আউটসোর্সিংয়ের কাজ করে আয় করার কয়েকটি বিষয় হলো- স্পিকরাইট, আর্টিকল লিখা, লোগো/ব্যানার ডিজাইন, এসইও, সিপিএ, অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং, গুগল অ্যাডসেন্স, ভিএ, ডাটা এন্ট্রি, প্রোগ্রামিং জ্ঞান ছাড়াই অ্যাপস ডেভেলপমেন্ট, ই-কমার্স, অনলাইনভিত্তিক ক্ষুদ্র ব্যবসায়, ওয়েব ডেভেলপমেন্ট ইত্যাদি। এগুলো অবশ্যই জানা দরকার।
আউটসোর্সিংয়ের কাজ করে আয় করার জন্য সুপরিচিত সাইটগুলো হলো- odesk.com বর্তমান (upwork.com), elance.com, freelancer.com, getacoder.com, ifreelance.com ইত্যাদি। এসব সাইটে কাজ করতে গেলে অনেক প্রতিযোগিতার মুখোমুখি হতে হয়। তবে দক্ষ লোকের প্রতিযোগী কম। এছাড়া আউটসোর্সিংয়ের এমন অনেক কাজ আছে, যেগুলোতে আপনাকে কারও সাথে প্রতিযোগিতা করতে হবে না। শুধু মনোযোগ দিয়ে কাজ করে যেতে হবে।
আউটসোর্সিং কাজ করে ভালো আয় করতে গেলে কয়েকটি মৌলিক বিষয়ের ওপর মনোযোগ দিতে হবে- ০১. কী কাজ করব। ০২. দক্ষতা। ০৩. কোথায় কাজ করব। ০৪. কীভাবে পেমেন্ট পাব। চলুন এবার এই বিষয়গুলো নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা যাক।

  • কী কাজ করব: আউটসোর্সিংয়ে কাজ করে আয় করার জন্য অনেক কাজ রয়েছে। আপনাকে বেছে নিতে হবে একটি নির্দিষ্ট কাজ, যা করতে আপনার ভালো লাগে। কেননা, ওই নির্দিষ্ট কাজটিতে পুরো দক্ষতা আনতে হলে এর সাথে সংশ্লিষ্ট আরও কিছু কাজ জানতে হয়। যেমন- পিএইচপি জানতে হলে মাইএসকিউএল জানা প্রয়োজন। আরেকটু এগিয়ে গেলে জাভাস্ক্রিপ্ট, অ্যাজাক্স ইত্যাদি জানতে হবে। তাই নির্দিষ্ট কাজ নিয়ে এগিয়ে যান।
  • দক্ষতা: কাজ নির্দিষ্ট করার পর উক্ত কাজটি শিখে ও চর্চা করে দক্ষ হয়ে উঠুন। দক্ষতার জন্য প্রয়োজন চর্চা করা, একই কাজ বারবার করা।
  • কোথায় কাজ করব: অনেক সময় অভিযোগ পাওয়া যায়, কাজ করেছি কিন্তু পেমেন্ট পাওয়া যায় না। পেমেন্ট না পাওয়ার কয়েকটি কারণ থাকতে পারে। যেমন- ক. সঠিক জায়গায় কাজ করেননি, খ. সঠিকভাবে কাজটি বোঝেননি ও গ. সঠিকভাবে কাজটি করেননি। তাই আমাদের জানতে হবে কোথায় কাজ করলে আমরা অবশ্যই পেমেন্ট পাব।
  • কীভাবে পেমেন্ট পাব: আউটসোর্সিং কাজ করে আয়ের টাকা তোলার অন্যতম উপায়গুলো হলো পেপাল, পেওনার, স্ক্রিল ডটকম, চেক, ডাইরেক্ট ব্যাংক ডিপোজিট।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x