মদিনার সনদ : মহানবি (স) মদিনায় হিজরত করে সেখানে একটি আদর্শ সমাজ ও আদর্শ রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করার উদ্যোগ নেন। মদিনায় মুহাজির ও আনসারসহ সব মুসলমান এবং অন্য সব ধর্মাবলম্বীর লোক একত্রে মিলেমিশে সুখে

শান্তিতে নিরাপদে বাস করবে। তাদের মধ্যে শান্তি, সম্প্রীতি বজায় থাকবে, স্বাধীনভাবে প্রত্যেকে নিজ ধর্মকর্ম পালন করতে পারবে এবং একই সাথে মদিনার নিরাপত্তা নিশ্চিত হবে এই উদ্দেশ্যে মহানবি (স) সব সম্প্রদায়কে নিয়ে একটি লিখিত চুক্তি সম্পাদন করেন। এটিই ‘মদিনা সনদ’ নামে পরিচিত।

হুদাইবিয়ার সন্ধি : হিজরি ৬ সনে (৬২৮ খ্রি:) রাসূল (স) ওমরাহ পালনের উদ্দেশ্যে ১৪০০ সাহাবিসহ মক্কা যাত্রা করেন এবং মক্কার ৯ মাইল দূরে হুদাইবিয়া নামক স্থানে উপনীত হন। কিন্তু কুরাইশরা তাদের ওমরাহ পালনে বাধা দেয়। রাসূল (স) জানালেন আমরা যুদ্ধের জন্য আসিনি, শুধু ওমরাহ করেই চলে যাবো, কিন্তু কুরাইশরা তাতেও রাজি হলো না। তখন রাসূল (স) মক্কাবাসীর কাছে ওসমান রা:-কে দূত হিসেবে প্রেরণ করেন। তাঁর ফিরে আসতে দেরি হওয়ায় তিনি শহীদ হয়েছেন বলে রব ওঠে। তখন রাসূল (স) এই হত্যার প্রতিশোধ নেয়ার শপথ নেন। এতে কাফিররা ভয় পেয়ে ওসমান রা:-কে ফেরত দেয় এবং সুহাইল আমরকে সন্ধির প্রস্তাবসহ পাঠায়। তখন কাফির ও মুসলমানদের মধ্যে ১০ বছরের জন্য সন্ধি হয়। এটিই হুদাইবিয়ার সন্ধি নামে খ্যাত।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x