জেমস ওয়েব স্পেস টেলিস্কোপের প্রথম ছবি। যা ৪.৬বিলিয়ন বছর আগের ছবি

121
জেমস ওয়েব স্পেস টেলিস্কোপের প্রথম ছবি
জেমস ওয়েব স্পেস টেলিস্কোপের প্রথম ছবি

কিছুক্ষণ আগেই অনন্য এক ইতিহাসের সাক্ষী হলাম আমরা। যে ছবিটি দেখতে পাচ্ছেন সেটি মহাবিশ্বের মহাবিশ্বের ডিপেস্ট ইনফ্রারেড ছবি। জেমস ওয়েব স্পেস টেলিস্কোপ দ্বারা তোলা এ ছবিটি উন্মোচন করেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন।

জেমস ওয়েব টেলিস্কোপ এর প্রথন ছবি
জেমস ওয়েব টেলিস্কোপ এর প্রথন ছবি

ঐতিহাসিক এই ছবিটি ৪.৬ বিলিয়ন বছর আগের মহাবিশ্বের গভীরতম এবং পরিষ্কার ইনফ্রারেড ছবি, তুলেছে জেমস ওয়েব স্পেস টেলিস্কোপ।

এই ছবিটি মহাবিশ্বের সবচেয়ে গভীরতম ছবি গুলোর একটি।অথচ জেমস ওয়েব টেলিস্কোপ একদিনেরও কম সময়ে এই ছবিটি তুলেছে ।কিন্তু একই ধরনের আল্ট্রা ডিপ ফিল্ডের ছবি তুলতে হাবল টেলিস্কোপের দুই সপ্তাহ থেকে এক মাস পর্যন্ত লাগতে পারে। জেমস ওয়েব টেলিস্কোপ হলো পৃথিবীর সবচেয়ে এডভান্স এবং পাওয়ারফুল টেলিস্কোপ। এটি শুধু একটি ছবি নয়।১০ বিলিয়ন ডলার দামের ছবি।জেমস ওয়েব পৃথিবীবাসীর চোখের পর্দা খুলে দিবে।

এইরকম ছবি আমরা আগে কখনো দেখি নি।কারণ হাবল এরকম ডিপ ফিল্ডের ছবি তুলতে ব্যার্থ ছিলো।এই ছবিটি বিগব্যাং এর কয়েক’শ মিলিয়ন বছর পরের। এই ছবিটির মাধ্যমে জ্যোতির্বিজ্ঞানের নতুন যুগের সূচনা হয়েছে।

অল্প কয়েকটা উজ্জ্বল আর বড় স্পাইক দেখছেন, এগুলো আমাদের আকাশগঙ্গা ছায়াপথ (মিল্কিওয়ে গ্যালাক্সিরই প্রতিবেশী তারকা)। বাদবাকি যত আলোকবিন্দু একেকটি ছায়াপথ। ভাবা যায়?

ওয়েবের নিয়ার-ইনফ্রারেড ক্যামেরা (NIRCam) দ্বারা নেওয়া এই গভীর ক্ষেত্রটি বিভিন্ন তরঙ্গদৈর্ঘ্যের চিত্রগুলি থেকে তৈরি একটি কমপ্লেক্স ছবি, মাত্র ১২.৫ ঘন্টা লেগেছে – যেখানে হাবল স্পেস টেলিস্কোপের লেগেছিল কয়েক সপ্তাহ এবং এতো পরিষ্কার ও ছিল না।
কেবল তো শুরু, জেমস ওয়েব আরও জাদু দেখাবে আমাদের…

#জেমস_ওয়েব #টেলিস্কোপ #নাসা #মহাবিশ্ব #ছায়াপথ #স্পেস

Previous articleমেট্রোরেল উদ্বোধন করা হবে ডিসেম্বরে
Next articleহামলা-মামলার ভয়ে বাড়ি না গিয়ে হলেই ঈদ কাটল রাবির এক শিক্ষার্থী।

1 COMMENT

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here