চুম্বক ও চৌম্বক পদার্থের পার্থক্য কি?

চুম্বক ও চৌম্বক পদার্থের পার্থক্য নিম্নরূপ–
চুম্বক

  • চুম্বকের দুই প্রান্তে দুটি মেরু আছে।
  • কোন চুম্বকের মেরু অপর চুম্বকের সমমেরু দ্বারা বিকর্ষিত হয়।
  • চুম্বক দ্বারা চৌম্বক পদার্থে আবেশ সৃষ্টি করা যায়।
  • চুম্বকের আকর্ষণী ও দিকদর্শী ধর্ম আছে।
  • নানা কারণে চুম্বকের চুম্বকত্ব নষ্ট হতে পারে।

চৌম্বক পদার্থ

  • চৌম্বক পদার্থের মেরু নেই।
  • চৌম্বকের উভয় মেরু দ্বারা আকর্ষিত হয়।
  • চৌম্বক পদার্থ দ্বারা চৌম্বক আবেশ সৃষ্টি করা যায় না।
  • চৌম্বক পদার্থের আকর্ষণী ও দিকদর্শী ধর্ম নেই।
  • এর চুম্বকত্ব নাই তাই নষ্ট হবার প্রশ্ন উঠে না।

চুম্বকন মাত্রা কাকে বলে?
উত্তর : সুষমভাবে চুম্বকায়িত কোনো স্থায়ী বা আবিষ্ট চুম্বকে একক আয়তনের চৌম্বক ভ্রামককে চুম্বকন মাত্রা বলে।

চৌম্বক প্রবণতা কাকে বলে?
উত্তর : একটি চৌম্বক ক্ষেত্রে একই আকৃতির বিভিন্ন পদার্থ বা বিভিন্ন আকৃতির একই পদার্থ রাখলে বিভিন্ন পরিমাণ চৌম্বকত্ব আবিষ্ট হবে। পদার্থের চুম্বকায়িত হওয়ার এ গুণকে চৌম্বক প্রবণতা বলে।

চৌম্বক ক্ষেত্র কাকে বলে?
উত্তর : কোন চুম্বকের চতুর্দিকে এর আকর্ষণ বা বিকর্ষণজনিত ক্রিয়া যত দূর পর্যন্ত অনুভূত হয় অর্থাৎ তার প্রভাব যে স্থান পর্যন্ত বিস্তৃত হয় সেই স্থানকে ঐ চুম্বকের চৌম্বক ক্ষেত্র বলে। সুস্পষ্টভাবে বলা যায়, চৌম্বকক্ষেত্র হলো চুম্বকের চুম্বকত্ব এলাকা।

চৌম্বক আবেশ ক্রিয়া কাকে বলে?
উত্তর : একটি স্থায়ী চুম্বকের কোনো মেরুর নিকট চৌম্বক পদার্থ আনলে চৌম্বক পদার্থটি অস্থায়ীভাবে চুম্বকে পরিণত হয়। এ ঘটনাকে চৌম্বক আবেশ ক্রিয়া বলে।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x