যেসব উদ্ভিদের ফুল, ফল ও বীজ উৎপন্ন হয় এবং ফলের বীজ নির্দিষ্ট আবরণ দিয়ে আবৃত থাকে তাদের আবৃতবীজী উদ্ভিদ বা অ্যানজিওস্পার্ম বলে।

বৈচিত্র্যময় উদ্ভিদজগতের প্রধান উদ্ভিদ হলো আবৃতবীজী উদ্ভিদ। পৃথিবীতে এদের জীবিত প্রজাতির সংখ্যা প্রায় ২,৮৬,০০০টি। ৩০০টি গোত্রের ১২০০০ গণের অধীনে এদের শ্রেণিবিন্যস্ত করা হয়েছে। প্রায় ৮ কোটি বছর পূর্বে ভূতাত্ত্বিক ক্রিটেসিয়াস যুগে আবির্ভূত হয়ে বর্তমান পর্যন্ত এরা পৃথিবীর বিস্তৃত অঞ্চলে প্রাধান্য বিস্তার করছে।

আবৃতবীজী উদ্ভিদের বৈশিষ্ট্য

  • উদ্ভিদ স্পোরোফাইটিক, পুষ্পক, স্বভোজী এবং অসমরেণুপ্রস।
  • দেহ নরম বা শক্ত, অকাষ্ঠল বা কাষ্ঠল, চিরসবুক বা পর্ণমোচী (deciduous)।
  • এরা ভাস্কুলার টিস্যু সমৃদ্ধ; জাইলেম টিস্যুতে প্রকৃত ভেসেলকোষ এবং ফ্লোয়েম টিস্যুতে সঙ্গীকোষ থাকে।
  • এদের পাতা সরল বা যৌগিক।
  • এসব উদ্ভিদের ফুল একক বা মঞ্জুরীতে থাকে।
  • গ্যামেটোফাইট খুব সংক্ষিপ্ত ও পরনির্ভরশীল।
  • গর্ভাশয় আবদ্ধ প্রকোষ্ঠ বিশেষ; গর্ভাশয়ের অভ্যন্তরে ডিম্বক (ovule) সৃষ্টি হয়।
  • নিষেকের পর গর্ভাশয় ফল-এ পরিণত হয় এবং বীজ ফলের মধ্যে নিহিত থাকে।
  • পরাগরেণু পরাগায়নের সময় গর্ভমুন্ডে পতিত হয়।
  • শুক্রাণু সর্বত্র নিশ্চল এবং আর্কিগোনিয়াম অনুপস্থিত।
  • দ্বিনিষেক সবক্ষেত্রেই ঘটে তাই সস্য ট্রিপ্লয়েড (3n)।
  • সুস্পষ্ট জনুক্রম বিদ্যমান।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x