ভৌগোলিক অঞ্চলে প্রাণিদের নির্দিষ্ট সন্নিবেশে এমন কিছু প্রজাতি বাস করে যা ঐ অঞ্চলের একান্ত নিজস্ব তাকে প্রাণিভৌগোলিক অঞ্চল (Zoogeographical Region) বলে। ১৮৫৭ সালে পি. এল. স্ক্লেটার (P. L. Sclater) সর্বপ্রথম পক্ষীকূলের ভৌগোলিক বিস্তৃতির ওপর ভিত্তি করে সমগ্র পৃথিবীকে ৬টি অঞ্চলে ভাগ করেন। পরবর্তীতে ১৮৭৬ সালে এ. আর. ওয়ালেস (A. R. Wallace) পক্ষীকূলের সাথে প্রধান প্রধান মেরুদণ্ডী প্রাণিদের যুক্ত করে সামগ্রিক প্রাণী বিস্তৃতির আলোকে স্ক্লেটার প্রদত্ত অঞ্চল বিভাজনে সামান্য পরিবর্তন এনে ৬টি প্রাণিভৌগোলিক অঞ্চল নিচের মতো করে ভাগ করেন।

প্রাণিভৌগোলিক অঞ্চলগুলোর নাম
১. প্যালিআর্কটিক অঞ্চল : ইউরোপ, উত্তর আফ্রিকা ও এশিয়া (দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া বাদে)।
২. নিআর্কটিক অঞ্চল : উত্তর আমেরিকার অধিকাংশ, গ্রিনল্যান্ড ও আইসল্যান্ড।
৩. নিওট্রপিক্যাল অঞ্চল : সমগ্র দক্ষিণ আমেরিকা এবং অধিকাংশ মধ্য আমেরিকা।
৪. ইথিওপিয়ান অঞ্চল : সাহারার দক্ষিণমুখী আফ্রিকা এবং সংলগ্ন মাদাগাস্কার দ্বীপ।
৫. ওরিয়েন্টাল অঞ্চল : বৃটিশ ইণ্ডিয়া (ভারত, পাকিস্তান, বাংলাদেশ), আফগানিস্তান, নেপাল, শ্রীলঙ্কা, মায়ানমার, থাইল্যান্ড, সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া, ফিলিপিন্স, ইন্দোচীন, তাইওয়ান (ফরমোজা), এবং ইন্দোনেশিয়ার বালি দ্বীপ।
৬. অস্ট্রেলিয়ান অঞ্চল : অস্ট্রেলিয়া, তাসমেনিয়া, নিউজিল্যান্ড, নিউগিনি এবং পূর্বাংশীয় দ্বীপগুলো।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x