মাদকদ্রব্যের (যেমন: মদ, গাঁজা, আফিম, হেরোইন ইত্যাদি) উপর আসক্তিকে মাদকাসক্তি বলে। মাদক দ্রব্যের উপর যখন কারও আসক্তি এমন পর্যায়ে চলে যায় যে সে আর ঐ মাদকদ্রব্য ছাড়া থাকতে পারে না তখন তাকে মাদকাসক্ত হিসেবে গণ্য করা হয়।
মাদকাসক্তির লক্ষণ
মাদকাসক্তির লক্ষণগুলো নিচে তুলে ধরা হলো–
১. মাদক গ্রহণকারীর চিন্তা ও আচরণে পরিবর্তন হবে।
২. চিন্তা বিক্ষিপ্ত হবে ও মনোসংযোগ হারিয়ে ফেলবে।
৩. মেজাজ খিটখিটে হয়ে যাবে।
৪. ঘুমের ব্যাঘাত ঘটবে, ক্ষুধামন্দা দেখা দিবে।
৫. শরীর ভেঙে পড়বে।
৬. হাত-পায়ে কাঁপুনি সৃষ্টি হবে, অসংলগ্ন কথা বলবে।
৭. নিজেকে গুটিয়ে নিবে ইত্যাদি।
মাদকাসক্তির পরিণাম

কোনােভাবে একবার কেউ মাদকাসক্ত হলে অচিরেই নেশা তাকে পেয়ে বসে। সে হয়ে পড়ে নেশার কারাগারে বন্দি। মাদকাসক্তির ফলে তার আচার-আচরণে দেখা যায় অস্বাভাবিকতা। তার চেহারার লাবণ্য হারিয়ে যায়। আসক্ত ব্যক্তি ছাত্র হলে তার বইপত্র হারিয়ে ফেলা, পড়াশােনায় মনােযােগ কমে যাওয়া, মাদকের খরচ জোগাতে চুরি করা ইত্যাদি নতুন নতুন উপসর্গ দেখা দেয়। নেশার জন্য প্রয়ােজনীয় ড্রাগ না পেলে মাদকাসক্তরা প্রায়ই ক্ষিপ্ত হয়ে পড়ে। লােকের সঙ্গে এরা দুর্ব্যবহার করে। মাদকের প্রভাবে রােগীর শারীরিক প্রতিক্রিয়াও হয় নেতিবাচক। তার মননশক্তি দুর্বল হতে থাকে। তার শরীর ভেঙে পড়ে। ক্রমে স্নায়ু শিথিল ও অসাড় হয়ে আসে। এভাবে সে মারাত্মক পরিণতির দিকে এগিয়ে যায়।

এ সম্পর্কিত বহুনির্বাচনি প্রশ্ন ও উত্তরঃ–
১। মাদকাসক্তির ক্ষতিকর দিক কয়টি?
ক) ২
খ) ৩
গ) ৪
ঘ) ৫
সঠিক উত্তর : গ) ৪
২। মাদকাসক্ত ব্যক্তির ক্ষেত্রে মানসিক ক্ষতি কোনটি?
ক) অনিন্দ্রা
খ) উদ্যমের অভাব
গ) কাজ করার আগ্রহ কমে যাওয়া
ঘ) পরিবারকে আর্থিক সংকটে ফেলা
সঠিক উত্তর : খ) উদ্যমের অভাব
৩। মাদকদ্রব্য বাধ্যতামূলকভাবে সেবনের দরকার হলে তাকে কী বলে?
ক) আগ্রহ
খ) আসক্তি
গ) আকাঙ্ক্ষা
ঘ) অভ্যাস
সঠিক উত্তর : খ) আসক্তি
৪। যেকোনো পরিবেশ বা অবস্থা কয়টি দিক থেকে বিচার করা হয়?
ক) ২
খ) ৩
গ) ৪
ঘ) ৫
সঠিক উত্তর : ক) ২

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x