বঙ্গভঙ্গ শব্দটি ভাঙলে বঙ্গ + ভঙ্গ হয়। বঙ্গ শব্দের অর্থ হলো বাংলা আর ভঙ্গ শব্দের অর্থ হলো ভাগ। অর্থাৎ, বঙ্গভঙ্গ শব্দের অর্থ হলো বাংলা ভাগ।

শাসনকার্য পরিচালনার সুবিধার্থে ও সুশাসন প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে ১৯০৫ সালে ইংরেজ সরকার কতৃক অবিভক্ত বাংলাকে দুই ভাগে ভাগ করাকে বঙ্গভঙ্গ বলে।

বঙ্গভঙ্গ কত সালে হয়?
লর্ড কার্জনের শাসনামলে বঙ্গভঙ্গ হয়। ১৯০৫ সালের ১ সেপ্টেম্বর বঙ্গভঙ্গের ঘোষণা প্রদান করা হয় এবং ১৫ অক্টোবর থেকে এটি কার্যকর হয়। যে দুটি প্রদেশে ভাগ করা হয় তা হলো – পূর্ববঙ্গ ও আসাম প্রদেশ এবং পশ্চিমবঙ্গ প্রদেশ।

ঢাকা, রাজশাহী, চট্টগ্রাম বিভাগ ও আসাম নিয়ে গঠিত হয় পূর্ববঙ্গ ও আসাম প্রদেশ। এর গভর্নর নিযুক্ত হন স্যার ব্যামফিল্ড ফুলার। আর পশ্চিম বাংলা,বিহার ও উড়িষ্যা নিয়ে গঠিত হয় পশ্চিমবঙ্গ প্রদেশ। এর গভর্নর নিযুক্ত হন এনড্রু ফ্রেজার। মূলত বঙ্গভঙ্গের ফলে অনেক সুবিধা হয়।

বঙ্গভঙ্গের কারণ
প্রশাসনিক সুবিধা বৃদ্ধি, সুষম আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন ও সাম্প্রদায়িক বৈষম্য কমাতে বঙ্গভঙ্গ করা হয়েছিল।

ব্রিটিশ শাসনামলে বাংলা ছিল বড় একটি প্রদেশ; এর যোগাযোগ ব্যবস্থাও ছিল অনুন্নত। একজন গভর্নরের পক্ষে প্রদেশটির শাসনকার্য সুষ্ঠুভাবে পরিচালনা করা কষ্টসাধ্য ছিল। অন্যদিকে রাজধানী কলকাতাকে কেন্দ্র করে আর্থ-সামাজিক অবকাঠামোগত উন্নয়ন বেশি হওয়াতে পূর্ব বাংলার উন্নয়ন ব্যাহত হচ্ছিল। ফলে পূর্ব বাংলার মুসলমানরা দিন দিন পিছিয়ে পড়তে শুরু করে। এ কারণে হিন্দু মুসলিমদের মাঝে সাম্প্রদায়িক বৈষম্য বাড়তে শুরু করে। এসব অবস্থার কথা বিবেচনা করে ভারতের বড়লাট লর্ড কার্জন ১৯০৫ সালের ১৬ই অক্টোবর বাংলা প্রদেশকে বিভক্ত করেন।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x