ফাইল হচ্ছে কম্পিউটার মেমোরিতে সংরক্ষিত তথ্যাবলির লজিক্যাল ইউনিট। পরস্পর সংরক্ষিত এক বা একাধিক রেকর্ড নিয়ে ফাইল গঠিত হয়।

ফাইলের নামকরণের নিয়ম
১. ফাইলের নাম আট অক্ষরের বেশি হতে পারে না।
২. নাম লেখার ক্ষেত্রে A–Z এবং 0–9 দিয়ে লেখা যাবে।
৩. নামে কোনো কমা, ব্যাকস্ল্যাশ, স্পেস দেয়া যাবে না।
৪. নির্দিষ্ট কিছু সংরক্ষিত শব্দ দ্বারা নাম হবে না, যেমন– CON, AUX, LPT1, LPT2 ইত্যাদি।
৫. একই ডাইরেক্টরিতে একই নামের একাধিক ফাইল তৈরি করা যাবে না।
৬. ফাইলের নাম ছোট হাতের বা বড় হাতের যে কোনো অক্ষরেই লেখা যাবে।

মাস্টার ফাইল ও ট্রানজেকশন ফাইলের মধ্যে পার্থক্য কি?
মাস্টার ফাইল ও ট্রানজেকশন ফাইলের মধ্যে পার্থক্য নিচে দেওয়া হলোঃ

মাস্টার ফাইল

  • মাস্টার ফাইলকে মূল ফাইল হিসেবে বিবেচনা করা হয় এবং ডেটা সংরক্ষণ করা হয়।
  • মাস্টার ফাইলে ডেটা স্থায়ীভাবে সংরক্ষণ করা হয়।
  • এ ফাইলের ডেটাগুলো সাধারণত প্রক্রিয়াকরণের প্রয়োজন হয় না।
  • মাস্টার ফাইলের ডেটাগুলো সর্টেড অবস্থায় থাকে।
  • এ ফাইলের ডেটাগুলো সরাসরি প্রসেসিং করা যায় না।
  • মাস্টার ফাইল দুই প্রকারঃ ক) রেফারেন্স মাস্টার ফাইল, খ) ডাইনামিক মাস্টার ফাইল

ট্রানজেকশন ফাইল

  • মাস্টার ফাইলে ডেটা সংরক্ষণ করার আগে যে ফাইল ব্যবহার করে রেকর্ড সন্নিবেশিত এবং প্রসেসিং এর কাজ করা হয় তাকে ট্রানজেকশন ফাইল বলা হয়।
  • ট্রানজেকশন ফাইলে ডেটা স্থায়ীভাবে সংরক্ষণ করা হয় না।
  • এ ফাইলের ডেটাগুলো অস্থায়ীভাবে সংরক্ষণ করা হয়।
  • এ ফাইলের ডেটাগুলো সর্টেডগুলো সর্টেড অবস্থায় নাও থাকতে পারে।
  • এ ফাইলে সরাসরি প্রসেসিং করা হয়।
  • ট্রানজেকশন ফাইল দুই প্রকারঃ ক) কারেন্ট ট্রানজেকশন ফাইল, খ) সর্টেড ট্রানজেকশন ফাইল

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x