপনি আপনার সঠিক অবস্থান সময় জানতে পারবেন।

জিপিএস নিয়ন্ত্রণকারী স্যাটেলাইট গুলোর মালিকানা কার?কারা পাঠিয়েছে?

পৃথিবীর চারপাশে বর্তমানে হাজার হাজার স্যাটেলাইট অবস্থান করছে তন্মধ্যে গুটিকয়েক স্যাটেলাইট পুরো জিপিএস সিস্টেম নিয়ন্ত্রণ করছে। এখন জিপিএস নিয়ন্ত্রণকারী গুটিকয়েক স্যাটেলাইট এর মালিক হচ্ছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সরকার। প্রথমে তারা তাদের অভ্যন্তরীণ প্রতিরক্ষা সিস্টেমের জন্য ১৯৭০ সালে স্যাটেলাইট গুলো মহাকাশে প্রেরণ করে এবং জিপিএস সিস্টেম চালু করেন এবং পরবর্তীতে  সর্বসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করেন। জিপিএস স্যাটেলাইট গুলো দেখভাল করার জন্য পৃথিবীতে প্রায়  30 টি নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্র রয়েছে।

জিপিএস মোবাইল ফোনে কিভাবে কাজ করে

জিপিএস অনেক পুরাতন প্রযুক্তি সত্বেও বিশেষ কিছু যানবাহন যেমন মাছ ধরার জাহাজ বিমানে জিপিএস প্রযুক্তি ব্যবহার করা হতো। বর্তমানে স্যাটেলাইট থেকে প্রেরিত সিগন্যাল গ্রহণ করা ছোট্ট চিপ টি প্রতিটি স্মার্টফোনে সংযুক্ত করা হয়েছে। ফোনের এই রিসিভার চিপ টি কোন প্রকার সিগন্যাল প্রেরণ করে না বরং এটি শুধু স্যাটেলাইট থেকে সিগন্যাল গ্রহণ করে।

পৃথিবীর চারপাশে অবস্থানরত জিপিএস সেটেলাইট গুলো সপ্তাহের সাত দিন 24 ঘন্টায় সিগন্যাল প্রেরণ করতে থাকে।

জিপিএস স্যাটেলাইটগুলোতে এটমিক ক্লক লাগানো থাকে যা দিনের পর দিন ধরে খুবই সূক্ষ্ম সময় দেয়। প্রতিটি ফোনে তো একটা ঘড়ি আছেই। স্যাটেলাইটগুলো যে সিগন্যাল পাঠায় তাতে মূলত সিগন্যালটি প্রেরণ করার সময়কার সময় থাকে। আপনার ফোনটি প্রাপ্ত সিগন্যালটির উৎপন্ন হওয়ার সময় আর আপনার ফোনটি যখন সেই সিগন্যালটি গ্রহণ করেছে তার ব্যবধান থেকে ঐ স্যাটেলাইট আর আপনার ফোনের মধ্যকার প্রকৃত দূরত্ব হিসেব করে ফেলে। এই দূরত্ব থেকেই মূলত জিপিএস আপনার অবস্থান নির্ধারন করে।

আবার আমরা জানি যে কোনো বস্তুর নির্দিষ্ট অবস্থান জানতে কমপক্ষে 3 টি বস্তুর অবস্থান সাপেক্ষে অবস্থানটি সঠিকভাবে নির্ণয় করা যায়। এখানে তিনটি বস্তু সাপেক্ষে না হয় যত বেশি বস্তুর সাপেক্ষে হবে অবস্থান তথ্য ততো সঠিকভাবে নির্ণয় করা যাবে।

জিপিএসও এই নীতিতেই কাজ করে। আপনার ফোনের জিপিএস চিপটি একই সাথে ৩-৪টি জিপিএস স্যাটেলাইট থেকে নিজের দূরত্ব নির্ণয় করে নেয়। সাধারণত তিনটি জিপিএস স্যাটেলাইটের সিগন্যাল নিয়েই উপরের  লোকেশন বের করে ফেলে আপনার ফোনটি। এভাবে যত বেশি স্যাটেলাইটের সিগনাল পাবে আপনার লোকেশনও তত বেশি সঠিক মান পাবেন।

স্যাটেলাইট কি পৃথিবীর প্রতিটি জায়গা নাম জানে

উত্তর হচ্ছে “না” । কারণ স্যাটেলাইট জিপিএস এর মাধ্যমে অবস্থান যাচাই করে অক্ষাংশ এবং দ্রাঘিমাংশ বিন্দুর মাধ্যমে। পৃথিবীর প্রতিটি অংশের এই দুই বিন্দুর কোঅর্ডিনেট ভিন্ন ভিন্ন অর্থাৎ পৃথিবীর যেকোনো একাধিক জায়গার নাম এক হতে পারে কিন্তু একাধিক অবস্থানের কোঅর্ডিনেট দ্রাঘিমাংশ-অক্ষাংশ পয়েন্ট আলাদা হবেই। স্যাটেলাইটগুলো আপনার অবস্থান অনুসারে কোঅর্ডিনেট প্রেরণ করে। আপনার ব্যবহৃত অ্যাপস বা সফটওয়্যার এর মাধ্যমে সেই পয়েন্ট ডিসপ্লেতে প্রদর্শন করে।

জিপিএস সিস্টেম চালু রাখার জন্য ইন্টারনেট কানেকশন বাধ্যতামূলক কিনা

মূলত জিপিএস সিস্টেম চালু রাখার জন্য ইন্টারনেট কানেকশন বাধ্যতামূলক না। অর্থাৎ স্যাটেলাইট থেকে প্রেরিত সিগনাল গ্রহণের জন্য ইন্টারনেট কানেকশন বাধ্যতামূলক না কিন্তু সেই তথ্যকে ডিসপ্লে প্রদর্শন করার জন্য ইন্টারনেট কানেকশন প্রয়োজন হয়।

জিপিএস সিস্টেম বন্ধ হওয়ার সম্ভাবনা

আমরা প্রথমে জেনেছি জিপিএস সিস্টেম এর মালিক হচ্ছে আমেরিকা। তারা চাইলে যেকোনো ক্রান্তীয় সময় জিপিএস সিস্টেম বন্ধ করে দিতে পারে। আমেরিকার জিপিএস সিস্টেম ছাড়াবো অন্যান্য দেশের ব্যক্তিগত জিপিএস সিস্টেম রয়েছে চীন এবং রাশিয়া এদের নিজস্ব জিপিএস সিস্টেম রয়েছে।
সুতরাং এতক্ষণ আমরা জানলাম জিপিএস কি কিভাবে কাজ করে নির্দিষ্ট অবস্থান কিভাবে নির্ণয় করে এবং এদের নিয়ন্ত্রণকারী দেশ সম্বন্ধে।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x